September 26, 2018

বই উৎসব উদযাপনের প্রহর গুনছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা!

অজিত কুমার দাশ হিমু,কক্সবাজারঃ  নতুন বছরের শুরুতেই সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজারেও বই উৎসব উদযাপনের সকল প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। উৎসব উদযাপনের প্রহর গুনছে কক্সবাজারের কোমলমতি ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। মাধ্যমিক ও প্রাথমিকের সব বই ইতিমধ্যে সকল বিদ্যালয়ে পৌছে গেছে এমনটি জানালেন শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা। জেলার বিদ্যালয়গুলোতে বার্ষিক পরীক্ষা শেষে ফলাফলও ঘোষিত ইতিমধ্যে হয়েছে। এখন নতুন বইয়ের ঘ্রন নেওয়ার অপেক্ষায় শিক্ষার্থীরা। আর বছরের শুরুর দিন শুক্রবার হওয়ায় বই উৎসব উদযাপন করা হবে পরদিন শনিবার। অপরদিকে বই বিতরণে      প্রস্তুত জেলার সকল বিদ্যালয়।

শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা বলেন, কক্সবাজারের প্রায় সাড়ে ৫ লাখ শিক্ষার্থীর জন্য সাড়ে ৫৯ লাখ নতুন বই এসেছে। বিগত বছরগুলোর মতো এবারও উৎসবমুখর পরিবেশে স্কুলে স্কুলে বই উৎসব হবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতাও প্রত্যাশা করেন তারা।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এবিএম ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, জেলায় ২০১৬ বছরের জন্য ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৫০৬ জন শিক্ষার্থীদের জন্য ১৮ লাখ ২৮ হাজার ৩৫ টি বইয়ের চাহিদা দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ৩ লাখ ১৩ হাজার ৩৫০ টি, রামু উপজেলাতে ২লাখ ১৪ হাজার ৫০০ টি, চকরিয়াতে ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৭০০টি, পেকুয়াতে ১ লাখ ৫৭ হাজার ৮০০ টি, কুতুবদিয়া উপজেলায় ১ লাখ ১৯ হাজার ৪০০টি, মহেশখালীতে ২ লাখ ৮৫ হাজার, উখিয়াতে ১ লাখ ৮৩ হাজার ৩০০টি, টেকনাফে ১ লাখ ৭০ হাজার ৯৮৫ টি নতুন বইয়ের চাহিদা রয়েছে। তবে এর মধ্যে পুরু জেলাতে ৯ লাখ ৫৫ হাজার ৪১৬ টি বই এসেছে। তাছাড়া জেলায় ৩৮৪ টি সরকারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ মোট ৯০৭ টি বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে নতুন বইয়ের চাহিদা ৪১ লাখ ১৯ হাজার ৪৭১ টি, প্রায় ২ লাখ শিক্ষার্থীর মাঝে বই বিতরণ করার লক্ষ্যমাত্রা আছে তাদের।
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন, বর্তমান সরকার সফলভাবে প্রতি বছর শিক্ষার্থীদের হাতে সম্পূর্ণ বিনামুল্যে বই তুলে দিয়ে সারা বিশ্বে নজির সৃষ্টি করেছে। এর ফলে দেশে শিক্ষার হার বেড়েছে, মানুষ লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ বেড়েছে।

অন্যদিকে নতুন বছরের শুরুতেই এক সাথে নতুন বই হাতে পেলে শিক্ষার্থীরা যেমন খুশি হবে, অন্যদিকে দুশ্চিন্তামুক্ত হবে অভিভাবকরা।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানরা বলছেন, বছরের শুরুতেই বই তুলে দিতে পারায় ঝরে পড়া রোধের পাশাপাশি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাড়ছে। শিক্ষা কর্মকর্তারা বলছেন, জেলা ও উপজেলা সদরসহ প্রতিটি বিদ্যালয়ে বই উৎসব পালনে সব রকম ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts