November 16, 2018

বিদ্রোহীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা শুরু করেছে—হানিফ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।

স্টাফ রিপোর্টারঃ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ জানিয়েছেন, আসন্ন পৌর নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলটির বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা শুরু করেছেন।

শনিবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনের তিনি বলেন, “৭১টি পৌরসভায় বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ৪/৫টি পৌরসভায় বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

“আশা করছি, ১৩ ডিসেম্বরের মধ্যে বাকি সবাই প্রত্যাহার করে নেবেন।”

হানিফ বলেন, “কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য আমরা সকাল থেকেই কাজ করছি। বিভিন্ন পৌরসভার প্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। আমাদের সাংগঠনিক সম্পাদকরাও কাজ করছেন।

“তাদেরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তারা প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলে স্থানীয়ভাবে বিদ্রোহীদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করাবেন।”

ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে আরও ছিলেন দলটির অপর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দিপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ।

বিএনপির মুখপাত্রের দায়িত্বে থাকা আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন শুক্রবার ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে ‘নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের’ অভিযোগ তুলে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করার দাবি জানান।

বিএনপি নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিরুদ্ধে ‘কাল্পনিক অভিযোগ’ করছে দাবি করে সংবাদ সম্মেলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হানিফ বলেন, “এই নির্বাচন কমিশনের অধিনে পাঁচ সিটি করপোরেশন নির্বাচন করে তারা (বিএনপি) জয় লাভ করেছিল।

“এখন আবার এই নির্বাচন কমিশনের বিরোধিতা করছে। তাহলে কি বিএনপি আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন চায়?”

তিনি বলেন, “বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারীর ঢাকা-১০ আসনের নির্বাচন জনগণ দেখেছে। কী নির্বাচন তারা করেছিল?

“আজিজ মার্কা নির্বাচন বাংলাদেশে আর কোনো কমিশন করেছে কি না সন্দেহ আছে। তারা মানসিক বিকারগ্রস্ত বলে মানুষের ধারণা ছিল। বিএনপির পছন্দ আজিজ মার্কা নির্বাচন কমিশন।”

আওয়ামী লীগ চায় উৎসবমুখর পরিবেশে জনগণের রায় নিয়ে দলীয় প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়ে আসুক- একথা উল্লেখ করে হানিফ বলেন, কিন্তু একটি বৃহত্তর রাজনৈতিক দল শুরু থেকেই নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে কাল্পনিক অভিযোগ করে আসছেন। বিএনপিকে আশ্বস্ত করতে চাই অহেতুক, যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই, তাদের হয়রানি করার সুযোগ নেই।

“জাতি চায় যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করেছে তাদের বিচার হোক। নির্বাচনের দোহাই দিয়ে সন্ত্রাসীদের পার পাওয়ার সুযোগ নেই। আমরা আশা করি, সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় আনতে সরকারকে সহযোগিতা করবে বিএনপি। ”

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts