November 13, 2018

পাঞ্জাবের পাঠানকোটে অভিযান চলছে, ৬ হামলাকারী সহ নিহত ১৩

ভারতের পাঞ্জাবের পাঠানকোটে বিমান ঘাঁটিতে বন্দুকধারীদের চালানো হামলার পর ঘাঁটিটি নিরাপদ করতে টানা চারদিন ধরে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। এখন পর্যন্ত সেখানে ৬ হামলাকারী ও ৭ সেনা সদস্যসহ মোট ১৩ জন নিহত হয়েছে। খবর এনডিটিভি ও টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

পাকিস্তান সীমান্ত থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ওই ঘাঁটিটিতে গত শুক্রবার গভীর রাতে হামলা চালায় বন্দুকধারীরা। গত রোববার ঘাঁটিটিতে গোলাগুলির শব্দ পাওয়া গেলেও সোমবার থেকে আর কোনো গুলির শব্দ পাওয়া যায়নি বলে জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রোববার পর্যন্ত ছয় সন্ত্রাসীকে হত্যা করা হয়েছে। তবে ষষ্ঠ সন্ত্রাসীর লাশ এখনও উদ্ধার করা যায়নি। অপরদিকে, এ পর্যন্ত সাত সেনা সদস্য নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। ঘাঁটিটিকে সম্পূর্ণ নিরাপদ করতে এখনও অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে সামরিক বাহিনীর সদস্যরা।

হামলার পর গত রোববার ঘাঁটিটি সম্পূর্ণ খালি করা হয়। সোমবার সেখান থেকে সেনা সদস্যদের লক্ষ্য করে কোনো গুলির শব্দ পাওয়া যায়নি। তবে ঘাঁটিটিতে এখনও কোনো হামলাকারী আত্মগোপন করে আছে কি না এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ নিশ্চিত নয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

প্রথমদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে এ হামলার জন্য পাকিস্তানভিত্তিক ইসলামপন্থী সশস্ত্র সংগঠন জয়শ-ই-মোহাম্মদকে দায়ী করা হয়। তবে পরবর্তী সময়ে কাশ্মীরভিত্তিক স্বাধীনতাকামী ইউনাইটেড জিহাদ কাউন্সিল (ইউজেসি) এ হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয়।

পাকিস্তানের পক্ষ থেকে ভারতীয় বিমান ঘাঁটিতে চালানো এই হামলার ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেয়া হয়েছে।
মিগ-২১ বিসন ফাইটার ও এমআই-৩৫ অ্যাটাক হেলিকপ্টার সমৃদ্ধ ঘাঁটিটিতে সামরিক পোশাক পরে ও সামরিক যান ব্যবহার করে হামলা চালায় বন্দুকধারীরা।

পাঞ্জাবের এক পুলিশ কর্মকর্তাকে অপহরণ করে তার ব্যবহৃত সরকারি গাড়ি নিয়ে হামলাটি পরিচালনা করা হয়। ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গাড়ি ছিনতাইয়ের বিষয়টি নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জানানো হলেও কর্তব্যরত সেনা সদস্যরা ঢিলেমি করায় এ ভয়াবহ হামলার ঘটনা ঘটে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদী/ডেরি

Related posts