November 13, 2018

বিশ্বনাথে ব্যাটারি চালিত রিকশা বন্ধ, দুর্ভোগে মানুষ

ctg-rec-1

মোঃ আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথে উচ্চ আদালতের নির্দেশে ব্যাটারী চালিত রিকশা বিরুদ্ধে অভিযানের সঙ্গে সঙ্গে ভাড়া নিয়ে চরম নৈরাজ্য শুরু করেছে প্যাডেল রিকশা চালকরা। ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধের সুযোগ নিয়ে দু থেকে তিনগুণ বেশি ভাড়া হাঁকছে তারা। এমন অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। ব্যাটারী চালিত রিকশা উপজেলা সদরের একে বারে নেই বললে চলে। ফলে প্যাডেল রিকশার সংখ্যা কম থাকায়, এলাকার লোকজন, কলেজ,স্কুল, অফিসগামী মানুষকে একন পুহাতে হচ্ছে দূর্ভোগ।  গত বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে কয়েকটি রিকশার ব্যাটারী জব্দ ও জরিমানা করা হলেও অনেকটাই ‘আত্মগোপনে’ চলে গেছে অধিকাংশ রিকশা। অভিযানের পর থেকে উপজেলা সদরের ব্যাটারী চালিত রিকশা চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

জানা গেছে, ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ছিল বিভিন্ন মহলে। ঝুঁকিপূর্ণ এই যানটি বিদ্যুৎ অপচয়ের একটি বড় মাধ্যম। বিশ্বনাথে রাজপথে ব্যাটারিচালিত রিকশার চলাচল শুরু হয় বছর তিনেক আগে থেকে। উপজেলা থেকে বিভিন্ন সড়কে নিয়মিত যাত্রীবহনকারী প্রায় কয়েকশত ব্যাটারী চালিত অটো রিকশা অভিযানের দিন বুধবার দুপুর থেকে উধাও হয়ে যায়।

বিভিন্ন রাস্তায় চলাচলকারী ব্যাটারী চালিত অটো রিকশাগুলো না থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ যাত্রীরা। কারণ পা দিয়ে চালিত রিকশা সংখ্যা ছিল কম। ব্যাটারী চালিত রিকশা এলাকার আসার পরপরই কমে যায় পায়ের রিকশা। উপজেলার সড়কসহ বিভিন্ন অভ্যন্তরিন রাস্তায় প্রায় কয়েকশত ব্যাটারী চালিত অটো রিকশা নিয়মিত যাত্রী পরিবহন করে। বুধবার দুপুরে আকস্মিকভাবে ব্যাটারী চালিত অটো রিকশা বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে উপজেলা প্রশাসন।
অভিযানের খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ব্যাটারী চালিত অটো রিকশাগুলো নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যান মালিক ও চালকরা। ফলে ওইদিন দুপুরে রাস্তায় একটি ব্যাটারী চালিত অটো রিকশাও চলাচল করেনি। হঠাৎ করে রাস্তা থেকে রিকশা উধাও হয়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ।

Related posts