November 21, 2018

বগুড়ার শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহি নবাববাড়ি বিক্রি!

তাহানুল মারুফ,বগুড়াঃ  বগুড়ার শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহি নবাববাড়ি (নবাব প্যালেস) বিক্রি হয়ে গেছে। বগুড়ার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ঐতিহ্য সংরনের উদ্যোগ নিলেও শেষ পর্যন্ত তা রা হলো না। বগুড়ার তিনজন প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ১ একর ৫৫ শতক জমি ও স্থাপনা  কিনে নিয়েছেন ২৭ কোটি ৪৫ লাখ ৭ হাজার টাকায়। এই সম্পত্তি বিক্রি করেছেন অবিভক্ত পাকিস্তানের সাবেক প্রধান মন্ত্রী মোহাম্মাদ আলী বগুড়ার দুই পুত্র সৈয়দ হামদে আলী চৌধুরী ও সৈয়দ হাম্মাদ আলী চৌধুরী। বগুড়া সদর সাবরেজিষ্ট্রি অফিসে গত ১৭ এপ্রিল দলিল সম্পাদন হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বগুড়া শহরের সূত্রাপুর মৌজার ১৭০৮ নং দাগে অবস্থিত নবাবাড়ীর মোট সম্পত্তির পরিমাণ তিন একর ৭৫ শতক বা প্রায় ১০ বিঘা। এর  বেশীর ভাগ সম্পত্তি অনেক আগেই বিক্রি হয়ে গেছে। এই সম্পত্তির উপর ক্রেতারা গড়ে তুলেছেন আল আমিন কমপ্লেক্স টিএমএসএস মহিলা মার্কেট, শরীফ উদ্দিন সুপার মার্কেট ও বহুতল বাণিজ্যিক ভবন  রানার প্লাজা।

সর্বশেষ এক একর ৫৮  শতক  জমির উপর ছিল মরহুম মোহাম্মাদ আলী ও তার স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যদের কবর সহ  নবাবাড়ী। ১৮৮৪ সালে এই বাড়ী নির্মাণ করা হয়েছে। সরকারী মূল্য হিসেবে স্থাপনা সহ এই বাড়ী বিক্রি হয়েছে ২৭ কোটি ৪৫ লাখ ৭ হাজার টাকায়। এটা কিনেছেন যৌথভাবে বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিনের ছেলে ও বগুড়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মাছুদুর রহমান মিলন, ব্যবসায়ী শফিকুল হাসান জুয়েল ও আব্দুল গফুর।

বগুড়া সদর উপজেলা সাব রেজিষ্টার এসএম সোহেল রানা দলিল সম্পাদনের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, গত ১৫ এপ্রিল বিক্রেতা মরহুম মোহাম্মাদ আলীর দুই পুত্র সৈয়দ হামদে আলী চৌধুরী ও সৈয়দ হাম্মাদ আলী চৌধুরী দলিলে স্বার করেছেন এবং ১৭ এপ্রিল দলিল রেজিষ্ট্রি  (দলিল নং -৪৩১৮ ) সম্পন্ন হয়েছে।

এর ফলে বগুড়ার বহু বছরের ঐতিহ্য বিলীন হয়ে গেল। প্রথমে কারুপল্লী ধ্বংস করে সেখানে বহুতল ভন নির্মাণের পর এবার নবাব প্যালেস পুরোটায় চলে গেল ব্যবসায়ীদের দখলে।

অচিরেই হয়ত ঐতিহ্যবাহী এই জমিতে গড়ে উঠবে আরও অনেক বড় বিপনী বিতান।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/১৮ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts