November 19, 2018

বার্নস-স্মিথের ব্যাটে উড়ন্ত অস্ট্রেলিয়া

585
স্পোর্টস ডেস্কঃ   ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচে সবচেয়ে কম বলে টেস্ট সেঞ্চুরি করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। তবে পরদিনই সেই নৈপুণ্য অনেকটাই ম্লান হয়ে গেল জো বার্নস ও স্টিভেন স্মিথের কাছে। এই দুজনের জোড়া সেঞ্চুরিতে ক্রাইশ্চার্চ টেস্টে এখন নিয়ন্ত্রকের ভুমিকায় রয়েছে অস্ট্রেলিয়াই। অবশ্য কিউইদের সান্ত্বনা হচ্ছে দিনশেষ হওয়ার আগেই দুই সেঞ্চুরিয়ানকে সাজঘরে পাঠাতে সক্ষম হয়েছে তারা। তাই রোববার দ্বিতীয় দিনশেষে নিউজিল্যান্ডের স্কোর দাঁড়ায় চার উইকেটে ৩৬৩ রান।

ব্রেন্ডন ম্যাককালামের দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ডের দিনে কোরি অ্যান্ডারসন ও বিজে ওয়াটলিং করেন হাফ সেঞ্চুরি। শনিবার নিউজিল্যান্ডের অন্য কোনো ব্যাটসম্যান সেভাবে সুবিধা করতে পারেননি। তাই দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগেই ৩৭০ রানে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংস। একইদিনে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে অস্ট্রেলিয়া এক উইকেট হারিয়ে ৫৭ রান করে।

সেখান থেকেই দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করেন বার্নস ও উসমান খাজা। তবে দলীয় স্কোরে ১০ রান যোগ হতেই খাজা সাজঘরে ফেরেন। এরপর বার্নসের সঙ্গে যোগ দেন স্মিথ। এই দুজন যা করেছেন তাতে নিউজিল্যান্ডের সব পরিকল্পনাই ভেস্তে যায়। তৃতীয় উইকেটে ২৮৯ রানের জুটি গড়েন তারা। সেঞ্চুরি করেন উভয়ে।

দলীয় স্কোর যখন ৩৫৬ তখন তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন বার্নস। এর আগেই দশম টেস্ট খেলতে নেমে দেশের বাইরে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পান তিনি। অবশ্য এই সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরির দিকেই নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। তবে শেষ পর্যন্ত ১৭০ রান করে ওয়াগনারের বলে গাপটিলের হাতে ধরা পড়ায় তা আর হয়ে ওঠেনি। ৩২১ বল মোকাবেলা করে ২০টি চারের মারে এ রান করেন বার্নস।

বার্নস আউট হওয়ার স্বল্প সময়ের ব্যবধানে আরেক সেঞ্চুরিয়ান স্মিথকেও সাজঘরে ফেরাতে সক্ষম হয় কিউইরা। ১৩৮ রান করা অসি অধিনায়ক ওয়াগনারের পরবর্তী ওভারে সেই গাপটিলের হাতেই ধরা পড়েন। ২৪১ বল থেকে ১৭টি চারের মারে নিজের ইনিংসটি সাজান স্মিথ। তাই দিনের শেষটা কিছুটা হলেও স্বস্তিতেই করেছে কিউইরা।

উল্লেখ্য, দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে জিতে অস্ট্রেলিয়া ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts