November 15, 2018

পাঁচটিতে ট্রাম্প, তিনটিতে হিলারি

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ  যুক্তরাষ্টের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পাঁচটি অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান দলীয় প্রাইমারিতে জয় পেয়েছেন দলটির এগিয়ে থাকা মনোনয়ন প্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প।

অপরদিকে একই অঞ্চলের তিনটি রাজ্যে জয় পেয়েছেন ডেমোক্রেট দলীয় এগিয়ে থাকা মনোনয়ন প্রত্যাশী হিলারি ক্লিনটন।

মঙ্গলবার দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় পাঁচটি অঙ্গরাজ্য পেনসালভানিয়া, কানেটিকাট, রোড আইল্যান্ড, ডেলাওয়্যার ও মেরিল্যান্ডে উভয় দলের প্রাইমারি তথা প্রার্থী মনোনয়ন ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়।

এ পাঁচটি অঙ্গরাজ্যে রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী টেড ক্রুজ ও জন কাসিচকে সহজেই পরাজিত করে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে সরাসরি মনোনয়ন পাওয়া দিকে আরও এগিয়ে গেলেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন নেটওয়ার্কগুলোতে প্রদর্শিত ফলাফলে দেখা যায়, এসব অঙ্গরাজ্যে প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেছেন ট্রাম্প। এক সপ্তাহ আগে নিজ অঙ্গরাজ্য নিউ ইয়র্কে যে ব্যবধানে প্রতিদ্বন্দ্বীদের পরাজিত করেছেন তার চেয়েও বেশি ব্যবধানে এবার প্রতিদ্বন্দ্বীদের ধরাশায়ী করেছেন তিনি।

ট্রাম্পের এই শক্তিমত্তার প্রকাশ আগামী সপ্তাহে ইন্ডিয়ানার গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ে তার ক্ষেত্র প্রস্তুত করল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদিকে ইতিমধ্যেই ডেমোক্রেটিক মনোনয়ন দৌড়ে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে ফেলা যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফাস্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন তিনটি রাজ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্সকে পরাজিত করেছেন।

মেরিল্যান্ড, ডেলাওয়্যার ও পেনসালভানিয়ায় হিলারি জয় পেলেও সবাইকে বিস্মিত করে রোড আইল্যান্ডে জয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন স্যান্ডার্স। কানেকটিকাটে দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত কে জয় পান তা নির্ধারণ করা কঠিন ছিল।

ফিলাডেলফিয়ায় এক বিজয়ী ভাষণে রিপাবলিকান ট্রাম্প তার বিরুদ্ধে ‘ওম্যান কার্ড প্লে’ করছেন বলে অভিযোগ তোলেন হিলারি। ৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয় পেলে হিলারি হবেন দেশটির প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট।

ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “ঠিক আছে, আগে নারীদের স্বাস্থ্যসেবা, পারিবারিক ছুটিকালীন মজুরি ও সমমজুরির জন্য লড়াই করে ওম্যান কার্ড খেলুন, তারপর আমার সঙ্গে লড়ুন।”

রিপাবলিকান মনোনয়ন দৌড় এখনও ভাসমান অবস্থায় থাকলেও ট্রাম্পের জয়ে ধারণা করা হচ্ছে, রিপাবলিকান জ্যেষ্ঠ নেতারা জুলাইয়ের দলীয় সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ের আর সুযোগ পাবে না।

তবে প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রুজ ও কাসিচ এখনও সেই আশায়ই দিন গুনছেন, কেননা মনোনয়ন পাওয়ার ওই একটিমাত্র সুযোগই এখন তাদের জন্য অবশিষ্ট আছে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৭ এপ্রিল ২০১৬

Related posts