November 16, 2018

নৌকার প্রচারণায় শিক্ষকরা!

13

এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের জাতীয় বেতন স্কেলের অন্তর্ভুক্ত করায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদের আড়ালে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় নেমেছেন স্থানীয় শিক্ষকরা। তাদের মধ্যে অধিকাংশ শিক্ষই আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রগুলোতে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করবেন বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে এমপিওভুক্ত কয়েকটি স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার অর্ধশতাধিক শিক্ষক বোয়ালমারী পৌর এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় নামেন।

এ সময় শিক্ষকরা ব্যানারসহ মিছিল নিয়ে পৌর এলকারা প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। মিছিলে কারও কারও হাতে ছিল নৌকা প্রতীকের লিফলেট। ব্যানারে লেখা ছিল ‘এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীদের জাতীয় বেতন স্কেলের অন্তর্ভুক্ত করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বোয়ালমারী উপজেলার শিক্ষক ও কর্মচারীদের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ।’ ‘প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে নৌকা প্রতীক বেছে নিন।’ পরে মিছিলটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় ডাকবাংলো চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

এর আগে, বোয়ালমারী ডাকবাংলোতে সংক্ষিপ্ত সভা করেন তারা। সভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী শাহজাহান মীরদাহ পিকুল এবং উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও পৌর এলাকায় অবস্থিত কাজী সিরাজুল ইসলাম মহিলা কলেজের সহকারি অধ্যাপক আলমগীর হোসেন বক্তব্য দেন।

এ সময় বক্তারা আসন্ন পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানান।

এছাড়া গত ৩ ডিসেম্বর পৌর এলাকার ঠাকুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ফরিদপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমানের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হন শিক্ষকরা।

এদিকে, নির্বাচনী প্রচরণায় স্থানীয় সংসদ সদস্যদের বিরত থাকার বিষয়ে কমিশন থেকে ঘোষণা থাকলেও ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর এলাকায় তার ব্যতিক্রম দেখা গেছে। তফসিল ঘোষণার পর থেকেই দলীয় কর্মীদের সঙ্গে প্রচারণায় লিপ্ত রয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান। তবে এক্ষেত্রে তিনি বেশ কৌশলী। সংবাদকর্মীদের দৃষ্টি এড়াতে গভীর রাত ও ভোরে পৌর এলাকার বিভিন্ন মহল্লায় ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন তিনি। সরকারি ডাকবাংলো ব্যবহার করে নির্বাচনে দলীয় কার্যক্রমও চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে রির্টানিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহ. খায়রুজ্জামান জানান, এখন পর্যন্ত ভোটগ্রহন বা ভোটকেন্দ্রের দায়িত্ব কাউকে দেয়া হয়নি। তাই দায়িত্ব প্রদানের আগ পর্যন্ত প্রচারণায় অংশ নেয়া অবৈধ নয়।

নির্বাচন এলাকায় সংসদ সদস্য ব্যক্তিগত কারণে আসা যাওয়া করতে পারেন। তবে এ সময়ে সরকারি ডাকবাংলো ব্যবহারে নিষধাজ্ঞা রয়েছে। আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগগুলোও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বাংলামেইল
দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts