November 17, 2018

বিপুল উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ হাই কমিশনে বর্ষবরণ

সদেরা সুজন, কানাডা থেকেঃ  জমজমাট আয়োজনে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কানাডার অটোয়াস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের উদ্যোগে গত ২৪শে মে ২০১৬ অনুষ্ঠিত হলো নববর্ষ বরণ ও বৈশাখী মেলা ১৪২৩। রাজধানী অটোয়ার রিচলিউ ভ্যানিয়ার কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত এ বৈশাখী মেলায় নাচ, গান, কবিতা আবৃত্তি, বাহারি রঙের দেশীয় পণ্য ও সুস্বাদু খাবারের সমাহার এবং শিশুদের অঙ্কিত অনুপম চিত্র প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে বর্ষবরণ করেন অটোয়া ও মন্ট্রিয়েলসহ পার্শ্ববর্তী শহরগুলোর প্রায় পাঁচ শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশী । কানাডা সরকারের পররাষ্ট্র, বাণিজ্য ও উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ বিভাগের কর্মকর্তারাও মেলায় যোগদান করেন।

বৈশাখী মেলা ও বর্ষবরণ আয়োজনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন কানাডায় নিযুক্ত বাংলদেশের হাই কমিশনার কামরুল আহসান। সকলকে মেলায় স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলা নববর্ষ আমাদের ভাষা, সংস্কৃতি এবং জীবনের সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িয়ে আছে। নববর্ষের হালখাতা বাঙালী জীবনে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড, প্রাণ-চাঞ্চল্য এবং আনন্দ-আতিথেয়তার প্রতীক। তাই এ বর্ষবরণ ও বৈশাখী মেলা আয়োজনের অন্যতম লক্ষ্য হ্চ্ছে অামাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে নিজেদের দেশ, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরা।

এরপর গত ১৭ই মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে টরন্টো ও অটোয়ায় আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিশুদের মাঝে পুরস্কার ও সার্টিফিকেট বিতরণ করেন হাই কমিশনারের সহধর্মিনী মিসেস সায়রা নাজনীন আহসান। সমগ্র কানাডাব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় ‘ক’ গ্রুপে (বিষয়: আমাদের বাংলাদেশ) প্রথম স্থান অধিকার করে টরন্টোর শিশু মাহাজীব আশরাফ সৌমিক। ‘খ’ গ্রুপে (বিষয়: বঙ্গবন্ধু ও আমাদের স্বাধীনতা) প্রথম স্থান অধিকার করে অভিনন্দন কুন্ডু। অটোয়ার শিশুদের মধ্যে ‘ক’ গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে দেওয়ান ফাতিমা সাইয়িদা সহীহ্ এবং ‘খ’ গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে লাবিবা তাবাসসুম অরোরা।

এরপর মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্বে উন্মুক্ত মঞ্চে কাবিতা আবৃত্তি করেন জুলফি সাদিক, সুলতানা শিরীন সাজী (স্বরচিত) শিউলী হক, মাহমুদা নূপুর (স্বরচিত) এবং মাকসুদ খান। শিশুদের জন্য নির্ধারিত সময়ে সঙ্গীত পরিবেশন করে অারিশা, চন্দ্রিমা, সানভী, লারিসা বর্ষণ, সহীহ্, অরোরা, এ্যালিসিয়া, ইষ্টি এবং অালিনা। তিন বছরের ছোট্ট শিশু সৌম্য একটি ছড়াগান “ধিতাং ধিতাং বোলে, এ মাদলে গান তোলে” – গেয়ে সকলকে মুগ্ধ করে। “আইলো আইলো আইলো রে, রঙ্গে ভরা বৈশাখ আবার আইলো রে” গানটির তালে চমৎকার নৃত্য পরিবেশ করে শিশুশিল্পী লারিসা।

সাংস্কৃতিক আয়োজন পর্বের অন্যতম আকর্ষণ ছিলো মন্ট্রিয়েল থেকে আগত নৃত্যশিল্পী তানভীর আলমের কত্থক নৃত্য। অনবদ্য নাচের ঝংকারে মেলায় আগত অতিথিদের মন্ত্রমুগ্ধ করেন কানাডার সুপরিচিত এই বাংলাদেশী ধ্রুপদী নৃত্যশিল্পী। তানভীরের পরপর দু’টি নাচের পরিবেশনায় ভিন্ন আমেজে বৈশাখী আয়োজন উপভোগ করেন দর্শকরা।

সঙ্গীত পরিবেশন করেন আরেফিন কবীর, মেজবাহ আলম অর্ঘ্য, রুয়েনা খানম, পান্না, ডালিয়া ইয়াসমীন, ফারজানা মাওলা অজন্তা এবং মিশিগান থেকে আগত শিল্পী ফারহানা বিশ্বাস ইলোরা। বাহারী দেশীয় পণ্য, সুস্বাদু খাবার এবং পোশাক নিয়ে মেলায় স্টল সাজান আফরোজা খান লিপি, এম.এফ. ফুড মার্ট, ফিউশন ব্যুটিক, ডালিয়া বাংলা মিউজিক স্কুল, শিবানী রাণী দাস, তারেক আহমেদ,সিতার রেস্টুরেন্ট এবং মাহমুদা নূপুর (স্বরচিত গ্রন্থ সংগ্রহ) ও এ্যালাইভ এডুকেশন (শিক্ষামূলক প্রতিষ্ঠান)। বাংলাদেশ হাই কমিশনের স্টলে ছিল বঙ্গবন্ধুর জীবনী, বাংলাদেশের ইতিহাস, পর্যটন, ভ্রমণ,বাণিজ্য-বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন গ্রন্থ সংকলন, ডায়েরী, প্রকাশনা এবং বর্তমান সরকারের সাফল্যের প্রচারপত্র। প্রতিটি স্টলের সম্মুখভাগে শিশুদের আঁকা চিত্রের নান্দনিক প্রদর্শনী দর্শক-অতিথিদের নজর কাড়ে। বাংলাদেশ হাই কমিশন পরিবার সদস্যদের রান্না করা সুস্বাদু খাবারে মেলায় আগত অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। বৈশাখী মেলা সমন্বয় ও উপস্থাপনায় ছিলেন বাংলাদেশ হাই কমিশনের প্রথম সচিব (বাণিজ্যিক) দেওয়ান মাহমুদ।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৭ এপ্রিল ২০১৬

Related posts