September 22, 2018

বাংলাদেশকে ভারতের সতর্কতা!

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেছেন, কট্টরপন্থি সংগঠন আইএস তাদের শক্তি বৃদ্ধি করতে চায় বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানে। পাশাপাশি সন্ত্রাসী সংগঠন জামা’আতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) তার নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করছে ভারতে। তারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতাচ্যুত করার পরিকল্পনা করেছে- এ বিষয়ে এরই মধ্যে বাংলাদেশকে জানিয়েছে ভারত। এ অবস্থার প্রেক্ষিতে আগামী সপ্তাহে বাংলাদেশ সফরে আসছে ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এনআইএ)-এর একটি দল।

এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএনআই ও অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া।

গতকাল টাইমস অব ইন্ডিয়ায় ‘এনআইএ লাইকলি টু ভিজিট বাংলাদেশ টু ডিসকাস জেএমপি’ শীর্ষক প্রতিবেদনে রোহিত খান্না লিখেছেন, এনআইএ এরই মধ্যে বাংলাদেশকে জানিয়েছে, ক্রমবর্ধমান সংখ্যায় দাগি অপরাধীরা ভারতে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করছে। একই সঙ্গে জেএমবি কিভাবে তাদের শাখা-প্রশাখার বিস্তার ঘটাচ্ছে সে বিষয়েও বাংলাদেশকে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে এনআইএ’র এক কর্মকর্তা বলেছেন, বাংলাদেশি এজেন্সিগুলোর রাডারে ধরা পড়ার পর পরই অপরাধীরা সীমান্ত পাড়ি দেয়। বাংলাদেশে গত মাসে যখন চারজন জেএমবি সদস্যকে আটক করা হয় তখন সন্ত্রাসীদের নেটওয়ার্ক বিস্তৃত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন কর্মকর্তারা। বাংলাদেশের গোয়েন্দা শাখার কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেছেন, এসব অভিযুক্ত ব্যক্তি ঘন ঘন পাকিস্তান সফর করেছেন। এর মধ্যে ৪৮ বার পাকিস্তান গিয়েছেন ইদ্রিস আলী নামে একজন।

ওদিকে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেছেন, প্রতিবেশী বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানে শক্তি বৃদ্ধি করতে চায় মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। গুজরাটে ভারত পুলিশ বিভাগের মহাপরিচালক ও আইজিদের বার্ষিক সম্মেলনে বক্তব্য দিতে গিয়ে এ মন্তব্য করেন ভারতের রাজনাথ সিং। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএনআই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অন্যান্য অনলাইন ফোরামের মাধ্যমে তরুণদের চরমপন্থায় আকৃষ্ট হওয়ার বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন রাজনাথ সিং। গুজরাটের ভুজের কাছে র‌্যান অব কুচ-এ অনুষ্ঠিত ওই সম্মেলনে রাজনাথ বলেন, ভারতেও সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসের কর্মকাণ্ড দেখা যাচ্ছে। কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সংস্থাগুলোর সঙ্গে আরও ভালো সমন্বয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি এ সময় বলেন, ভারতের প্রতিবেশী বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানে নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে আইএস। ভারতের পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ওই সম্মেলন উদ্বোধন করেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

রাজনাথ আরও বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরে পূর্বের বছরগুলোর চেয়ে এ বছর নিরাপত্তা পরিস্থিতি অনেক ভালো ছিল। সেখানে বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রশংসাযোগ্য কাজ করে দেখিয়েছে নিরাপত্তা সংস্থাগুলো। তিনি আরও বলেন, বামপন্থি চরমপন্থায় আক্রান্ত রাজ্যগুলোর পরিস্থিতিও দ্রুত ভালোর দিকে যাচ্ছে। তবে এ অবস্থা মোকাবিলায় বহুমুখী পদক্ষেপ নিতে হবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ব্যক্তিগত আগ্রহে এ বছর নাগা সমস্যার সমাধান সম্ভব হয়েছে। ওদিকে বাংলাদেশের কাছে জেএমবির ১০০ সদস্যের একটি তালিকা তুলে দিয়েছে ভারত। এ বিষয়ে বাংলাদেশের স্পর্শকাতর জেলাগুলোর পুলিশকে সতর্ক করা হয়েছে। এই এলার্ট সম্পর্কে নিশ্চয়তা দিয়েছেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি বলেছেন, জেএমবি সদস্যদের বিষয়ে আমাদের জানিয়েছে ভারত সরকার। তাদের নিষ্ক্রিয় করতে পদক্ষেপ নিচ্ছি আমরা। বাংলাদেশে গোয়েন্দাদের সঙ্গে বৈঠকে বসার আগে এরই মধ্যে এনআইএর কর্মকর্তারা দিল্লিতে নিজেদের মধ্যে একটি বৈঠক করে নিয়েছেন। সেখানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সামনে জেএমবির পরিকল্পনার বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে।

এক কর্মকর্তা বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গের খাগড়াগড় মামলার আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে এসেছে অভিযুক্ত কয়েকজনের নাম। তারা হলো সাদিক ওরফে সুমন, শেখ হেমতুল্লাহ ওরফে সাজিদ ও নাইম। তারা বাংলাদেশি সংস্থাগুলোর রাডারের আওতায় ছিল। পুলিশ যখন তাদের খুজতে শুরু করে তখনই তারা সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে চলে যায়। জেএমবি অপরেটিভরা বগুড়া, সিলেট, রাজশাহী, কুষ্টিয়ায় ঘাঁটি গাড়ার চেষ্টা করেছিল। এনআইএ কর্মকর্তা এসপি বিক্রম খালাতে বলেন, খাগড়াগড় বিস্ফোরণ মামলায় ২৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫ জন পলাতক রয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts