December 19, 2018

ফের ধাওয়া খেলো ‘আসল বিএনপি’

139

নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মহড়া দিতে গিয়ে আবারও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ধাওয়া খেয়েছে কথিত ‘আসল বিএনপি’র নেতাকর্মীরা। এসময় তাদের সঙ্গে নিয়ে আসা পিকআপ ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এতে ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা পিকআপ ভ্যানের আগুন নিভিয়ে ফেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল বিকাল পৌনে চারটার দিকে ‘আসল বিএনপি’র মুখপাত্র কামরুল হাসান নাসিমের পূর্বঘোষিত কর্মসূচি বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ‘জাতীয়তাবাদী জনতার মঞ্চ’ স্থাপন করতে যান তার ৪০-৫০ জন অনুসারী। এসময় তারা রাজধানীর নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে মিছিল নিয়ে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দিকে আসতে থাকেন।

তবে মিছিলে কামরুল হাসান নাসিম সশরীরে উপস্থিত ছিলেন না। তার অনুসারীরা জিয়াউর রহমানের নামে স্লোগান দিতে দিতে মিছিল নিয়ে আনন্দ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে দিয়ে এগিয়ে যায়। তাদের সঙ্গে থাকা ব্যানারে লেখা ছিল ‘বিপ্লবের মহড়া’। ওইসময় বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বিপরীত দিক থেকে লাঠিসোটা নিয়ে মিছিলকারীদের ধাওয়া দেন। এতে ‘আসল বিএনপি’র লোকজন দৌড়ে আশপাশের অলিগলিতে পালিয়ে যায়। প্রথম দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করে। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পুলিশ ও স্থানীয়রা পিকআপ ভ্যানের আগুন নেভায়।

এসময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ, ছাত্রদলের সহ-সভাপতি তারেক-উজ-জামান, নাজমুল হাসান, আবু আল আতিক হাসান মিন্টু, মাসুদ পারভেজ, মনিরুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মফিজুর রহমান আশিকসহ বেশ কয়েকজন ছাত্র নেতা দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান করছিলেন। এদিকে সাউন্ড সিস্টেমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আওলাদ হোসেন বলেন, মামুন নামে একজন শিল্পী বেলা ১২টার দিকে কনসার্টের কথা বলে সাউন্ড সিস্টেম ভাড়া নেয়। এর আগে গত ২রা জানুয়ারি আসল বিএনপির লোকজন নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে মহড়া দিতে গিয়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের হাতে বেধড়ক পিটুনি খেয়েছিল।

টোকাই দিয়ে বিএনপি কার্যালয় দখল করতে চায় সরকার: রিজভী

ওদিকে টোকাই দিয়ে সরকার বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দখলের চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। তিনি বলেছেন, বস্তির কিছু লোক নিয়ে এসে মিছিল করিয়ে সরকার প্রমাণ করতে চায় এরা বিএনপির একটি অংশ। সরকার বিএনপিকে শান্তি ও স্বস্তিতে মিছিল মিটিং করতে দেয় না। অথচ সরকার গোয়েন্দাদের দিয়ে কিছু নিকৃষ্ট টোকাই ধরে এনে নিরাপত্তা দিয়ে মিছিল করায়। এতেই বুঝা যায় কারা এর সঙ্গে জড়িত। বিকালে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত তাৎক্ষণিক এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রিজভী আহমেদ বলেন, সরকার জনবিছিন্ন হয়ে একর পর এক নাটক ও ষড়যন্ত্র করছে। গত কয়েক দিন আগেও কিছু রাস্তার টোকাই দিয়ে পার্টি অফিসে হামলা করেছে।

এর আগেও অনেককে দিয়ে বিএনপি ভাঙার চেষ্টা করছে। কিছুতেই কিছু হয় নাই। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াই একমাত্র ধারক বাহক। তার নেতৃত্বেই বিএনপি পরিচালিত হচ্ছে এবং হবে। তিনি বলেন, সরকারের হীনমন্যতা  থেকেই এসব নিকৃষ্ট কাজ করছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সরকারের এসব হীনমন্য কর্মকাণ্ড দেখে লোকজন ছিঃ ছিঃ করছে। সরকারকে উদ্দেশে রিজভী আহমেদ বলেন,  আপনারা যদি এমন নিকৃষ্ট কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখেন জনগণকে সব সময়ে থামিয়ে রাখা যাবে না। জনগণ বিচার হচ্ছে ভয়ঙ্কর ও কঠিন। এতে মেরুদণ্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবেন না। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক কবির মুরাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts