September 24, 2018

ফাঁসি কার্যকরঃ হরতালসহ ৩ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা!


ঢাকাঃ  জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে ‘পরিকল্পিতভাবে সরকার কর্তৃক ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলিয়ে হত্যা’ করার নিন্দা জানিয়ে বৃহস্পতিবার হরতালসহ ৩ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি।

বুধবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতির মাধ্যমে জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর জনাব মকবুল আহমাদ এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর আরোকিছু নিউজ…………

মাওলানা নিজামীর জীবনের নানা অধ্যায়
মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী একজন ইসলামি রাজনীতিবিদ। তিনি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ইসলামী রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর আমির।

মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর জন্ম ১৯৪৩ সালের ৩১ মার্চ পাবনা জেলার সাঁথিয়া উপজেলার মনমতপুর গ্রামে। তার পিতা মরহুম লুৎফর রহমান খান। তার শিক্ষা জীবনের বড় অংশই কেটেছে মাদ্রাসায়। শুরুতে বাংলা মাধ্যমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়েছিলেন বছর খানেক।

এরপর থেকে স্নাতক পর্যন্তই তিনি মাদ্রাসায় পড়েছেন। ষাট এর দশকের শেষে কামিল পাশের পর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে মাস্টার্স করেন।

মাওলানা নিজামীর ছেলে নকিবুর রহমান জানিয়েছেন, তার বাবার শৈশব-কৈশোর কেটেছে পাবনার সাথিয়ায়।

জেনারেল এরশাদের সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময় জামায়াতে ইসলামী সাথিয়াসহ পাবনা অঞ্চলে আবারও সংগঠনকে শক্তিশালী করার চেষ্টা চালায়।

এরই মধ্যে মাওলানা নিজামী জামায়াতের কেন্দ্রীয় কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল হলেও সাথিয়া-বেড়া এলাকায় মাঠপর্যায়ে তার সরাসরি কর্মকাণ্ড শুরু হয় এরশাদ সরকারের পতনের পর ১৯৯১ সালের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে।

সাথিয়ায় যে ইউনিয়নে তার বাড়ি , সেই ধোপাদহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন আহমেদ খান বলছিলেন, তিনি নিজেও সেই নির্বাচনকে ঘিরেই জানতে পারেন নিজামী সম্পর্কে।

৯১ সালে নিজামী সাথিয়া এবং বেড়া এলাকা নিয়ে পাবনা-১ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর ২০০১ সালে জামায়াত বিএনপির সাথে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করলে একই আসনে নির্বাচনে জয়ী হয়ে সেই জোট সরকারে নিজামী প্রথমে কৃষি এবং পরে শিল্প মন্ত্রী হয়েছিলেন।

তিনি ষাটের দশকে মাদ্রাসার ছাত্র থাকার সময়ই জামায়াতে ইসলামীর তৎকালীন ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘের সাথে সম্পৃক্ত হয়েছিলেন।

৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত নিজামী ছাত্র সংঘের সভাপতি ছিলেন।

এরপর নিজামী ১৯৭১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর জামায়াতে ইসলামীতে যোগদান করেন। তিনি পর্যায়ক্রমে ঢাকা মহানগরীর আমীর, এ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল, সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০০ সালের ১৯ নবেম্বর জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের আমীর নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি এই মহান দায়িত্বে অধিষ্ঠিত রয়েছেন।

নকিবুর রহমান বলেছেন, তার বাবা ধাপে ধাপে মূল দল জামায়াতের আমীর হয়েছেন।

অধ্যাপক গোলাম আযম জামায়াতের আমীরের পদ থেকে অবসর নেয়ার পর ২০০০ সালে ঐ পদে নির্বাচিত হন মতিউর রহমান নিজামী। সেই থেকে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি জামায়াতের আমীর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তার বিরুদ্ধে বিচারে বড় অভিযোগ এসেছে, ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ছাত্র সংঘের নেতা হিসেবে আল বদর বাহিনী গঠন করেছিলেন।

আল বদর বাহিনীর বিরুদ্ধেই বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ গুরুতর মানবতাবিরোধী অপরাধগুলো সংঘটিত করার অভিযোগ রয়েছে।

তবে মাওলানা নিজামী এবং তার দল সবসময় কোনো হত্যাযজ্ঞে জড়িত থাকার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন।

মুক্তিযুদ্ধের শেষদিকে জামায়াত এবং ছাত্র-সংঘের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের অনেকে দেশ ছেড়ে পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তাদের মধ্যে মতিউর রহমান নিজামীও ছিলেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে জামায়াত নতুনভাবে সাংগঠনিক যে ভিত্তি দাঁড় করিয়েছে, সেজন্য মাওলানা নিজামীর অবদানকে গুরুত্বের সাথে দেখা হয়।

মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে ৭১এর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার কার্যক্রম চলেছে ২০১২ সাল থেকে। এতে তাকে মৃত্যদণ্ড দেয়া হয়।

সর্বশেষ তার রিভিউ আবেদন খারিজ হয়ে গেলে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা ১মিনিটে তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

উৎসঃ   আরটিএনএন

Related posts