September 20, 2018

বাংলাদেশে ৭৩ ভাগ নারী অনলাইনে হয়রানির শিকার

অনলাইন হয়রানি

বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী নারীদের মধ্যে প্রায় ৭৩ ভাগ নারী হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

অনলাইনে হয়রানির শিকার একজন নারীর কেস স্টাডি তুলে ধরা হয়। ওই নারীর গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামে।

বিবাহ বিচ্ছেদের পর ওই নারী দ্বিতীয় বিয়ে করে নিরূপদ্রব জীবনযাপন করছিলেন।

কিন্তু তাঁর সাবেক স্বামী তাঁর নামে ভুয়া একটি অ্যাকাউন্ট খুলে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট করেছেন। নিরুপায় হয়ে ওই নারী সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন।

নাসিমার মতো অনেকেই এভাবে স্বামী, প্রেমিক কিংবা সম্পূর্ণ অপরিচিত ব্যক্তির মাধ্যমে ফেসবুকে হয়রানির শিকার হন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজধানীর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সাদিয়া ইয়াসমিন বলেন, ফেসবুকে তিনি এমন কিছু পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন যা অপ্রীতিকর। তবে তাঁর অনেক বান্ধবী তাঁর চেয়েও বেশি নিপীড়নের শিকার হয়েছেন।

‘কেউ হয়তো ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠাল, কিন্তু আমি অ্যাকসেপ্ট (গ্রহণ) করলাম না। তখন কেউ কেউ আমার ম্যাসেজ বক্সে বাজে মেসেজ পাঠায়’, যোগ করেন সাদিয়া।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অনলাইনে যেসব নারী হয়রানির শিকার হচ্ছেন, তাঁদের কেউ কেউ অভিযোগ দায়ের করতে যান রাজধানীর তেজগাঁওয়ে উইমেন সাপোর্ট এন্ড ইনভেস্টিগেশন সেন্টারে।

এ বিষয়ে বিবিসি কথা বলে পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) আসমা সিদ্দিকা মিলির সঙ্গে। তিনি বিবিসিকে বলেন, প্রতিমাসে গড়ে ১৫টির মতো অভিযোগ পান। অভিযোগ গ্রহণের পর সেগুলো তদন্তের জন্য গোয়েন্দা পুলিশের সহায়তা নেওয়া হয়।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশে বর্তমানে এক কোটি ৭০ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছে। এদের মধ্যে নারী ব্যবহারকারীর সংখ্যা কত সে বিষয়ে যথাযথ কোনো তথ্য নেই।

কয়েক বছর আগে এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে যারা ফেসবুক ব্যবহার করছেন, তাঁদের মধ্যে ২২ শতাংশ নারী।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নারীদের হয়রানি নিয়ে গবেষণা করেন সমাজবিজ্ঞানী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাদেকা হালিম।

তিনি বিবিসিকে বলেন, ফেসবুকে ছবি কিংবা ভিডিওকে কেন্দ্র করেই এ ধরনের হয়রানি বেশি হচ্ছে।

‘অনেক নারী ফেসবুকে ছবি আপলোড করছে। কিন্তু কারো যদি সেই নারী সম্পর্কে বিদ্বেষ সৃষ্টি হয়, তখন তার ছবিটা ফটোশপ করে পর্নো তৈরি করা হচ্ছে।’

প্রতিবেদনে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের সাম্প্রতিক একটি বক্তব্য উদ্ধৃত করা হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে যেসব নারী ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাঁদের ৭০ শতাংশের বেশি নানাভাবে অনলাইনে হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

এ ক্ষেত্রে বেশিরভাগ ঘটনাই ঘটছে ফেসবুককে কেন্দ্র করে। বিষয়টি মোকাবিলার জন্য বাংলাদেশ সরকার ফেসবুকের সঙ্গে বৈঠক করবে।

Related posts