September 23, 2018

প্রেম করায় মাথা ন্যাড়া, গলায় জুতার মালা

403
১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে পুরো পৃথিবীর মানুষ মেতেছিলেন প্রেমের জোয়ারে। ভালোবাসার মানুষটিকে মনের কথা জানাতে কত জনে কত কিছুই না করেছেন! কিন্তু একেবারে বিপরীত একটি চিত্র দেখা গেছে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বসিরহাট মহকুমার সন্দেশখালীর বেড়মজুর দুই নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঝুপখালী গ্রামে।

প্রেম করার ‘অপরাধে’ ভালোবাসা দিবসেই ভয়াবহ নির্মমতার শিকার হতে হয়েছে দুই নারী-পুরুষকে। ভালোবাসার ডাকে সাড়া দেওয়ায় মাথা ন্যাড়া করে গলায় জুতার মালা পরিয়ে মুখে চুনকালি লাগিয়ে তাদের পুরো গ্রাম ঘুরিয়েছে গ্রামবাসী।

২০০৯ সালে ঘূর্ণিঝড় আয়লার পর নিজ গ্রাম ছেড়ে কাজের সন্ধানে ভীনদেশে পাড়ি জমিয়েছিলেন পরিমল সরদার। একই পথের পথিক হয়েছিলেন বিদেশ সর্দার। মেয়ে অঞ্জলি সরদারকে নিয়ে কাজ করতে গিয়েছিলেন ভীনদেশে। পরিমল বিবাহিত হলেও নতুন জায়গায় গিয়ে অঞ্জলির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। তাঁদের সম্পর্কের কথা জানাজানি হয়ে যাওয়ার পর মেয়ে অঞ্জলিকে নিয়ে নিজ গ্রামে ফিরে যান বিদেশ সরদার। পরিমলের স্ত্রী-সন্তান থাকায় তাদের সম্পর্ক নিয়ে বসে সালিসি সভা। কিন্তু ভালোবাসার টানে আবারও একে অপরের হাত ধরে গ্রাম ছাড়েন পরিমল-অঞ্জলি। দীর্ঘ আট বছর কাটান গ্রাম ছেড়ে অন্য জায়গায়।

দীর্ঘদিন গ্রাম ছেড়ে বাইরে থাকার পর তারা হয়তো ভেবেছিলেন যে, সবাই ঘটনাটি এত দিনে ভুলেই গেছে। ফলে দীর্ঘ আট বছর পর আবার ঝুপখালী গ্রামে ফিরে আসেন তাঁরা। কিন্তু স্বামী অন্য আরেকজনকে নিয়ে বাড়িতে ওঠায় তা মেনে নিতে পারেননি পরিমলের স্ত্রী। অনেক ঝগড়া-বিবাদের পর শনিবার রাতে বাইরে থেকে দরজায় তালা লাগিয়ে দেন তিনি। রোববার ভোর হতে না হতেই স্থানীয় পাড়া প্রতিবেশীদের ডেকে জানিয়ে দেন সব কিছু।

এই ঘটনা জানার পরেই ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী পরিমল ও অঞ্জলি সরদারের ওপর শুরু করে পাশবিক নির্যাতন। মারধরের পর মাথা ন্যাড়া করে মাখিয়ে দেওয়া হয় চুনকালি। গলায় জুতার মালা পরিয়ে ঘোরানো হয় পুরো গ্রাম। পুরো ঘটনা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি পুলিশের পক্ষ থেকে। অনেকেই সব কিছু দেখেও পালন করেছেন নীরব দর্শকের ভূমিকা। গোটা ঘটনায় এলাকায় ছড়িয়েছে তীব্র চাঞ্চল্য।এনটিভি

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts