September 21, 2018

বন্ধ হতে পারে ‘গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স’

225

ঢাকা:

হয়রানির শিকার ৩১৩ জন গ্রাহকের বীমা দাবি পরিশোধে ‘গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স’-কে আরও ১০ দিন সময় দিয়েছে ‘বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ’ (আইডিআরএ)। নতুন এ সময়সীমা অনুযায়ী চলতি ২০ জানুয়ারির মধ্যে গোল্ডেন কর্তৃপক্ষকে অভিযোগকারী এসব গ্রাহকের বীমা দাবি সুদসহ পরিশোধ করতে হবে। আর এ সুদের হার হচ্ছে ব্যাংক ঋণের প্রচলিত সুদের হার থেকে ৫ শতাংশ বেশি। বর্ধিত এ সময়ের মধ্যে বীমা দাবি পরিশোধে ব্যর্থ হলে কিংবা গড়িমসি করলে গোল্ডেন লাইফের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবে আইডিআরএ।

গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স-এর ব্যবসার নিবন্ধন সনদ বাতিল অথবা প্রতিষ্ঠানটিতে প্রশাসক নিয়োগ দিতে পারে নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ’ (আইডিআরএ)। বীমা গ্রাহকদের দাবি পরিশোধ না করায় বেসরকারি এ জীবন বীমা কোম্পানিটির বিরুদ্ধে আইডিআরএ এমন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার পরিকল্পনা করছে।

আইডিআরএ সূত্র জানায়, গ্রাহকের বীমা দাবি পরিশোধে দীর্ঘদিন ধরে নানা টালবাহানা করছে গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স। ফলে হয়রানির শিকার এ পর্যন্ত ৩১৩জন গ্রাহক বীমা দাবি আদায়ের জন্য আইডিআরএ’র কাছে অভিযোগ করেছেন। গ্রাহকদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইডিআরএ গত ১০ ডিসেম্বর গোল্ডেন লাইফ কর্তৃপক্ষকে শুনানীতে ডাকে। শুনানী শেষে ওই দিন সকল বীমা গ্রাহকের দাবি পরিশোধের জন্য চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় বেঁধে দেওয়া হয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে গ্রাহকদের বীমা দাবি পরিশোধ না করায় গোল্ডেন লাইফ-কে গত মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) তথ্য-প্রমাণসহ দ্বিতীয় দফা শুনানীতে ডাকা হয়।

আইডিআরএ সূত্রমতে, শুনানীতে অংশ নিয়ে গোল্ডেন লাইফের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার প্রামানিক জানান যে, ৩১৩জন গ্রাহকের মধ্যে ৯৩জন গ্রাহকের দাবি পরিশোধ করা হয়েছে। দাবি পরিশোধের লক্ষ্যে ১৬২ জনের পলিসির নির্বাহী রশিদ পাঠানো হয়েছে ও নামে নামে চেক প্রস্তুত করা হয়েছে। ব্যাংক হিসাব না পাওয়ার কারণে তাদের দাবি পরিশোধ করা হয়নি।

এ ছাড়া বাকি গ্রাহকদের মধ্যে ৫৬ জনের পাসবুক ও মূল পিআরসহ (প্রিমিয়াম পরিশোধের রশিদ) আবেদন পাওয়া যায়নি। ১ জন গ্রাহকের এক কিস্তির টাকা জমা আছে। আর একজন গ্রাহকের পলিসি নম্বর ভুল রয়েছে। যে কারণে এসব গ্রাহকের দাবি পরিশোধে যাথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি, বলে সুশান্ত কুমার প্রামানিক জানান।

সূত্র জানায়, গোল্ডেন লাইফের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার এসব বক্তব্য গ্রহণ করেনি আইডিআরএ। কোম্পানির বক্তব্যের জবাবে গ্রাহকের দাবি পরিশোধে নতুন করে তাদের আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে গোল্ডেন লাইফ-কে আগামী ২০ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১১টার মধ্যে সকল গ্রাহকের দাবির টাকা পরিশোধে নতুন করে সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

গ্রাহকদের বীমা দাবি পরিশোধের বিষয়ে জানতে চাইলে গোল্ডেন লাইফের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার প্রামানিক বলেন, ‘গ্রাহকের বীমা দাবির টাকা পরিশোধের প্রক্রিয়া চলছে। ২০ জানুয়ারি মধ্যে সকল গ্রাহকের দাবি পরিশোধ করে দেওয়া হবে। একজন গ্রাহকেরও দাবির টাকা বকেয়া থাকবে না।’

‘বর্ধিত সময়ের মধ্যে গোল্ডেন লাইফ গ্রাহকদের বীমা দাবি পরিশোধ না করলে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে’ -জানতে চাইলে আইডিআরএ’র সদস্য মো. জুবের আহমেদ খান বলেন, ‘গোল্ডেন লাইফকে সুদসহ গ্রাহকের বীমা দাবির টাকা পরিশোধ করতে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে। ওই সময়ের মধ্যেই সকল গ্রাহকের দাবির টাকা পরিশোধ করতে হবে। যদি গ্রাহকের দাবি পরিশোধ না করা হয় তবে বীমা আইনের ১০ ধারা অনুযায়ী কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

‘গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষায় গোল্ডেন লাইফে আইডিআরএ’র পক্ষ থেকে প্রশাসক নিয়োগ কিংবা প্রয়োজনে কোম্পানির লাইসেন্সও বাতিল করা হতে পারে’ বলে জানান তিনি।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts