September 25, 2018

‘নুর হোসেন সন্ত্রাসী আর র‍্যাব ১১ ভাড়াটিয়া হিসেবে খাটে’

রফিকুল ইসলাম রফিকঃ নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুইটি মামলা দুুই জন সাক্ষির সাক্ষ্য গ্রহন ও পক্ষের জেরা সম্পন্ন হয়েছে। পরবর্তি সাক্ষ্য গ্রহনের তারিখ ৪ এপ্রিল।

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুইটি মামলা দুুই জন সাক্ষির সাক্ষ্য গ্রহন ও আসামী পক্ষের জেরা সম্পন্ন হয়েছে। পরবর্তি সাক্ষ্য গ্রহনের জন্য ৪ এপ্রিল নির্ধারণ করেছে আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেন এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

সকাল দশটায় নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলা প্রধান আসামী নূর হোসেন, র‌্যাবের চাকুরিচ্যুত তিন কর্মকতা লেফটেনেন্ট কর্ণেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, মেজর আরিফ হোসেন ও লেফটেনেন্ট কমান্ডার এম এম রানাসহ ২৩ আসামীকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। সকাল সাড়ে দশটায় নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম প্রথমে সাক্ষ্য গ্রহন শুরু করেন। পরে নিহত নজরুল ইসলামের সহযোগী শাহ জালালের স্বাক্ষ্য গ্রহন করা হয়। দুইজন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহন শেষে উপস্থিত ২৩ জন ও পলাতক ১২ জন আসামীর পক্ষে আইনজীবীগন জেরা করেন। ( ভিডিও আসার সম্ভাবনা আছে )

নুর হোসেন সন্ত্রাসী আর র‍্যাব ১১ ভাড়াটিয়া হিসেবে খাটে। যারা যারা ৭ খুনে জড়িত সবার নামই বলেছি।আশা করি সবারই শাস্তি হবে। সাক্ষ্য প্রদান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা গুলি বলেন নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ ৭ জনকে অপহরণের তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

রফিকুল ইসলাম রফিক, সিনিয়র রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ। 

Related posts