November 21, 2018

প্রধানমন্ত্রীর হাতে আ’লীগের বিদ্রোহীদের তালিকা

পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দিলেও বিদ্রোহীরা ভাবিয়ে তুলেছে আওয়ামী লীগকে। তাই এবার বিদ্রোহী প্রার্থী দমনে মাঠে নেমেছে ক্ষমতাসীনরা। দলের হাইকমান্ডের নির্দেশে কেন্দ্রীয় নেতারা যাচ্ছেন তৃণমূলে। প্রথমে বুঝিয়ে বিদ্রোহীদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের চেষ্টা করবেন তারা। এতে কাজ না হলে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নেওয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা।

সূত্র গেছে, গত দুই দিন পৌর মেয়র পদে বিদ্রোহী প্রার্থীদের তালিকা তৈরী করে তা দলীয় সভাপতির হাতে তুলে দিয়েছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতারা। এ তালিকা দেখে প্রধানমন্ত্রী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তৃণমূলের মতামত এবং বিভিন্ন রিপোর্টের ভিত্তিতে দলের ত্যাগী ও জনপ্রিয় নেতাদের মেয়র পদে একক প্রার্থী করে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। অনেকে না বুঝে হয়তো বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। তাই বুঝিয়ে তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ব্যবস্থা করতে হবে। আমি মাঠে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী দেখতে চাই।

এদিকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বুঝিয়ে কিভাবে বসিয়ে দেয়া যায় সে ব্যাপারে করণীয় ঠিক করতে শুক্রবার আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্যরা জরুরী বৈঠকে বসেন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, সংসদ সদস্য নন এমন কেন্দ্রীয় নেতাদের তৃণমূলে থাকতে হবে। একই সঙ্গে বৈঠকে বিদ্রোহী প্রার্থী ঠেকাতে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে সাত বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাত সাংগঠনিক সম্পাদককে নির্দেশ দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে এক প্রশ্নের জবাবে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, আমাদের হিসাবে অনুযায়ী ৭১টি পৌরসভায় বিকল্প প্রার্থী রয়েছে। ১৩ ডিসেম্বরের মধ্যে একটি পৌরসভায়ও কোন বিদ্রোহী প্রার্থী থাকবে না বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এময় এক প্রশ্নের জবাবে গণমাধ্যমে প্রার্থী তালিকা আগে প্রকাশ না করাকে রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে আখ্যায়িত করে ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলী ও দলীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ এ প্রতিবেদককে বলেন, এখনো তো সময় আছে। আমরা চেষ্টা করছি প্রতিটি পৌরসভাতেই একক প্রার্থী দিতে। এটা অনেক কঠিন কাজ। আমরা বুঝিয়ে প্রার্র্থীদের বসানোর চেষ্টা করছি। তাদের বলছি দলের প্রয়োজনে দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করতে। তিনি বলেন, আশা করি ১৩ তারিখের মধ্যেই সবগুলো পৌরসভাতেই একক প্রার্থী দিতে সক্ষম হবো। এরপরেও দু একজন থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদককদের কয়েকজন ইতোমধ্যে বিদ্রোহী প্রার্থীদের ব্যাপারে দলীয় কঠোর মনোনভাবের কথা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। তারা বলছেন, এবার স্থানীয় সরকার নির্বাচন যেহেতু দলীয়ভাবে হচ্ছে তাই বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার বিকল্প নেই। আস

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts