November 14, 2018

বাংলাদেশের অস্তিত্ব রক্ষায় তারেককে ধারণ করতে হবে’

জন্মদিনে লন্ডনে ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা:

img_0846

মুহাম্মদ নূরে আলম, লন্ডন থেকে:

বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫২তম জন্ম দিনে গতকাল রোববার যুক্তরাজ্য বিএনপি ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক সেমিনার লন্ডন সিটি হোটেলের কনফারেন্স হলে আয়োজন করে। এতে বিশিষ্টজনরা বলেন, তারেক রহমান জাতীয়তাবাদী আদর্শের ভবিষ্যত কর্ণধার। জাতীয়তাবাদী আদর্শের ভিত্তিতেই পরবর্তী বাংলাদেশ গড়ে উঠবে। তাই আজ এটা সর্বস্বীকৃত যে, তারেক রহমান মানেই বাংলাদেশ। বাংলাদেশের অস্তিত্ব রক্ষার জন্যই তারেক রহমানকে ধারণ করার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তারা।

যুক্তরাজ্য  বিএনপির সভাপতি এম এ মালিকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদের পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন ভয়েস ফর জাস্টিসের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডক্টর হাসনাত হোসাইন এমবিই। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,  বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, সাংবাদিক কে এম আবু তাহের চৌধুরী, জাস্ট নিউজের সম্পাদক মুসফিকুল ফজল আনসারী, বাংলাদেশ সেন্টার ফর জার্নালিজম এন্ড ডেমোক্রেসির নির্বাহী পরিচালক সাংবাদিক এম মাহাবুবুর রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ চৌধুরী, সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ, আক্তার হোসেন, শহীদ জিয়া সৃতি পাঠাগার যুক্তরাজ্যের চেয়ারম্যান শরিফুজ্জামান চৌধুরী তপন, রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির সহ-সভাপতি প্রফেসর এম ফরিদ উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক কামাল উদ্দিন, সিনিয়র সদস্য আলহাজ্ব সাদিক মিয়া, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী অধ্যাপক ডক্টর এম মুজিবুর রহমান ।  img_20161120_161013

সেমিনারে তারেক রহমানের উপরে একটি এ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন করা হয় । এবং ইংরেজি ও বাংলায় দুটি প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয় তারেক রহমানের রাজনৈতিক ও পারিবারিক জীবন নিয়ে।

সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৮৮ সালে তারেক রহমান বগুড়ার গাবতলী থানা বিএনপির সদস্য হওয়ার মধ্য দিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। ২০০১ সালের নির্বাচনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। মূলত এ নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেয়ার মাধ্যমে রাজনীতির প্রথম সারিতে তার সক্রিয় আগমন ঘটে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০০২ সালে তারেক রহমানকে দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়। ২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বিএনপির পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিলে তারেক রহমান সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। সর্বশেষ মার্চের ষষ্ঠ কাউন্সিলে তাকে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের পাশাপাশি তাকে স্থায়ী কমিটির সদস্য করা হয়।

২০০৭ সালের ৭ মার্চ তারেক রহমানকে ক্যান্টমেন্টের মইনুল রোডের বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। আসামি করা হয় ১৩টি দুর্নীতির মামলায়। বর্তমান সরকারের আমলে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা ও গ্রেফতা

সভায় অনন্যাদের মধ্যে আরও উপস্তিত ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মুজিবুর রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির সহ-সভাপতি এম লুতফুর রহমান,  মঞ্জুরুস সামাদ চৌধুরী মামুন, শেখ শামসুদ্দিন শামিম, মোঃ গোলাম রাব্বানি সোহেল,  সিনিয়র সদস্য নাসিম আহমেদ চৌধুরী, মিসবাহুজ্জামান সোহেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক আজমল চৌধুরী জাবেদ, কোষাধক্ক  আব্দুস সাত্তার, দপ্তর সম্পাদল নাজমুল হাসান জাহিদ, যুব বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হামিদ খান হেভেন, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক আবু নাসের শেখ, সেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান আকতার, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক তাজবির চৌধুরী শিমুল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ আলি আহমেদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক সেলিম আহমেদ, সহ-ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সরফরাজ আহমেদ শরফু, সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক জাহিদ হোসেন গাজী, কেন্দ্রীয় জাসসে যুগ্ম সম্পাদক এমাদুর রহমান এমাদ, যুক্তরাজ্য বিএনপির সদস্য নাজমুল ইসলাম লিটন, আব্দুল বাসিত বাদশা, শামিম হোসাইন, টিপু আহমেদ, বাবুল আহমেদ চৌধুরী, হাবিবুর রহমান, আরিফ মাহফুজ, শিশু মিয়া, শহীদ মুসা, লন্ডন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম, ইস্ট লন্ডন বিএনপির আহ্বায়ক আশরাফ গাজী, সদস্য সচিব এস এম লিটন,  লন্ডন  নর্থ ওয়েস্ট বিএনপির সভাপতি হাজি এম এ সেলিম, সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন, বিএনপির সভাপতি মোস্তাক আহমেদ, এনফিল্ড বিএনপির সভাপতি হেলাল উদ্দিন, সেন্ট্রাল লন্ডন বিএনপির সভাপতি আব্দুস সামাদ, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমেদ, বিএনপি নেতা সাবু নেওয়াজ, আব্দুল মালিক কুটি, সৈয়দ জিল্লুল হক, মাওলানা শামিম,মাসুক,ফয়সল আহমেদ,  এম এ কুদ্দুস, কদর উদ্দিন, সৈয়দ শামিম হোসাইন, এমরুল হক, সৈয়দ শাকেরুজ্জামান, শরিফ উদ্দিন ভুঁইয়া বাবু, জাহাঙ্গীর, নজরুল ইসলাম মাসুক, এডভোকেট নুরউদ্দিন আহমেদ, মাহবুব হাসান সাকিব, সৈয়দ আতাউর,  মন্সুর হোসাইন, কাওসার আহমেদ, দুলু চৌধুরী, সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নাসির আহমেদ শাহিন, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, জাসাস সভাপতি এম এ সালাম, যুবদল নেতা  মোঃ মুনিম এনাম, আফজাল হোসেন, আসাব আলী, নুরুল আলী রিপন, সোয়েদুল হাসান, মোশারফ হোসেন, সেচ্ছাসেবক সিনিয়র সহ-সভাপতি মিসবাহ বি এস চৌধুরী, কামাল উদ্দিন, জিয়াউর রহমান জিয়া, তুফায়েল আহমেদ আলম, নুরুল আমিন আকমল, জুল আফরোজ,  খাইরুল হা্মান, ইসলাম উদ্দিন, আব্দুস সাল্ম আজাদ, মোজাম্মেল হক দিপু, মোঃ ওমর গনি, পিনাক রহমান, কামরান জাকি বিল্লাহ, দিলাল আহমেদ, মইন মিয়া, মান্সুর হোসাইন, জুবের আহমেদ, সাবেক ছাত্রনেতা হাসিবুল হাসান, আমিনুল ইসলাম, আবু তাহের, শফিউল আলম মুরাদ, আবদুল কাদের নাজিম, মাহমুদুল হাসান, ইমতিয়াজ আহমেদ  তানিম, মাহবুবুর রহমান, মনির আহমেদ।

Related posts