November 18, 2018

পানির পাম্প বসাতে গিয়ে জ্বালানি তেলের সন্ধান!

614
মেহেদী হাসান উজ্জ্বল,দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ   দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে ৫ কিলোমিটার দুরে ভবানীপুর শেরপুর গ্রামে পানির পাম্প বসাতে গিয়ে জ্বালানি তেল জাতীয় পদার্থের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে পার্বতীপুরে ব্যাপক ভাবে খবর ছড়িয়েছে।

গত শুক্রবার বিকেলে ওই গ্রামের অবসর প্রাপ্ত বিডিআর সদস্য খাতিজার রহমান (৫৫) বাড়ীতে নলকুপ মিস্ত্রিরা পাইপ বসাতে গেলে পানির সাথে মিশ্রিত জ্বালানি তেল জাতীয় পদার্থের সন্ধান পান বলে বাড়ীর মালিক ও মিস্ত্রিরা দাবী করেছেন।

খবর পেয়ে আজ শনিবার (২০-২-১৬) পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বড়পুকুরিয়া খনিতে কর্মরত পেট্রোবাংলার লোকজন পরীক্ষার জন্য তেলের নমুনা সংগ্রহ করেছেন। এখবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে জমেছে শত শত মানুষের ভিড়।

আজ শনিবার (২০-২-১৬) বিকেলে ঘটনাস্থলে বাড়ীর মালিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, ২০০৫ সালে তিনি বাড়ীটি নির্মান করেন। এসময় পানীয় জলের চাহিদা পুরনের জন্য স্নান ঘর ও গোলার ঘরের সংযোগ স্থলে ২০১২ সালে ৬০ ফুট গভীরতায় একটি টিউবওয়েল বসান। কিন্তু ঠিকমত পানি না ওঠায় প্রথম দফায় সেখানে প্রায় ১১০ ফিট গভীরতায় সাব-মার্সিবল পাম্প স্থাপন করেন। কিন্তু সেখান থেকে ঘোলা ও লালচে রংগের খাওয়ার অনুপযোগি পানি বের হতে থাকে ও এক পর্যায়ে পাম্পটি অকেজো হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে নতুন আরেকটি সাব-মার্সিবল পাম্প বসানো হলে ৬ মাসের মাথায় সেটিরও একই পরিনতি হয়। এরপর থেকে বোরিংটি (খননকৃত স্থান) পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকে।

বর্তমান খরা মৌসুমে পানির স্তর আরো নেমে যাওয়ায় গ্রামে পানীয় জলের সংকট দেখা দেয়। এ অবস্থায় শুক্রবার বোরিংটি সংস্কার ও গভীর করে নতুন ভাবে পাম্প স্থাপনের কাজ শুরু করা হলে বেলা ১টার দিকে কাদা মাটির সাথে পানি মিশ্রিত জ্বালানি তেল জাতীয় পদার্থের সন্ধান মেলে। বর্তমানে দড়ির সাথে বোতল বেধে বোরিংটির ৩৬ ফুট গভীরতা থেকে পানি মিশ্রিত জ্বালানি তেলের গন্ধযুক্ত তরল পদার্থের নমুনা তুলে উৎসুক মানুষ বোতল ভরে নিয়ে যাচ্ছেন।

নলকুপ মিস্ত্রি জয়নাল আবেদিন বাবু (৪০) ও অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর সদস্য খাতিজার রহমান দাবী করেন, গত শুক্রবার দুপুরে উত্তোলিত তরল পদার্থে ম্যাচের কাঠি জ্বালালে আগুনের শিখা জ্বলে উঠে।
এব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরফদার মাহমুদুর রহমান বলেন, তিনি শনিবার বিকেলে ঘটনাস্থলে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করেছেন সেগুলো পরীক্ষার জন্য বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ল্যাবে ও জয়পুরহাটের জামালপুর কয়লা খনির বিশেষজ্ঞদের কাছে পাঠানো হবে। পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর জানা যাবে পার্বতীপুরের ভবানীপুর শেরপুর গ্রামের বুনুয়ার ডাঙ্গার খাতিজার রহমানের বাড়ীতে পাওয়া তরল পদার্থে জ্বালানি তেলের কোন উপস্থিতি আছে কি না।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts