September 22, 2018

প্রধানমন্ত্রীপুত্র জয় হত্যা পরিকল্পনা অভিযোগই নেয়নি মার্কিন আদালত

ঢাকাঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের হত্যাচেষ্টা নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের বক্তব্যের সঙ্গে মার্কিন আদালতের নথির কোনো মিল নেই। বছরখানেক আগে এফবিআইয়ের গোপন নথির বিষয়ে অবৈধভাবে খোঁজ নেয়ার অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত তিন ব্যক্তির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর পুত্রের হত্যা প্রচেষ্টার বিষয়টি জড়িত নয়।

আজ বুধবার এ খবর দিয়েছে ‘দ্য ওয়ার’। এ সংবাদটিকে পত্রিকায় ‘এক্সক্লুসিভ’ হিসেবে প্রকাশ করা হয়। শিরোনাম দেয়া হয় ‘Exclusive: US Court Dismissed Claim of Plot to Injure Bangladesh PM Son’। ঢাকা থেকে এ প্রতিবেদনটি পাঠিয়েছেন সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই মামলায় আইনজীবীরা অভিযোগ করেছিল ওই তিন ব্যক্তি সজীব ওয়াজেদ জয়কে শারীরিক হামলা (ফিজিক্যালি হার্ম) করার পরিকল্পনা করেছিল। কিন্তু বিচারক এ অভিযোগ বাতিল করে দেন।

২০১৫ সালের মার্চে যে তিনজনকে সাজা দেয়া হয়েছিল তাদের বিরুদ্ধে ঘুষ দেয়ার অভিযোগ ছিল। কিন্তু গত শনিবার ঢাকায় প্রখ্যাত সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই তিনজনের সঙ্গে যোগসাজসে সজীব ওয়াজেদকে ‘অপহরণ ও হত্যাচেষ্টা’র অভিযোগে। যা আদালতের মূল মামলার বিষয়ের সঙ্গে একেবারেই মিল নেই।

‘মৌচাকে ঢিল’ সম্পাদক শফিক রেহমান, যিনি বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির সঙ্গে জড়িত, তাকে তার বাড়ি থেকে শনিবার গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তার বাসায় ঢোকে।

‘আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকেও গত সোমবার একই অভিযোগে ‘শ্যোন এরেস্ট’ দেখানো হয়েছে। মাহমুদুর রহমান ২০১৩ সাল থেকে অনেকগুলো মামলায় কারাগারে রয়েছেন।

এদিকে, জয়ের ব্যাপক প্রচারিত দাবি হলো ওই তিন ব্যক্তিকে যুক্তরাষ্ট্রের আদালত সাজা দিয়েছিলো তাকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অপরাধে। আর শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তার ওই মামালার সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। কিন্ত মার্কিন আদালতের নথি তাকে সমর্থন করেনা। যুক্তরাষ্ট্রের আদালত থেকে পাওয়া এসব তথ্য প্রথমবারের মতো প্রকাশ করলো দ্য ওয়্যার।

শফিক রেহমানে গ্রেপ্তার বৈধ কি-না, এ বিষয়ে বিভ্রন্তি দূর করার লক্ষ্যে জয় তার ফেসবুকে একটি পোষ্ট দেন। এতে তিনি বলেন,‘ আমাকে অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে শফিক রেহমান সরাসরি জড়িত এ বিষয়টি মার্কিন জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট খুঁজে পেয়েছে। তারাই আমাদের সরকারকে এর প্রমাণ প্রদান করেছে। তিনি এপ্রমাণের ভিত্তিতেই গ্রেপ্তার হয়েছেন। আমি আর বেশি কিছু বলবোনা। তবে, প্রমাণাদি অকাট্য।’

তিনি টুইটারে বলেন, ইউএস ডিওজে (ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস) জানতে পেরেছে, সজীব ওয়াজেদকে হত্যার ষড়যন্ত্রে শফিক রেহমান জড়িত। প্রমাণও সরবরাহ করা হয়েছে।

এবিষয়ে ইউএস জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট-এর পিটার কার দ্য ওয়্যারকে বলেন, এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে চাইনা।

Related posts