September 23, 2018

পাকিস্তানের তালেবান কমান্ডার বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয় ও স্কুলগুলোতে হামলার হুমকি দিলেন

ভবিষ্যতে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আরও হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছেন পাকিস্তানের ঊর্ধ্বতন তালেবান কমান্ডার বাচা খান। বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলায় চার যোদ্ধার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করে তিনি এ কথা বলেন।

ভিডিওতে হুঁশিয়ারি দিয়ে কমান্ডার উমর মনসুর বলেন, “এখন আমরা ক্যান্টনমেন্টে সেনা হত্যা করব না, আদালতে আইনজীবী কিংবা পার্লামেন্টে রাজনীতিবিদ হত্যা করব না, বরং যে স্থান থেকে তারা গড়ে ওঠে, যেটা তাদের ভিত্তি, সেই স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা হামলা চালাব।”

“আল্লাহর রহমতে বিশ্ববিদ্যালয় এবং স্কুলগুলোতে আমাদের হামলা চলবে।”

ভিডিওতে চরসাদ্দায় হামলা চালানোর আগে গুলি চালানোর প্রশিক্ষণ নিতে দেখা গেছে তরুণ বয়সের চার হামলাকারীকেও।

এ ভিডিও ফুটেজ তালেবান নেতৃত্বের মধ্যে বিভক্তির বিষয়টি নিয়ে নতুন করে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা নিয়ে তালেবানের দুই নেতা এর আগে দুইরকম বক্তব্য দিয়েছেন।

বুধবার সকালে পেশোয়ার থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে চরসাদ্দা শহরের বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয়ে আবৃত্তি অনুষ্ঠানে জড়ো হওয়া শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায় সন্দেহভাজন জঙ্গিরা। এতে অন্তত ২১ জন নিহত হয়।

এর পরপরই তেহরিক ই-তালেবান পাকিস্তানের (টিটিপি)কমান্ডার উমর মনসুর হামলার দায় স্বীকার করলেও দলটির কেন্দ্রীয় মুখপাত্র মুহাম্মদ খোরাসানি এ হামলায় তাদের সংশ্লিষ্টতা নেই বলে দাবি করেন।

খোরাসানি হামলার নিন্দা জানিয়ে একে ‘অনৈসলামিক’ বলেও বর্ণনা করেন। ওদিকে, উমর মনসুর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররা সরকার এবং সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে ওঠে। একারণেই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে হামলার লক্ষ্য করা হয়েছে।

মনসুর টিটিপি’র নেতা মোল্লা ফজলুল্লাহর ঘনিষ্ঠজন বলেই মনে করা হয়। চরসাদ্দায় হামলা নিয়ে দলটির পরষ্পরবিরোধী বক্তব্যের কারণ তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার জানা যায়নি। তবে এ থেকে তালেবান নেতৃত্বে বিভক্তি দেখা দিয়েছে বলে জল্পনা সৃষ্টি হয়েছে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts