November 18, 2018

বরিশালে স্বরাস্ট্র মন্ত্রীর কাছে সুন্দরবনের ১২ জল ও বনদস্যু বিপুল পরিমান অস্ত্র ও গোলা-বারুদ নিয়ে আতœসমর্পন

b-rab-2v

বরিশাল থেকে সাইয়েদ কাজল ঃস্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন যারা সন্ত্রাসীদের লালন পালন করছেন এবং মদদ যোগাচ্ছেন তারা কেহই রেহাই পাবেন না।আমরা তাদের কে ছাড় দেব না ।স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আরো বলেন সুন্দরবন বঙোপসাগর ঘিরে অমিত সম্ভাবনাময় রয়েছে । সুন্দর বন কে জলদস্যূ মুক্ত করতে সরকারে সব বাহিনী এক যোগে কাজ করছে ।অচিরে ই এ সব বাহিনী ধংস হয়ে যাবে।
আজ সোমবার বরিশাল নগরীর রুপাতলী রোডস্থ র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ান র‌্যাব (৮) এর কার্যলয়ে স্বরাস্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল (এমপি) ও র‌্যাবের নিকট সুন্দরবনের জল দস্যু ও বনদস্যু ডাকাত “খোকাবাবু বাহিনী” প্রধান কবিরুল ইসলাম ওরফে খোকাবাবু’ সহ ১২জন সক্রিয় সদস্য বিপুল পরিমান অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিয়ে আত্বসমর্পন করা অনুষ্টানে মন্ত্রী এ কথা বলেন । সকাল ১১টায় আত্বসমর্পন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি স্বরাস্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন এখনো যারা আত্বসমর্পন করেননি আমরা তাদেরকে বাচঁতে দেব না।এদেরকে যারা লালন পালন করে মদদ দিচ্ছেন সে যত বড়ই মুখোশধারী ব্যাক্তি হোক তারাও রেহাই পাবেন না।আমরা তাদেরকে ছাড় দেবনা। আজ যারা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে আতœসমর্পন করেছেন তাদের আইনগত সমস্যা মিটিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করার সুযোগ তৈরী করে দেব। আপনারা সমাজের বোঝা হবেন না। আপনারা হবেন সমাজের সহায়ক। আমরা তার জন্য কাজ করছি। তিনি আরো বলেন আমাদের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাছিনার সরকার পার্বত্য চট্রগ্রামের শাšিত বাহিনীকেও ঘড়ে ফিরিয়ে এনেছেন।
জলদস্যু ও বনদস্যুদের উদ্দেশ্য বলেন এখনো যারা বাকি আছেন যদি শিঘ্রই ধরা না দেন তাহলে বাচঁতে পারবেন না।আমরা নতুন করে আবার অভিযান শুরু করবো।
অনুষ্ঠানে বরগুনা মৎস ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা জানান সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আজকে সহ মোট ৬ দফায় ৭ দস্যু বাহিনী ৬০ জন সদস্য সহ ১৩৯ টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং ৭ হাজার ৫ শ ৩১ রাউন্ড গুলি সহ আতœসর্মপন করেছে ফলে এখন সুন্দর বন প্রায় জল দস্যূ মুক্ত হয়েছে। আতœসর্মপনকারী জলদস্যু বাহিনীর প্রধান খোকা বাবু র প্রধান কবিরুল ইসলাম খোকা বাবু বলেন এখনো যারা দস্যুতায় লিপ্ত তাদের কে বলি আপনারা এ পথ এখনি ছেড়ে দিন। স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুন।
নিজেদের অতীতের ভূল বুঝতে পেরে আমরা স্বভাবিক জীবনে ফিরতে পেরে সরকার এবং র‌্যাব কে ধন্যবাদ জানাই ।
বরিশাল র‌্যাব (৮) এর অধিনায়ক লেঃ কর্নেল, মোঃ ইফতেখারুল মাবুদ, পিএসসি,এর সভাপতিত্বে এসময় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বরিশাল -১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, অতিরিক্ত আইজিপি ও র‌্যাব পরিচালক বেনজীর আহমেদ বিপিএম। মঞ্চে আরো উপস্থিত ছিলেন বরিশাল সদর সংসদ সদস্য জেবুন্নেছা আফরোজ, বরিশাল -২ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড, তালুকদার মোঃ ইউনুস, বরিশাল জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খান আলতাফ হোসেন ভুলু, বরিশাল রেঞ্জ ডি.আই.জি শেখ মোহাম্মদ মারুফ হাসান সহ র‌্যাবের অন্যান্য কর্মকর্তা।
পরে এক এক করে স্বরাস্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল,র‌্যাব ডিজি বেনজীর আহমেদ ও স্থানীয় সরকার ও পল্লি উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রালয়ের সভাপতি আলহাজ আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ এমপি সহ উপস্থিত নেতৃবৃন্দদের সামনে অস্ত্র জমা দেন খোকা বাহিনীর প্রধান,মোঃ কবিরুল ইসলাম ওরফে খোকা বাবু (৩৩),পিতা মোঃ নজরুল গাজী,(২) মোঃ আমিনুর ইসলাম(৩২),পিতা মোঃ কুদ্দুস মোল্ল,(৩)মোঃ শাহজাহান গাজী(৩০),পিতা শাখায়েত গাজী,(৪) মোঃ আব্দুল আজিজ(৪৪),পিতা মৃত্যু মানদার গাজী,(৫)মোঃ মিজানুর রহমান(৩৬),পিতা মোঃ কুদ্দুস মোল্লা,(৬)মোঃ রবিউল ইসলাম(২৫),পিতা মৃত্যু মোফাজ্জল গাজী,(৭)মোঃ ওসমান গনী(৩৩),পিতামৃত্যু জব্বার মোল্লা,(৮)মোঃ রফিকুল গাজী(৩৩)মোঃ মোফাজ্জল গাজী,(৯,মোঃ ইয়াছিন আলী গাজী(২৫),পিতা মোঃ কাউছার গাজী,(১০)মোঃ মহিদুল ইসলাম(৩৩)পিতা মোবারক আলী,(১১)মোঃ মজিবর রহমান(৩৮)পিতা মৃত্যু মোঃ আকবর আলী,(১২)মোঃ কালাম(৩৫) পিতা মৃত্যু ইয়ার আলী।এরা সকলেই সাতক্ষিরা সদর থানার বাসিন্দা।
র‌্যাবজানায় গত ২৫ই নভেম্বর হতে সুন্দর বনের শরন খোলা চাঁদপাই রেঞ্জের জলদস্যু ও বনদস্যুধরার অভিযান শুরু করে অভিযানচলা কালে এক পর্যায়ে খোকাবাবুর বাহিনী কোনঠাসা হয়ে পড়লে অভিযানিক দলের কমান্ডারের সাথে যোগাযোগ করে মৌখালী খালের ভিতর গহীন জঙ্গলে তাদের অবস্থান নিশ্চিত করে । এবং তারা তার বাহিনী নিয়ে আত্বসমর্পন করার অঙ্গিকার করে জঙ্গলের ভিতরে বসে হাত উচিয়ে সারেন্ডার করে। এসময় খোকাবাবু বাহিনীর কাছে রক্ষিত ৬টি বিদেশী এক নালা বন্দুক,৪টি বিদেশী দোনালা বন্দুক,১টি.২২বোর বিদেশী এয়ার রাইফেল,৬টিসাটারগান,২টি এয়ারগান,২টি ওয়ান সুটারগান,এবং ১টি বিদেশী কাটা রাইফেল সহ ১০০৩ রাউন্ড বিভিন্ন গুলি উদ্বার করা হয়।র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ান র‌্যাব (৮) গত ৩১ইমে তারিখে সুন্দরবনের মাস্টার বাহিনীর ১০জন জলদস্যু সহ ৫২টি দেশী-বিদেশী আগ্নে অস্ত্র সহ৪৫০০ গোলা বারুদ,১৪ইজুলাই মজনু ওইলিয়াস বাহিনীর ১১জন জলদস্যু সহ ২৫টি দেশী- বিদেশী অস্ত্র ও১০২০রাউন্ড গুলি উদ্বার করা হয়। ৭ই সেপ্টেম্বর আলম ও শান্ত বাহিনী ১৪জন জলদস্যু ২০টি আগ্নে দেশী-বিদেশী অস্ত্র ও ১০০৮ রাউন্ড গুলি উদ্বার করা হয়। গত ১৯ই অক্টোবর২০১৬ইং ২০টি দেশী-বিদেশী অস্ত্র সহ ৫৯৬ রাউন্ড গুলি জমা দিয়ে র‌্যাবে কাছে আত্বসমর্পন করে ৬ জলদস্যু ও বনদস্যু বাহিনীর ৪৮জন সদস্য। এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্বার করা হয় ১১৭টি অস্ত্র ও ৬৫২৮ রাউন্ড গুলি।

Related posts