November 17, 2018

পঞ্চায়েতর ‘রায়’ নারীরা জিনস পরলে একঘরে!

মেয়েরা জিনস পরলে সেই মেয়ের পরিবারকে গ্রামের মধ্যে একঘরে করে দেওয়া হবে। আবার কোনো পরিবার বিয়ে বা অন্য কোনো অনুষ্ঠানে ডিজে মিউজিক বাজায়, তাহলে সেই পরিবারকেও গ্রামের মধ্যে একঘরে করে দেওয়া হবে।

সম্প্রতি এমনটাই নির্দেশনা জারি করেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের বাউলি গ্রাম পঞ্চায়েত।

গ্রামের মেয়েদের ক্ষেত্রে জিনস বা আটসাঁট পোশাক একেবারেই পরা যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছে পঞ্চায়েত। কারণ মেয়েদের আটসাঁট পোশাকের ফলে ধর্ষণ ও মেয়েদের ওপর শ্লীলতাহানির ঘটনা বেড়ে যেতে পারে বলে মনে করা হয়েছে। সেই সঙ্গে ডিজে বাজানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে জানা গেছে, ডিজে মিউজিকের ফলে ছেলেমেয়েদের মধ্যে অবাধ উদ্দামতা বৃদ্ধি পায়। আর সেই উদ্দামতার আড়ালে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। ফলে সেখান থেকে বাড়তে পারে অপরাধ। যে কারণে অনুষ্ঠান বাড়িতে ডিজে বাজানোর ওপরও কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের বাউলি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান স্বামী ওমবীর জানিয়েছেন, গ্রাম পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে মেয়েদের জিনস বা আটসাঁট পোশাক পরার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। একইসঙ্গে বিয়ে বা কোনো অনুষ্ঠানে ডিজে বাজানো যাবে না বলেও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তবে জিনস কিংবা ডিজে বাজানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও বেশ কয়েকটি বিষয়ের ওপর উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই বাউলি গ্রাম পঞ্চায়েত। এর মধ্যে আছে, বিয়েতে যৌতুক নেওয়ার ক্ষেত্রে কড়া নিষেধাজ্ঞা। বিয়েতে কেউ কোনোভাবেই পাত্রী পক্ষের কাছ থেকে যৌতুক নিতে পারবে না বলে এই পঞ্চায়েত নির্দেশনা জারি করেছে। একইসঙ্গে কন্যভ্রুণ হত্যার তীব্র বিরোধিতা করেছে ওই পঞ্চায়েত। কন্যাভ্রুণ হত্যায় কড়া নির্দেশনা জারি করেছে পঞ্চায়েত।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/১১ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts