November 21, 2018

‘বর্তমান সরকারের আমলে ইসলাম নিয়ে কটূক্তি হচ্ছে’

ঢাকাঃ  ধর্ম নিয়ে কটূক্তির জেরে নারায়ণগঞ্জে শিক্ষককে কানধরে উঠ-বসের ঘটনায় বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলছেন, ‘বর্তমান সরকারের আমলে ইসলাম নিয়ে কটূক্তি হচ্ছে; আবার শাস্তি দেওয়া হচ্ছে আইন আদালত উপেক্ষা করে গডফাদারের কায়দায়। ’

রবিবার বিকেলে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘মুসলামনদের প্রাণের চাইতে প্রিয় যে নবী- তাকে এই শেখ হাসিনার আমলে বারবার কটূক্তি করা হয়েছে, বারবার বিভিন্নভাবে হেয় করার চেষ্টা করা হয়েছে। এটা মানুষের হৃদয়ের কঠিনভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এটা প্রগতির লক্ষণ নয়, এটা সেক্যুলারিজম হতে পারে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আবার কোনো অন্যায়ের কারণে যে প্রচলিত আইন আছে, সেই আইনে বিচার হবে। কিন্তু গডফাদারের কায়দায় কান ধরে উঠ-বস করানো ইসলাম কখনো পছন্দ করে না। ইসলামে এটা গ্রহণীয় নয়। এর জন্য আইন আছে, তার জন্য বিচার আছে, তার জন্য আদালত আছে।’

পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষে নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে বিএনপি।

এর আগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেন রুহুল কবির রিজভী। বক্তব্যের একটি অংশ জুড়ে ছিল এক সপ্তাহ আগে ঘটে যাওয়া নারায়ণগঞ্জের প্রসঙ্গ।

ইসলাম ধর্মকে কটূক্তি করায় গত ১৩ মে পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তিকে কানধরে উঠ-বস করানো স্থানীয় এমপি সেলিম ওসমানের উপস্থিতি।

তারপর ঘটনাটি মিডিয়ায় এলে চারিদিক থেকে সমালোচনার ঝড় উঠে। এর মধ্যে স্কুলের পরিচালনা পর্ষদ শিক্ষক শ্যামলকে সাময়িক বরখাস্ত করে।পরে শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপে স্কুলের পরিচালনা পর্ষদ বাতিল করে পুনর্বহাল করা হয় ওই শিক্ষককে।

এমপি সেলিম ওসমানসহ যাদের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ উঠেছে, তাদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে একটি একটি রুলও জারি করেছে হাই কোর্ট।

সেলিম ওসমান অবশ্য বলেছেন, ফাঁসি হলেও ওই ঘটনার জন্য তিনি ক্ষমা চাইবেন না।

আইন নিজস্ব পথে চলছে না অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘আজকে আইন আইনের পথে চলছে না। জেলায় জেলায় গডফাদার তৈরি হয়েছে, তাদের হাতে আইন। আজকে জনগণকে বাধ্য করছেন, তাদেরকে মান্য করতে, আজকে জনগণকে ভয় দেখাচ্ছে, তাদেরকে মান্য করতে। কারণ জনগনের কাছে তাদের জবাবদিহিতা নেই, তারা জনগণকে থোড়াই কেয়ার করেন।’

দেশের বর্তমান অবস্থাকে সংকটজনক আখ্যায়িত করে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘আজ এদেশে কোনো মানুষের নিরাপত্তা নেই। সকল ধর্মের গুরুরা আজকে নিহত হচ্ছে। দেশের বৃহত্তম জনগোষ্ঠী মুসলমান। তাদের প্রিয় নবী যারা তাদের জীবনের থেকে তাকে বেশি ভালোবাসে, আজকে তাকে বারবার কটূক্তি করা হচ্ছে।’

ধর্মনিরপেক্ষতার নামে দেশে ধর্মহীনতা চালু হয়েছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী।

অন্যদের মধ্যে দলের যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, আবদুস সালাম আজাদ, রফিক শিকদার, শহীদুল ইসলাম বাবুল, রফিক শিকদার, তাইফুল ইসলাম টিপু, মনির খান, শাহ নেসারুল হকসহ শতাধিক নেতা-কর্মী অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

পরে দেশের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মুনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন উলামা দলের সভাপতি হাফেজ আবদুল মালেক।আরটিএনএন

Related posts