September 22, 2018

বিএনপিতে ফেরার কোনো সম্ভাবনা নেই—অলি

এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ
দল বিলুপ্ত করে বিএনপিতে যাওয়ার সম্ভাবনাকে নাকচ করেছেন ।

২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক কর্ণেল অলি শুক্রবার দুপুরে দেয়া সাক্ষাতকারে বলেন, এই তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। এলডিপির ক্ষতি করতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। বিএনপিতে ফিরে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

অলি বলেন, এলডিপি তার নিজস্ব ধারায় রাজনীতি করছে। যে বা যারা এই সংবাদ প্রচার করছেন, তারা এলডিপির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। এই সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান বীরবিক্রম অলি আহমেদ।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানের বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটের প্রধান খালেদা জিয়ার সঙ্গে কর্ণেল অলির সাক্ষাত নিয়ে আলোচনার সুত্রপাত ঘটে। বিএনপি দলীয় সূত্র , গনমাধ্যমকর্মীদের নিশ্চিত করে, আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনের পর এলডিপি চেয়ারম্যান দল বিলুপ্ত করে বিএনপিতে যোগ দেবেন।

কর্ণেল অলি এ প্রসঙ্গে বলেন, খালেদা জিয়ার পরিবারের সঙ্গে ৪৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে সম্পর্ক। কাজেই রাজনৈতিক কারণ ছাড়াও তার সঙ্গে আমি সাক্ষাত করতে পারি। গতরাতের (১৭ ডিসেম্বর)সাক্ষাতটিও এরকমই ছিলো। তিনি বলেন, ১৯৭০ সাল থেকে জিয়ার পরিবারের সঙ্গে আমার সম্পর্ক। তাছাড়া খালেদা জিয়া ২০ দলীয় জোট প্রধান। তার সঙ্গে সাক্ষাত হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।

অলি বলেন, খালেদা জিয়ার সঙ্গে বিএনপিতে ফিরে যাওয়া নিয়ে একটি বাক্যও আলোচনা হয়নি। এই ধরণের বিভ্রান্তি কেউ যেন বিশ্বাস না করে।

তবে এবারই প্রথম নয়, অনেকদিন ধরেই রাজনৈতিক অঙ্গনে গুঞ্জন চলছিল অলি আহমেদ বিএনপিতে ফিরবেন।

১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) প্রতিষ্ঠার পর ১৯৮০ সালের ফেব্রুয়ারিতে কর্নেল অলি আহমদ বীরবিক্রম দলে যোগ দেন। ওই বছরের মার্চে চট্টগ্রাম-১৩ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া) আসনের উপ-নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে নিয়োগ পান প্রতিমন্ত্রী হিসেবে। এরপরে আরও চার দফায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন একই আসন থেকে।

প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে থেকে কর্নেল অলি রাজনীতি করেছেন। ১৯৮৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন।

২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে জামায়াতের সঙ্গে আসন বণ্টন নিয়ে দলের সঙ্গে মতভেদ সৃষ্টি হয়। অবশেষে চারদলীয় জোট সরকারের শেষ সময়ে এসে ২০০৬ সালের ২৬ অক্টোবর অলি আহমদ বিএনপি থেকে পদত্যাগ করে সাবেক রাষ্ট্রপতি একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে নিয়ে বিকল্পধারা গঠন করেন। পরে ওখানে থেকে বের হয়ে এলডিপি (লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি) গঠন করেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts