November 21, 2018

‘প্রশ্নটা ঠিকমতো শুনতে পাননি কিরণ’

fস্পোর্টস ডেস্ক::

ফিফার একটি কাউন্সিলে নির্বাচিত হওয়ার পরও নারীদের বর্তমান ফুটবল চ্যাম্পিয়নের বিষয়ে তিনবারে সঠিক উত্তর দিতে পেরেছেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি মাহফুজা আখতার কিরণ।

নির্বাচিত হবার পর, বিবিসির একজন সাংবাদিক যখন তার কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ফুটবলে মেয়েদের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন কারা প্রশ্নটির উত্তর তৃতীয়বারে পেরেছেন তিনি, যা নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে এখন চলছে সমালোচনা।

ওই ঘটনার ব্যাখ্যায় তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, ”ওই সময় আমি খুব উদ্বেগের মধ্যে (স্ট্রেসে) ছিলাম। তাই তিনি যেভাবে বলেছেন, আমি হয়তো ঠিকভাবে শুনিনি। তৃতীয়বারে গিয়ে তার কথা শুনতে পেয়ে উত্তর দিয়েছি।”

মিজ কিরণ বলছেন, ”প্রথমে ভাবছিলাম সে এইজ লেভেল (বয়সভিত্তিক ফুটবল) জিজ্ঞেস করছে। কারণ আমি সেটা নিয়েই কথা বলছিলাম

বিবিসির এক সংবাদদাতা ম্যানি জাযমি টুইট করেছেন — নির্বাচিত হওয়ার পর মাহফুজা কিরণকে তিনি প্রশ্ন করেছিলেন নারীদের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন কে? প্রথম উত্তর ছিল উত্তর কোরিয়া। ভুল ধরিয়ে দিলে, মাহফুজা কিরণ জাপানের নাম বলেন, তারপর আমতা আমতা করে উত্তর দেন ইউএসএ।

মজা করে মি জাযমি লিখেছেন ২/১, অর্থাৎ দুবার ভুল করে সঠিক উত্তর।

তার এই টুইটের পর মিজ কিরণকে নিয়ে সমালোচনা আর টিকা-টিপ্পনী শুরু হয়ে যায় টুইটারে।

ফিফার রুলিং কাউন্সিলে অস্ট্রেলিয়ার হেভি-ওয়েট প্রার্থী ময়া ডডকে ২৭-১৭ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে এশিয়া অঞ্চলের মহিলা প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের মাহফুজা কিরণ। তিনি বাংলাদেশ থেকে ফিফার কোন কমিটিতে নির্বাচিত হওয়া প্রথম নারী।

এ কারণেই তার বিরুদ্ধে এসব ঘটনা তৈরি করা হচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।

মাহফুজা আক্তার কিরণ বলছেন, ”এটা খুবই সিম্পল, আপনার বুঝতে হবে, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ময়া ডড। গত তিনবছর ধরে একজন সদস্য হিসাবে তিনি ওখানে ছিলেন। তিনি যখন হেরে গেছেন, স্বাভাবিক কারণে তার সমর্থনে যেসব মিডিয়া রয়েছে, তারা তো তার পক্ষেই কাজ করবে। এর বাইরে কিছু নয়।”

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের মেয়েদের উইংয়ের প্রধান হিসাবে কাজ করছেন মাহফুজা আক্তার। প্রথম কোন বাংলাদেশি নারী হিসাবে এশীয় ফুটবল কনফেডারেশনের নারী প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন মাহফুজা আখতার কিরণ। তাতে বাংলাদেশের ফুটবলের কি লাভ হবে?

তিনি বলছেন, বয়সভিত্তিক ফুটবলের জন্য অনেক বেশি প্রশিক্ষণ দেয়া হবে, অনেক টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হবে। বয়সভিত্তিক ফুটবলের উন্নয়ন হলে মুল ফুটবলেরও উন্নতি হবে।

মিজ কিরণ বলছেন, ”মেয়েদের ফুটবল এগিয়ে নেয়ার একটি বড় সমস্যা অর্থায়ন। এখন আমি ফিফায় আসায় স্পন্সরের দিক থেকে, ফিফার দিক থেকে এই অর্থায়নের বিষয়টি অনেক সহজ হবে। মেয়েদের জন্য কাজ করা অনেক সহজ হবে।”

তবে তিনি বলেন, শুধু বাংলাদেশের জন্যই নয়, তিনি সারা পৃথিবীর মেয়েদের ফুটবলের জন্যই কাজ করতে চান।

সোমবার বাহরাইনের রাজধানী মানামায় ফিফার কংগ্রেসে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ভোটের আগে অন্য দুই জন প্রার্থী উত্তর কোরিয়ার হান উন গিয়ং এবং ফিলিস্তিনের সুজান শালাবি মোলানো প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন।

মাহফুজা আক্তার কিরণ ২০১৯ সাল পর্যন্ত ফিফা কাউন্সিলে দায়িত্ব পালন করবেন।

Related posts