April 25, 2019

বর্তমানে কোন পথে হাঁটছেন সিমলা?

প্রথম ছবিতে অনবদ্য অভিনয় করেই জিতে নিয়েছিলেন দর্শকের মন। ঘরে চলে আসে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। বলা হচ্ছে দেশীয় চলচ্চিত্রের সুইট গার্ল নায়িকা সিমলার কথা। ক্যারিয়ারের শুরুটা তার যেভাবে জাঁকজমকভাবে হয়েছিল, সে হিসেবে ইদানীং তা অনেকটা প্রশ্নবিদ্ধ। ‘ম্যাডাম ফুলি’ খ্যাত এ নায়িকা বর্তমানে কোন পথে হাঁটছেন সে নিয়েই চলচ্চিত্রাঙ্গনের অনেকের মনে এখন জোরালো প্রশ্ন। আর এ প্রশ্ন তৈরির জন্য সিমলা নিজেই দায়ী বলে মনে করছেন অনেক নির্মাতা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তেমনই একজন বলেন, সিমলা অনেক ভালো একজন অভিনেত্রী। কিন্তু তার সাম্প্রতিক কাণ্ড দেখে অনেকেই অবাক। ফোনও খোলা পাওয়া যায় না তার। এমনকি সাম্প্রতিক সময়ে তার অভিনীত ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ নামক একটি ছবির ট্রেলর দেখার পর অনেকেই অবাক হয়েছেন। প্রশ্ন তুলেছেন- কি করছেন আসলে সিমলা। এমন একটি ছবিতে কেন অভিনয় করলেন তিনি। যে ছবিটির গল্প, সে গল্পের সাহসী উপস্থাপন আমাদের সমাজব্যবস্থার সঙ্গে যায় না, তেমন ছবিতে কেন অভিনয় করলেন তিনি!

ছবিটিতে হাঁটুর বয়সী অভিনেতা মামুনের সঙ্গে তাকে উত্তেজক দৃশ্যে পারফর্ম করতে দেখা গেছে। যা দেখে চোখ কপালেই উঠেছে সবার। কিন্তু এসব নিয়ে মোটেই চিন্তিত নন সিমলা। তার মতে, চরিত্রের প্রয়োজনে এ দৃশ্যটা করা। আর একজন অভিনেত্রী গল্পের প্রয়োজনে যে কোনো দৃশ্যে অভিনয় করতে পারে। সদ্য কৈশোর উত্তীর্ণ এক ছেলের প্রেমে পড়ে যায় ৩০ বছর বয়সী এক যুবতী। আর এভাবেই এক সময় অসম প্রেমের সূত্রপাত ঘটে এ ছবিতে। এ সম্পর্কের রেশ ধরে কিছু দৃশ্যায়ন রয়েছে। এ রকম সাহসী দৃশ্যে কলকাতা, বলিউড বা হলিউডের অভিনেত্রীরা হরহামেশাই অভিনয় করছেন।

১৯৯৯ সালে মুক্তি পেয়েছিল নায়িকা সিমলার প্রথম ছবি ‘ম্যাডাম ফুলি’। ছবিটি পরিচালনা করেন শহীদুল ইসলাম খোকন। এরপর ‘পাগলা ঘণ্টা’, ‘হাছন রাজা’, ‘গঙ্গাযাত্রা’, ‘জমিদার’, ‘হঠাৎ সেদিন’, ‘রূপগাওয়াল’, ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’সহ বেশকিছু ছবিতে তিনি অভিনয় করেন। তবে তার আগের ছবিগুলো প্রত্যেকটি ছিল গল্প ও চরিত্রনির্ভর। অনেকেই তার অভিনয় দেখে এখনও প্রশংসা করেন। তাই তার কাছে অনেকের প্রশ্ন- ক্যারিয়ারের এ পর্যায়ে চলচ্চিত্র শিল্পের শোচনীয় অবস্থা দেখে কি তিনি এমন সব ছবিতে অভিনয় করছেন। এমন প্রশ্নে উত্তরহীনই থাকছেন সিমলা। তবে এতসব খবরের মধ্যে নতুন খবর হচ্ছে গেল বছর নতুন গাড়িও কিনেছেন তিনি।

কিন্তু সে গাড়ি নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে লেখালিখি হলেও সিমলার বক্তব্য ভিন্নধর্মী। তিনি বলেন, আমার পুরনো গাড়ি বিক্রি করে নতুন গাড়ি কিনেছি। এটা নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবরের শিরোনাম হবো তা বুঝিনি। এদিকে সিমলার হাতে বর্তমানে আরও দুটি ছবি রয়েছে। সেগুলো হলো আরশী প্রোডাকশনের ব্যানারে রাশিদ পলাশ নির্দেশিত ‘নাইওর’ ও আশিকুর রহমান আশিক নির্দেশিত ‘ম্যাডাম ফুলি টু’। এ ছবি দুটির মধ্যে ‘নাইওর’ ছবিতে আনিসুর রহমান মিলনের বিপরীতে অভিনয় করেছেন সিমলা। সবকিছু মিলে গত বছরটা তেমন ভালো না কাটলেও বছরের মাঝামাঝি রুবেল আনুশ পরিচালিত ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ ছবিটি নিয়ে বেশ সমালোচনা শুনতে হয়েছে তাকে।

তবে এসব কথায় কান না দিয়ে নিজের ইচ্ছামাফিক পথেই চলছেন সিমলা। যে পথকে একরকমের উদ্দেশ্যহীন এবং নানা প্রশ্নে ভরা ভুল পথ হিসাবেই আখ্যায়িত করছেন চলচ্চিত্রের বোদ্ধাজনেরা। সিমলার মতো দাপুটে একজন অভিনেত্রীর বোধহয় বিষয়টি গভীরভাবে ভেবে দেখা দরকার। সিমলা কি ভেবে দেখবেন?

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts