November 16, 2018

‘বাংলাদেশের আইএস বিরোধী জোটে যোগ দেয়া উচিত হবে না’

আইএস

দেশে জঙ্গি সংগঠন আইএস-এর অস্তিত্ব আছে বলে পশ্চিমা বেশ কয়েকটি দেশের দাবি সত্ত্বেও এ মুহূর্তে আইএস বিরোধী কোন জোটে বাংলাদেশের যোগ দেয়া উচিত হবে না বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও বলছে, কোন দেশের নয়, জাতিসংঘের উদ্যোগে কোনও জোট গঠিত হলে যোগ দেয়ার ব্যাপারে আপত্তি থাকবে না বাংলাদেশের।
মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের তৎপরতা বন্ধ করতে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে জোট গঠন করে যুক্তরাষ্ট্র। ১০ দেশের এই জোট আইএসের বিরুদ্ধে দফায় দফায় বিমান হামলা চালায়। এখনও চলছে সে হামলা।
কোনও জোটে না গিয়ে রাশিয়াও পৃথকভাবে বিমান হামলা চালাচ্ছে সিরিয়ায়। আর সম্প্রতি প্যারিস হামলার পর ফ্রান্সের উদ্যোগে যুক্তরাষ্ট্রের জোটভুক্ত দেশগুলো এবং রাশিয়াকে নিয়ে একটি বৃহত্তর জোট গঠনের চেষ্টা চলছে।
আন্তর্জাতিক এমন সব তৎপরতার মধ্যে পশ্চিমা দেশগুলোর পক্ষ থেকে বাংলাদেশে আইএসের অস্তিত্ব থাকার দাবি করে দেয়া হচ্ছে নানা বিবৃতি। সরকারের পক্ষ থেকে অবশ্য বলা হচ্ছে, চাপ তৈরি করতেই এ ধরনের তৎপরতা।
এ অবস্থায় আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকদের মতে, নানামুখী চাপ থাকলেও আপাতত আইএসবিরোধী কোনও আন্তর্জাতিক জোটে যোগ দেয়া উচিত হবে না বাংলাদেশের। আর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, কোনও দেশ নয়, জাতিসংঘের উদ্যোগে জোট হলে সহযোগিতা করবে বাংলাদেশ।
এ বিষয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, আইএস বিষয়ে জাতিসংঘের নেতৃত্বে যদি কার্যক্রম গ্রহণ করা হয় তাহলে বাংলাদেশ সেটাতে অংশগ্রহণ করবে। সেক্ষেত্রে হয়তো বাংলাদেশ শরণার্থীদের নানা বিষয়ে সহায়তা করবে।
তবে আইএস ইস্যুতে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা জোরদার করার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সহযোগিতা নেয়া যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

Related posts