November 19, 2018

বঙ্গপোসাগরে ট্রলার ডুবি ৯৮ জেলে নিখোজ

সাইয়েদ কাজল বরিশাল থেকেঃ  বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নাদার প্রভাব্রে উত্তাল সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া ৬ টি ট্রলার সহ ৯৮ জন জেলে নিখোজ রয়েছে বলে বরগুনা জেলা মৎস সমিতি ও ট্রলার মালিক সমিতি সুত্রে জানা গেছে। ঐ সূত্র জানায় শনিবার সকাল থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত বয়ে যাওয়া ঝরো হাওয়ায় সমুদ্রে থাকা ৬ টি ট্রলার নিখোজ হয় । ট্রলারে ৯৮ জন জেলে ছিলো । ট্রলার সহ এদের কোন খোজ পাওয়া যাচ্ছে না । নিখোজ হওয়া ট্রলার গুলো হলো এফ ভি ভানু , এফ ভি আসমা, এফভি আবদুল্লাহ, এফ ভি মেহেরিন ,এফ ভি মুনা, এফ ভি মায়ের দোয়া, এফ ভি তামান্না,এফ ভি মো¯তফা ।

ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা চৌধুরী জানান জেলেরা মাছ ধরার জন্য২০/২৫ টি ট্রলার নিয়ে সাগরে যাচ্ছিল। এ সময়ে সাগরে হঠাৎ ঝরো হাওয়া শুরু হলে অন্য সব ট্রলারগুলো ঘাটে আসতে পারলো ও ঐ ৬ টি ট্রলার গভীর সমুদ্রে নিখোজ হয়। তাদের উদ্বারের সর্বাতœক চেষ্টা চলছে এবং কোষ্টগার্ড পশ্চিম জোন কে জানাানে হয়েছে। তারা নিখোজ জেলেদের উদ্বারের জন্য সন্ধ্যায় সাগরে দিকে রওনা দিয়েছে ।

¯ত্রী হত্যা র দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড ।
বরিশাল ঃ বরিশালে যৌতুকের জন্য স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামী কে ফাঁসীর আদেশ দিয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল আদালত । আজ রবিবার সকালে এ আদালতের বিচারক মোঃ আবু তাহের এ রায় প্রদান করেন ।
আদালত সূত্রে জান গেছে বরিশাল সদরউপজেলার চরমোনাই ইউনিয়নের আমিন হাওলাদারের কন্যা সাথী (৩০) এর সাথে মেহেন্দিগনজের লতা চাপালী গ্রামের সুমনে র সাথে ২০০৪ সালে বিয়ে হয় । বিয়ের পর থেকে ই আমিন সাথী কে যৌতুকের জন্য নির্যতন করত । ২০০৬ সালের ২০ শে জুন সাথীকে বাবার কাছ থেকে ৭০ হাজার টাকা আনার জন্য চাপ প্রয়োগ করলে সাথী তা অস্বীকার করে। রাতে এ টাকার জন্য নির্যাতন করে ফলে ঔ রাতে ই মারা যায় ।২১ শে জুন মেহেন্দিগনজ থানায় সাথীর বাবা মোঃ আমিন সাথীর স্বামী সুমন কে এবং তার মা ও দুই ভাই কে আসামী করে একটি হত্যা মামলা করে । থানা পুলিশ ঘটনা তদন্ত শেষে অভিযুক্তদের বিরদ্বে ৩ মাস তদন্ত শেষে চার্জশীট প্রদান করেন। পরবর্তীতে মামলা টি বরিশাল নারী ও শিশু নির্যতন দমন ট্রাইবুনালে এলে আদালত ১৯ জনের স্বাক্ষী গ্রহন করে আজ রবিার স্বামী সুমন কে মৃত’্য দন্ড এবং ১ লাখ টাকা জরিমান করেন ।

 

Related posts