November 17, 2018

‘পুলিশ লাঠি-রাইফেল দিয়ে গুতাচ্ছে, এক এক করে পোশাক খুলছে’

বাংলাদেশের রাজধানী মেগাসিটি ঢাকা। এখানে প্রতিনিয়তই পুলিশের নিপীড়নের শিকার হন সাধারণ মানুষ। যার প্রায় কোনোটিই গণমাধ্যমে আসে না। মাঝেমধ্যে রাজনীতিক, সাংবাদিক বা সরকারি কর্মকর্তারা নির্যাতিত হলে কিছুটা জানাজানি হয়। তারপর সেই ঘটনা কালেরগর্ভে হারিয়ে যায়। কোনোটিতে হয়তো অভিযুক্ত পুলিশ এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় বদলি হন। হয়তো হন না। কিন্তু আসল ঘটনা হলো রাস্তায় পাবলিককে পুলিশের পীড়ন বন্ধ হয় না। কখনোই হয় না।

শনিবার রাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা গোলাম রাব্বিকে রাস্তা থেকে ধরে ৫ ঘণ্টা আটকে রেখে নির্মম নির্যাতন করেছে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ। অভিযোগ উঠেছে। ৫ লাখ টাকা দাবি করে না পেয়ে ক্রসফায়ারে হত্যার হুমকিও দিয়েছিল এসআই মাসুদ শিকদার।

ফেসবুকে সেই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে পুলিশি নিপীড়নের বিরুদ্ধে লড়ার ডাক দিয়েছেন গোলাম রাব্বি। তার ফেসবুক বিবৃতি তুলে ধরা হলো-

আমি হয়তো হারিয়ে যেতে পারতাম, এ পৃথিবী থেকে

কি লিখবো, কার কাছে লিখবো, কি নিয়ে লিখবো, কিভাবে লিখবো…

যে রাব্বী ‘স্বপ্নের বাংলাদেশ’ আর ‘বিশ্বকে মানুষের বসবাস উপযোগী করা ও রাখার জন্য’, সর্বতভাবে- নিজে ইতিবাচক চিন্তা করে-কাজ করে-লেখে-বলে; এমনকি ভাল কিছু করার কথা- সব সময় ভাবে; একইসাথে অন্যকে ভাবতে সাহায্য করে-উৎসাহ যোগায়, সে আজ কি দেখলো…!!!

এ জীবনে বহুবার এমন ঘটনা, সংবাদ উপস্থাপক হিসেবে পড়েছি, একজন সমাজ সচেতন মানুষ হিসেবে বহুবার এমন-ই ঘটনার ঈঙ্গিত পত্রিকার পাতা, টিভি-রেডিও-অনলাইনের ভাষায়, আঁচ করতে পেরেছি; কিন্তু- নিজের কাছে প্রত্যক্ষ প্রমাণ নাই- তাই বিশ্বাসযোগ্য মনে হলেও, ‘এমনটা হতে পারে না’ ভান করেছি…।

কিন্তু আজ..!!! এ কি দেখলাম..!!!

মাত্রই, বাসা-ভাড়ার-টাকা দিবো বলে, বুথ থেকে টাকা নিলাম, হাঁটতে শুরু করলাম, অমনি এক লোক শার্ট-কোর্টের কলার ঝাপটে ধরলো, বললো- স্যারের সাথে কথা আছে, দেখলাম পুলিশ ভ্যানের পেছনে দাঁড়ানো চার-পাঁচজন পুলিশ সদস্য। আমাকে টেনে-হিঁচড়ে নিচ্ছে, আর গাঁয়ে বেধড়ক হাত তুলছে-পেটাচ্ছে, আমি চিৎকার করছি, পাশে ২০-২৫ জন লোক দাঁড়িয়ে দেখলো, কিন্তু কিছুই বললো না; অবশ্য-কি আর করা- ‘আইনের লোক বলে কথা…!!!’

এরপরের ঘটনা আরও দুর্বিষহ, আমাকে লাঠি-রাইফেলের মাথা দিয়ে গুতাচ্ছে, এক এক করে পোশাক খুলছে, আর আজেবাজে বকছে। ভাব নিচ্ছে, খুঁজছে, কোথায় আছে, ইয়াবা, নেশা জাতীয় দ্রব্য বা অস্ত্র-সরঞ্জাম জাতীয় কিছু..।

কিন্তু, সময় যত গড়াচ্ছে, নিজের মধ্যে বারবারই ধুকরে উঠছে, কাদের কিংবা লেমনের গল্প…। লোম শিহরে উঠছে.. লথি-গুতা মারছে, আর বকছেতো-বকছেই। তাদের ভাব এমনই যে, দেশে কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা..? বা রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ..?? তারা-ই সব..!! এমনকি আমার বক্তব্য মারফত পরিচয় পাওয়া, বিসিএস ক্যাডার, পুলিশেরই এসপি পরিচয় দেয়া ভাই থেকে শুরু করে গুরুজন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতিও বাদ যায়নি, তাদের অসম্মান আর গালাগালের হাত থেকে…!!!

আমার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের চাকুরির পরিচয় পত্র, পূর্বের সাংবাদিকতা-সংবাদ উপস্থাপনা করার পরিচয় থেকে শুরু করে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও মহান এ বিশ্ববিদ্যালয়ের লোগো সম্বলিত টি-শার্ট পরিহিত পরিচয়ও দমাতে পারেনি, তাদের নোংরামি-ভন্ডামি…!!

এদিকে, ঘন্টা কয়েক সময়ে যা দেখলাম, আর শিকার হলাম, তার স্থায়ীত্ব হয়তো আমার ইতিবাচক চেন্তা-চেতনাকেও চিরতরে বিকলাঙ্গ করে দিতে সক্ষম..!! কেননা- ঐ পুলিশ ভ্যান নানা দিক যাচ্ছে, আর কাউকে রিকশা থেকে নামিয়ে, আবার কাউকে রাস্তা থেকে ধরে, যা করলো…!!!; টাকা নেয়াসহ, ভয়-ভীতি আর যেভাবে ব্যবহার করলো, তার তিক্ত অভিজ্ঞতা আজীবনও হয়তো বলতে বা বুঝাতে পারবো না..।

একপর্যায়ে, বারবারই নিজের এত এত পরিচয়-ই শাপে বর হচ্ছে বলে মনে হচ্ছিলো..!! কেননা- অন্য সাধারণের কাউকে ধরছে, আর মারছে, টাকা নিচ্ছে, টাকা না থাকলে থানায় নিচ্ছে, ফোনে খারাপ কিছুর সঙ্গে আটক হয়েছে, বলে লক্ষ-কোটি টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নেয়ার কথা আত্মীয়-স্বজনদের জানানো হচ্ছে, ছেড়ে দিচ্ছে। এমনটা-ই দেখলাম।

কিন্তু- মরণ আমার। আমাকে না পারছে গিলতে, না পারছে ফেলতে, না পারছে টাকা পয়সা নিয়ে ছেড়ে দিতে..! দেখছি- কখনো এমনও বলা হচ্ছে- ‘মাল কঠিন, শেষ করে দাও’; ‘জিনিস কঠিন, ফেলে দাও’.!! শরীরে প্রাণ তখন না থাকার উদগ্রীব।

তবে- প্রকৃতির কাছে হাজার শুকরিয়া, নিজের বিনয় পরিচয়, আর মহান প্রভুর প্রত্যক্ষ সহযোগিতা, আমাকে বাঁচার মতো বাঁচিয়েছে।

ঘটনায়- বহুবারই বিভিন্নস্থানে পুলিশ হাত দিচ্ছে আর বলছে, কই..? আছে কিছু..!!। যতবারই এ কথা বলা হচ্ছে- আর মনে পড়ছে, লেমন বা আব্দুল কাদের-এর মতো কোনো ঘটনায় জড়িয়ে যাচ্ছি না-তো..?? যা হোক- অবশেষে ওরা ঠিক করলো, কোনো মেয়ে আত্মীয় স্বজন বা আমার নরম-সরম ছোট টাইপের আত্মীয় কাউকে ডাকতে..। সেসময় ‘পুলিশ অফিসার জুয়েল ভাই’ আর ‘সভাপতি সোহাগ ভাইকে’ ডাকি বললে, আবার শুরু হয় বকা আর গালাগালসহ হুমকি। তখন ভাবসাব দেখে মনে হলো- মোটা অংকের কিছু টাকার ধান্দা করবে; আমার কাছ থেকে, একইসাথে ওদের বাঁচার পথ তৈরির জন্য একটা মুচলেকাও নিবে।

কিন্তু বলে না, প্রকৃতি পাশে থাকলে তাকে ঠকায়/রুখে কে..? মাথা কাজ না করলেও অটোমেটিক ফোন চলে গেলো, জাহিদ ভাইয়ের সেলফোনে। তিনি নিয়ে আসলন, ইকরাম, ইকরামের বন্ধু শাকিল (যদি ভুল না করি), নূরে আলমকে। এরপরে আসলো- বন্ধু তানভীর, খোকন ভাই ও রাশেদ।

লিখছি আর বারবারই ধন্যবাদ দিতে হচ্ছে- প্রকৃতিকে (ন্যাচার)। কেননা- আজ আমি হয়তো হারিয়ে যেতে পারতাম, এ পৃথিবী থেকে। অথবা হারাতে পারতাম শরীরের মূল্যবান কোনো অঙ্গ। হয়তো সাধারণ মানুষতো দূরের কথা- বন্ধুসম-আপনজনদেরও স্বচোক্ষে না দেখলে, বিশ্বাসও করাতে পারতাম না। এমনকি এখনও নিজের কাছে, নিজেরই বিশ্বাস হচ্ছে না, এমনই কি করতে পারেন আমার-আপনার নিরাপত্তা রক্ষার মহান দায়িত্ত্বে থাকা ভাই-বোনেরা।

যা হোক- একবার ভাবছি, লিখবো না.. আবার ভাবি লিখবো…। আবার ভাবি লিখলে, সরকার বিরোধীরা আমাকে ব্যবহার করে মাঠ গরম করবে। কিন্তু শেষমেষ সীদ্ধান্ত নিলাম, উপরওয়ালা যখন বাঁচিয়ে এনেছেন, হয়তো আমাকে এটি নিয়ে লেখা/বলার জন্য-ই এটলিস্ট মৃত্যুর হাত থেকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে এনেছেন।

কেননা- আমার লেখার কারণে জানি- বাকী জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত নিজেকে ভয়-শঙ্কার মধ্য দিয়ে নিয়ে যেতে হবে। ভয়ের মধ্যে থাকতে হবে আমিসহ পরিবারে যুক্ত ও সামনে আগত-অনাগত সবাইকে। কিন্তু ভাবলাম- আমিতো শেষ হয়েই গিয়েছিলাম, নিজেকে না হয়, দেশআর দশের জন্য উপকার করতে গিয়ে, ঝুঁকির মধ্যে ফেলে রাখলাম, বৈ-কি !!

এও জানি- হয়তো এ লেখার পর শোরগোল পরে যাবে। লেখালিখি আর টকশোর টেবিল গরম হবে। কিন্ত আমার জীবন ঐসব হায়ানা আর দোসরদের কাছ থেকে মুক্ত হবে কি..? আমাকে না হয়- প্লাটুন-প্লাটুন নিরাপত্তারক্ষী দেয়া হবে। আবার কেউবা এডিট করে দিতে বলবে আমার এই স্ট্যাটাস। কেউ হয়তো- দুঃখিত বলার মহা আয়োজন করবে। কিন্তু যে মানুষটি ২৬-২৭ বছরের জীবনে সজ্ঞানে কারো বিন্দুমাত্র কষ্ট দেয়নি, মুখের হাঁসি না কেড়ে নিয়ে, বরং হাসতে সহায়তা করেছে, আর ধূমপান, সেতো মহা বিষপান ভেবেছে। তেমন, এক লোকের নামে ‘এমন গাজা/ইয়াবা/অস্ত্র নিয়ে ঘুরছো’- এমন কোটি কোটি টাকার সন্মানহানিকর আচরণের ক্ষতির দায় নেবে’ দেশের কোন কর্তৃপক্ষ…।

এখন ন্যাচার-ই ভরসা, কারণ- কাকে কাছে ডাকবো, কে আমাকে নিয়ে ভাববে.., কে দেবে নিরাপত্তা, কে-ইবা পাশে দাঁড়াবে আমার, কি-ই-বা বিচার চাইবো, দেশের আইনে তো প্রমাণ ছাড়া কিছুই মেলে না। এমনও হতে পারে, সবশেষে নিজেকে বাঁচাতে বন্ধু তানভীর-এর থেকে নিরাপত্তারক্ষীদের মিথ্যা মুচলেকা-ই আমার বিরুদ্ধে কাল হয়ে দাঁড়াবে/ দাঁড়ানোর চেষ্টা করবে।

এমন কিছু হলেও-বা, কে-ইবা জানবে, এই যা সত্য ঘটনা নিয়ে লিখলাম, তার কারণে অসময়েই চলে যেতে হতে পারে আমাকে..; ঝুট ঝামেলার মধ্যে, পরে থাকতে, হতে পারে আজীবন…!!! আর আমাকে মেরে ফেলার পর, দশবার ফরেনসিক রিপোর্টে আমাকে মেরে ফেলার প্রমাণ, আর তাদের বিচার-ই বা কে/কি করবে এ সোনার বাংলাদেশে। বিচার হলেই-বা জীবনে কি আসবে আমার। যাবে কি তার চাকরি। হবে কি অন্য সবাই শুদ্ধ। মুক্ত হবে কি আমাদের এ সমাজ।

নিজেকে হারিয়ে খুঁজছি, না বুঝেই লিখছি, ভাবছি যেতে-তো হবেই; এটলিস্ট- সত্যটা বলে যাই, হারিয়ে-তো যেতে হতেই পারে, সত্যকে আরেকবার জানিয়ে দেই..!!

আজ থেকে হয়তো আমার মাথা আর কাজ করবে না, কিছুই বলারও উপক্রম হবে কি’না, জানি না..

লিখছি আর ভাবছি, সবে তো তরুণ, স্বাভাবিক মৃত্যু হলেও-তো জীবনের অনেকটা-ই এখনও বাকী। কিন্তু সত্য কথা লেখার পর, আমার জীবন নিরাপদ থাকবে-তো, আর নিরাপত্তা-ই বা দেবে কে, যারা দেবেন, বা নিয়োজিত হবেন, তাদের প্রতি-ই বা বিশ্বাস রাখি কি করে..!! তাদের এমন আচরণ আমাকে দুর্বিসহ করে তুলছে এখনও মুহুর্মুহু…। প্রশ্ন জাগছে- কত দিন, বছর বা সময়ই-বা টানতে হবে আমায়, এ দুঃস্বপ্ন..

ভাবছি- কিছুক্ষণ আগে, আমার জীবনে যা ঘটলো, সেরকম কিছুই হয়তো ঘটেছিলো, লেমন-কাদের কিংবা নাম না জানা হাজারো সাধারণ মানুষের জীবনে।

কিছুই মাথায় আসছে না, শুধু বলবো স্বাভাবিক চলাফেরা আর বাঁচার নিরাপত্তা কেউ কি দিবেন..??

আমার সাথে এমন কোটি-টাকাসম অপরিমেয় সম্মনহানির ক্ষতপূরণ পাবো কি..??

থাকতে পারবো-তো.. আমার বেঁচে থাকার স্বাভাবিক সময় পর্যন্ত..??

টিভি-রেডিও-পত্রিকা-সুশীল সমাজ-সাধারণ জনগণ, মন্ত্রী-আমলা, কেউ দাঁড়াতে চান, আমার পাশে..!! লড়তে চান এমন লোম-হর্ষক নিজের চোখে দেখার পরও অবিশ্বাসী আচরণের বিরুদ্ধে..??? বাঁচিয়ে রাখতে চান আমারসহ-সবার সুস্থ-স্বাভাবিক নাগরিক জীবন..??

তবে শঙ্কা- কি-ই-বা তাঁর গ্যারান্টি..?? ভাবছি- আমি কি আছি, না’কি শেষ..?? সবে কি শুরু, না’কি স্বাভাবিক জীবনের এই হলো শেষ..??অনলাইন বাংলা

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts