November 21, 2018

পাকিস্তানে আইনজীবীদের লক্ষ্য করে বোমা হামলা!

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ পাকিস্তানের সিভিল হাসপাতালে আত্মঘাতী হামলার ঘটনায় নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই আইনজীবী।

এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, হামলায় আহত ও নিহতদের বেশিরভাগই আইনজীবী। কয়েকজন সাংবাদিক ও হাসপাতালের কর্মীও রয়েছেন। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, নিহতদের মধ্যে অন্তত ১৮জন আইনজীবী রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, সোমবার সকালে আদালতে যাওয়ার পথে অজ্ঞাত দুই বন্দুকধারী গুলি করে বিলাল কাসিকে। আহত অবস্থায় তাকে বেলুচিস্তানের কোয়েটার সিভিল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিলালের মৃত্যুতে শোকাত শতাধিক আইনজীবী জড়ো হয়েছিলেন কোয়েটার হাসপাতালের জরুরি বিভাগে। জরুরি বিভাগে জড়ো হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে হাসপাতালের ভেতরেই ঘটল ভয়াবহ বোমার বিস্ফোরণ। বোমা বিস্ফোরণের কিছুক্ষণের মাঝে শুরু হয় গুলাগুলি।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আত্মঘাতী এই হামলায় অন্তত ৭৫ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে বেশির ভাগই আইনজীবী।

আলজাজিরা জানায়, নিরাপত্তা এলাকার প্রধান গেটে এই হামলা হয়েছে।

আইনজীবীদের ওপর হামলার ঘটনায় সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন এক সপ্তাহ শোক পালনের ঘোষণা দিয়েছে।

প্রতিবাদে বিক্ষোভ পালন করেছেন লাহোর হাইকোর্টের আইনজীবীরা। লাহোর সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এক সংবাদ সম্মেলনে হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এটা শুধু আইনজীবীদের ওপর হামলা নয়। এটা সব নাগরিকের ওপর হামলা।

পাকিস্তানের আইনজীবীদের অন্যতম নেতা আলি জাফর এ হামলাকে ‘বিচার ব্যবস্থায় হামলা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি ঘোষণা দিয়েছেন, আইনজীবীরা আগামী তিনদিন আদালত বর্জন করবেন।

উল্লেখ্য, শুধু সোমবারের হামলাই নয়, সম্প্রতি পাকিস্তানে বিশেষ করে বেলুচিস্তানে বেশ কয়েকজন আইনজীবী হামলার শিকার হয়েছেন।

৩ আগস্ট – অজ্ঞাতদের গুলিতে নিহত হন জাহানজেব আলভি নামের এক আইনজীবী। এ হত্যার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন সোমবার নিহত বিলাল কাসি। এ হত্যার প্রতিবাদে দুইদিন কোর্টের কার্যক্রম বয়কটের ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি।

জুন মাস- স্পিনি রোডে বেলুচিস্তান আইন কলেজের প্রিন্সিপাল ব্যারিস্টার আমানুল্লাহ আচাকজিকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

এর আগে পাকিস্তানি খ্রিস্টান নাগরিকের পক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য এক আইনজীবীকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।

জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা জাহুর আহমেদ আফ্রিদি জানান, নিহতদের বেশির ভাগিই আইনজীবী। আহত আইনজীবীদের মধ্যে বেলুচিস্তান বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি বাজ মোহাম্মদ কাকারও রয়েছেন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকরাও আহত হয়েছেন। ডন নিউজের ক্যামেরাম্যান মাহমুদ খান গুরুতর আহত হওয়ার পর হাসপাতালে মৃত্যু হয়। আজ টিভির ক্যামেরাম্যান শাহজাদ খানও বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন।

কোয়েটা সিভিল হাসপাতালের পরিচালক আব্দুল রেহমান বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, হতাহতদের বেশিরভাগই আইনজীবী। হাসপাতালে আহত ৯২ জনের চিকিৎসা চলছে।

Related posts