November 17, 2018

বাবাকে খুন করে স্কুল ছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টা ॥ গ্রেফতার ৭

রফিকুল ইসলাম রফিকঃ নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার ভূঁইগড় রঘুনাথপুর এলাকায় এক স্কুল ছাত্রী অপহরণ করতে বাড়িতে হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। অপহরণে বাধা দেয়ার মেয়েকে বাবা মনীন্দ্র কুমার অধিকারীকে পুেিপয়ে খুন করেছে। পরিবারের চিৎকারে আশপাশে লোকজন দুই সন্ত্রাসীকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করে। পরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে জনতার হাতে আটক আরো পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। মঙ্গলবার ভোররাতে এ ঘটনা ঘটে। লালমনির হাট ধলগ্রাম থানার কৃ কলি গ্রামের অপেন্দ্রনাথের ছেলে। মনিন্দ্রনাথ স্বপরিবারে দীর্ঘদিন যাবত ফতুল্লার রগুনাথপুর এলাকায় এনামুলের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করেন। তিনি পেশায় রিকশা চালক। তার ৩ মেয়ে ১ ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, স্থানীয় হাজী পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর ছাত্রীর সাথে স্থানীয় যুবক তুহিনের সর্ম্পক গড়ে উঠে। তুহিন মেয়েটির বাবা মনীন্দ্র কুমার অধিকারীকে এক পর্যায়ে বিয়ের প্রস্তাব দিলে ধর্মীয় কারণে বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় সে মেয়েটিকে তুলে নেয়ার হুমকি দেয়। এরই মধ্যে ওই ছাত্রী অন্যত্র বিয়ে ঠিক হয়। তুহিন সাউন্ড সিস্টেমের ব্যবসার সাথে জড়িত। মঙ্গলবার ভোররাতে তুহিন দুইটি মাইক্রেবাসে করে দশ-বারজন সন্ত্রাসী নিয়ে সেখানে গিয়ে মেয়েটিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় বাবা মনীদ্রসহ পরিবারের অন্যান্যরা বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা মনীন্দ্র কুমারকে কুপিয়ে হত্যা করে। পরিবারের চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে ঘনটাস্থল থেকে মাইক্রোবাসহ দুই সন্ত্রাসীকে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোর্পদ করে। পরে পুলিশ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আরো পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। পুলিশ লাশের সুরতহাল করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

 

 

Related posts