November 13, 2018

বিশ্বনাথে প্রবাসীর বাড়ি দখলের অভিযোগ

123বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথে হাজী কলমদর আলী নামের এক যুক্তরাজ্য প্রবাসীর বাড়ি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার (১৬ অক্টোবর) উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের কাজিরগাও গ্রামে। এ ঘটনায় মামলা হলে শুক্রবার রাতে তিনজনকে আটক করে থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলেন, কাজির গাও গ্রামের ছুরত মিয়ার ছেলে কাচা মিয়া, আমির আলীর ছেলে আঙ্গুর মিয়া, মতছির আলীর ছেলে আতিক আলী।
স্থানীয় সুত্র জানায়, হাজী কলমদর আলীর পিতা ওয়াব আলী দ্বিতীয় বিবাহের পর স্ত্রী আলেয়াকে রেখে যুক্তরাজ্য আসা যাওয়া করতেন। এ সময়ের মধ্যে আলেয়া, শাহানারা ও ইউসুফ আলী নামের দুই সন্তানের জন্ম দেন। এক পর্যায়ে স্ত্রী ও ছেলে মেয়েদের যুক্তরাজ্য নিতে চাইলে বিট্রিশ ইমিগ্রিশনে ডিএনএ টেস্টে ছেলে মেয়েদের সাথে ওয়াব আলীর ডিএনএ না মেলায় তিনি ছেলে-মেয়েসহ আলেয়াকে ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে তালাক দেন। পরে ছেলে-মেয়ে নিয়ে নিজের পিত্রালয় সুনামগঞ্জের দিরাই থানার কুলঞ্জে চলে যান আলেয়া। দীর্ঘ ১৩ বছর পর কাজিরগাও‘র কিছু প্রভাবশালী মানুষের ইন্ধনে গত ১২ সেপ্টেমর আলেয়া এসে ওয়াব আলী বসতবাড়ির দখল নেন। এ ঘটনায় ওয়াব আলীর ছেলে দেশে এসে দখলদারদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত সিলেটে মামলা (৪০, তাং ১৭ইং) দেন। আদালত উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’কে মামলা তদন্তের জন্য দেন। পরে ১৬ অক্টোবর সোমবার থানা পুলিশ ও সার্ভেয়ারসহ প্রবাসীয় ভায়রা আনরপুর গ্রামের মৃত জাহির আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলমগংরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে দখলদাররা তাদের উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এঘটনায় জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে ২২ জনের নাম উল্লেখসহ ৫/৬জন অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে গত ১৯ অক্টোবর বিশ্বনাথ থানায় মামলা (১১, তাং ১৯.১০.১৭ইং) দেন। মামলার প্রেক্ষিতে তিন আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
মামলার বাদী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার ভায়রা কলমদর আলী প্রবাসে থাকায় আমি তার বাড়ি দেখাশুনা করতাম। গত ১২ সেপ্টেম্বর আসামিরা তালা ভেঙ্গে বাড়িটি দখল করে। পরে ১৬ অক্টোবর পুলিশ ও সার্ভেয়ারসহ তদন্তে গেলে তারা আমাদের হামলা চালায়।
প্রবাসী কলমদর আলী বলেন, আলেয়া বেগম, তার মেয়ে শাহানারা ও ইউসুফ ওরা আমার পিতার উত্তরাধীকার দাবী করে চক্রান্তের মাধ্যমে আমাদের সম্পত্তি গ্রাসের পায়তারা করতেছে। প্রকৃত পক্ষে ওরা আমাদের কেউ নয়। ব্রিটিশ হাইকমিশনের ডিএনএ টেস্টে প্রমাণিত হয়েছে ওরা (শাহানার ও ইউনুফ) আমার পিতার ঔরসজাত সন্তান নয়। বিষয়টি জানার পর সন্তানসহ তখনই বাবা ওই মহিলাকে (আলেয়া) তালাক দেন। আমি প্রবাসে থাকায় দীর্ঘদিন পর গ্রামের কিছু সম্পদ লোভীদের প্ররোচনায় এখন তারা তালা ভেঙ্গে আমার বাড়ি দখল করেছে। হামলা চালিয়েছে আমার আতœীয়-স্বজনদের উপর।
বক্তব্যের জন্যে অভিযুক্ত আলেয়া বেগম’র সেলফোনে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। পরে তার মেয়ে শাহানারা বেগম‘র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রকৃত পক্ষে আমার পিতা ওয়াব আলীর উত্তরাধীকার আমার মা ও আমরা দুই ভাই-বোনও। সম্পদের ভাগ থেকে আমাদের বঞ্চিত করতেই এই ষড়যন্ত্র। ঘটনার দিন অভিযোগকারীরা আমাদের উপর হামলা চালায়। পরে উল্টো আমাদের আসামি করে মামলা দেয় তারা।
মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা সাব-ইন্সপেক্টর জমিরুল ইসলাম বলেন, মামলার প্রেক্ষিতে তিন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের ধরার চেষ্টায় আছে পুলিশ।

Related posts