March 25, 2019

বিজ্ঞাপনে ক্ষুব্ধ থাইল্যান্ডে !

থাইল্যান্ডের একটি প্রসাধনী প্রতিষ্ঠানের ত্বক ফর্সাকারী পণ্যের বিজ্ঞাপন বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বর্ণবৈষম্যমূলক বলে ব্যাপক সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছে। শেষ পর্যন্ত বিজ্ঞাপনটি প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হয়েছে কোম্পানিটি।

দেশটির সিউল সিক্রেট কোম্পানির ওই বিজ্ঞাপনে দেখা যায়, থাইল্যান্ডের খ্যাতনামা অভিনেত্রী ক্রিস হরওয়াং তার সফলতার কারণ হিসেবে নিজের ফর্সা ত্বককে উপস্থাপন করছেন। একজন ফ্যাকাশে বর্ণের অভিনেত্রীর গায়ের রং কম্পিউটার গ্রাফিকসের মাধ্যমে ধীরে ধীরে কালো করে দেওয়া হয়। এরপর অন্য আরেক ফর্সা ত্বকের হাস্যোজ্জ্বল অভিনেত্রী ক্রিস হোরওয়াং ক্যাপসুল দেখিয়ে বলেন, ‘ফর্সা হলেই আপনি সফল হবেন।’ এর পাশাপাশি তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘এই ক্যাপসুল ব্যবহার না করলে আপনার ত্বকের ফর্সা রং হারিয়ে যেতে পারে।’

এ ধরনের বিজ্ঞাপনের জন্য আন্তরিকভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করেছে পণ্যটির প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান। তারা জানিয়েছে, বিজ্ঞাপনটিতে তারা কোনো প্রকার অপরাধমূলক কিছু বোঝাতে চায়নি। এদিকে এই বিজ্ঞাপনটির পর ত্বকের প্রতি মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে থাইল্যান্ডে।

দেশটিতে এ ধরনের বিজ্ঞাপন নিয়ে বিতর্ক এবারই প্রথম নয়। ২০১৩ সালেও একবার ডানকিন ডোনাটের একটি বিজ্ঞাপনে মুখে কালো রং করা এক মডেলকে দেখা যায়। তা নিয়ে বিতর্ক উঠলে সেবারও প্রতিষ্ঠানটি ক্ষমা প্রার্থনা করে। একই বছর ইউনিলিভার একটি রং ফর্সাকারী ক্রিমের বিজ্ঞাপনে শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃত্তি প্রদানের ঘোষণা করলে তাও সমালোচিত হয়।

থাইল্যান্ড থাম্মাসাত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান ও নৃবিজ্ঞানের অধ্যাপক ইউকতি মুকদাউইজিত্রা বলেন, ‘আমি মনে করি, বিজ্ঞাপনটি খুবই বাজে। থাইল্যান্ডে এখনো এই ধরনের বিজ্ঞাপন তৈরি হয়- এটা অবিশ্বাস্য ব্যাপার।’ তিনি আরো বলেন, ‘এই বিজ্ঞাপনটি থাইল্যান্ডে কয়েক শতাব্দি ধরে বিরাজমান বর্ণবাদের প্রতিনিধিত্ব করে। থাইল্যান্ডে ফর্সা রংকে মর্যাদা ও আভিজাত্যের প্রতীক মনে করা হয়।’

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts