September 26, 2018

পাউবো-কর্মকর্তা কর্মচারীদের পানি ও বিদ্যুতের দাবীতে বিক্ষোভ!

মহিনুল ইসলাম সুজন,
প্রতিনিধি নীলফামারীঃ
দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তার ব্যারাজের কর্মকর্তা, কর্মচারীদের বাসভবনে পানি ও বিদ্যুৎ না থাকার কারনে মঙ্গলবার দুপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন তারা। ডালিয়া দোয়ানী সিবিএ অফিস থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিসে এসে শেষ হয়। বক্তাদের অভিযোগ দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ ডালিয়া ডিভিশনের কোয়াটারে বসবাসরত কর্মকর্তা কর্মচারীরা গত ২দিন থেকে বিদ্যুৎ ও পানি পাচ্ছে না। যান্ত্রিক বিভাগের বিদ্যূতের দায়িত্বে থাকা এসও রহুল আমিন এ বিষয়ে কোন খোজ খবর রাখেন না।

তিনি অধিকাংশ সময় অফিসে না থেকে বাড়ীতে বসে সরকারী বেতন ভাতা উত্তোলন করেন।আর বিদ্যুৎ না থাকার কারনে প্রতিনিয়ত পানি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি আমরা।

কর্মকর্তা কর্মচারীরা অভিযোগ করে বলেন,সরকারীভাবে জেনারেটরের ব্যবস্থা থাকলেও তেল না থাকার কারনে পানি উত্তোলন করা যাচ্ছেনা।

তারা আরো বলেন, তিস্তার ব্যারাজ কেপিআই-১ এলাকার সুবাধে জলঢাকা থেকে ২৫ কিলোমিটার পল্লী বিদ্যুতের নতুন লাইন তৈরি করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন অজুহাতে মাসের পর মাস তাদের বিদ্যুৎ ও পানির জন্য ভোগান্তিতে থেকে যেতেই হচ্ছে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে যান্ত্রিক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এজেএম শাসমুজ্জোহা বলেন, জলঢাকা থেকে দীর্ঘ ২৫কিলোমিটার বিদ্যুতের লাইন নিয়ে আসা হয়েছে। কিন্তু ঝড় বৃষ্টিতে রাস্তায় গাছ পড়ে গিয়ে বিদ্যুৎ বন্ধ হয়ে পড়েছে।

বিদ্যুতের দায়িত্বে থাকা এসও রহুল আমিন মাসের পর মাস অনুপস্থিত প্রসঙ্গে বলেন, এখানে কোন লোক আসতে চায় না, বাধ্য হয়ে কাজ করতে হচ্ছে। রহুল আমিনের অনুপস্থিতির বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। ডালিয়া জাতীয় শ্রমিক লীগ (সিবিএ) অফিসের সামনে সিবিএ সভাপতি বুলবুল আহম্মেদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, সিবিএ সম্পাদক সোহরাব হোসেন,এসও খন্দকার মিজানুর রহমান মিজান, অশোক কুমার প্রমুখ।বক্তারা অচিরেই উর্ধ্বতন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপে এ সমস্যার স্হায়ী সমাধানেরর জোর দাবি জানান।

Related posts