December 11, 2018

প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে খালিয়াজুরীতে ব্যাপক প্রস্তুতি

9e2d2_unnamed_long

নেত্রকোণা: আগামী ১৮ মে (বৃহস্পতিবার) নেত্রকোণা জেলার খালিয়াজুরী উপজেলা সফরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বহুল প্রতীক্ষিত খালিয়াজুরী সফরের পাশাপাশি খালিয়াজুরী থানা মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণও দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী হাওর অঞ্চল দিরাই-শাল্লা সফর শেষে নেত্রকোণা জেলার হাওর উপজেলা খালিয়াজুরী সফরে আসার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর খালিয়াজুরী সফরকে কেন্দ্র করে চলছে পুরোদমে প্রস্তুতি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দফায় দফায় চলছে বৈঠক। আর জনসভা সফল করতে আওয়ামী লীগের জেলা পর্যায় থেকে শুরু করে ইউনিয়নের ওয়ার্ড পর্যায়েও পর্যন্ত চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে এখানকার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে অন্যরকম এক উৎসবের আমেজ। জনসভাকে সফল করতে ইতোমধ্যে জেলা আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি সভা শেষ করেছে। উপজেলা পরিষদে এ প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ড. মো. মুশফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথি হিসেব উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জি.এম. সালেহ উদ্দিন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত উপজেলাবাসী। তাই হাওর এলাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চলছে রাস্তা সংস্কার ও সাজসজ্জার কাজ। এ ছাড়া জনসভা স্থল দফায় দফায় পরিদর্শন করে জনসভাকে সফল করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন প্রশাসনের সকল সেক্টরের কর্মকর্তারা। এদিকে মেরামতসহ ধুয়ে মুছে রং করে জেলা পরিষদ ডাকবাংলোকেও সাজানো হচ্ছে নতুন রূপে। সেই সাথে হেলিপ্যাড তৈরিসহ আশপাশের এলাকাতেও চলেছে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ। যা দেখে অনেকেই মনে করছেন এমন বড় বড় মানুষেরা যদি কিছুদিন পরপরই আসতেন। তাহলে অন্তত তাদের কষ্টের চেহারা একদিন পাল্টে যেতো সত্যি সত্যিই।

এ ব্যাপারে এলজিইডি’র খালিয়াজুরী উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান খান বলেন, মোট ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৪৭ জন নারী এখানে কাজ করছে। তারা সবাই আর ই আর এমপি প্রকল্পের মহিলা।

খালিয়াজুরী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সামসুজ্জামন তালুকদার সুয়েব সিদ্দিকী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রীর শেখ হাসিনার সফর হাওরবাসির হতাশায় প্রত্যাশা জাগবে। মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী হাওরের দুর্যোগের সময় মমতা দিয়ে বারবার আমাদের কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেছেন। আমার বিশ্বাস এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক দুরবস্থা থাকবে না। হাওরবাসীকে তিনি বঞ্চিত করবেন না।

জেলার সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল গণি বলেন, এলাকার সকল স্বাস্থ্য সেবা সার্বক্ষণিক তদারকি করছেন। প্রধানমন্ত্রীর জন্য একটি বিশেষ কেবিনেরও ব্যবস্থা রয়েছে। নৌ-এ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা করা হয়েছে। এলাকায় মাইকিং চলছে। পানিবাহিত কোন রোগ আছে কিনা তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এদিকে জেলা প্রশাসক ড. মুশফিকুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত এপ্রিলের শুরুতে বাঁধ ভেঙে নেত্রকোনার হাওরাঞ্চল মদন-মোহনগঞ্জ ও খালিয়াজুরীর ৭০ হাজার হেক্টর জমির কাঁচা-পাকা ধান পানিতে তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এতে হাওরপাড়ের প্রায় ১ লাখ ৮৬ হাজার কৃষক চরম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। অথচ সরকারি কার্ড বরাদ্দ হয়েছে মাত্র ৫০ হাজার জনের নামে যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

Related posts