September 23, 2018

প্রতিমন্ত্রী আর উপমন্ত্রীর দ্বন্দ্ব চরমে!

ঢাকাঃ  প্রতিমন্ত্রী আর উপপমন্ত্রীর দ্বন্দ্ব ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে। দুইজনের কাজে কোনো সমন্বয় নেই। এমনকি একজন অন্যজনের কাজে বাধা দেয়ার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদারের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। তার অভিযোগ প্রতিমন্ত্রী কাজ করতে দিচ্ছেন না তাকে।

জয়ের অভিযোগ, যেকোনো ফাইল এলে তাকে তা দেখান না প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদার। নিজেই সিদ্ধান্ত নেন, সইও তিনি একা করেন। উপমন্ত্রী হিসেবে কোনো ভূমিকাই রাখতে পারছেন তা তিনি।

বীরেন সিকদার এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানেন বলেও জানান তিনি।

মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কাছে জমা দেয়া জয়ের লিখিত অভিযোগে বলা হয়, এর আগের সচিব (নুর মোহাম্মদ) তার সই ছাড়া বিভিন্ন সরকারি ফাইল অনুমোদন করেছেন। বর্তমান সচিবও একইভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। প্রতিমন্ত্রীই তাকে না জানিয়ে এভাবে মন্ত্রণালয় চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ জয়ের।

অনুষ্ঠানের ব্যানারে নিজের নাম না থাকায় গত ১ নভেম্বর এক যুগ্ম-সচিবের কক্ষ ভাঙচুর ও আরেক সিনিয়র সহকারী সচিবের কক্ষে তালা দেন উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। এর আগেও নানা ঘটনায় জয়ের সমালোচনা হয় গণমাধ্যমে। এসব ঘটনার পর বীরেন শিকদার এককভাবে মন্ত্রণালয় চালাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন যুগ্মসচিব জানান, ‘উপমন্ত্রীর বহু ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিমন্ত্রী একাই সব কিছু করছেন। এ নিয়ে উপমন্ত্রী মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে অভিযোগ করেছেন’।

উপমন্ত্রী জয় জানান, ‘মন্ত্রণালয়কে দুর্নীতিমুক্ত করতে চাই আমি। কিন্তু প্রতিমন্ত্রী সাহেব তা করতে দিচ্ছেন না। শুরুর দিকে আমি ভাবতাম হয়তো কারো ভুলে আমার কাছে ফাইল আসছে না। ভেবেছি এগুলো ঠিক হয়ে যাবে। তাই কিছু বলিনি। কিন্তু পরে দেখলাম মাসের পর মাস একই ঘটনা ঘটছে। এরপর আমি মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে অভিযোগ করেছি’।

জয়ের এই অভিযোগের পর কী হয়েছে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘উপমন্ত্রী সাহেবের অভিযোগের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী দেখবেন। তবে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি, কিছু বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছি’।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি ৫ মে ২০১৬

Related posts