November 17, 2018

নীলফামারীর সংসদ সদস্য শওকতসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ক্রাইমরিপোর্টারঃ  নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য, জাতীয় পাটির নীলফামারীর সাধারন সম্পাদক বিরোধী দলীয় হুইপ মো. শওকত চৌধুরী ও একটি ব্যাংকের আট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকে এলসি খুলে প্রায় সোয়া ১ কোটি টাকা আত্নসাতের অভিযোগ এনে আজ সোমবার (৯ এপ্রিল) অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও দুদকের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে ঢাকার বংশাল থানায় মামলাটি (মামলা নং-৫) দায়ের করেন।

আসামিরা হলেন- নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও অর্থ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সদস্য,বিরোধীয় দলীয় হুইপ,নীলফামারী জাতীয় পাটির সাধারন সম্পাদক  এবং মেসার্স উদয়ন অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক  শওকত চৌধুরী, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও বংশাল শাখার প্রাক্তন শাখা ব্যবস্থাপক মো. হাবিবুল গনি, একই ব্যাংকের চাকুরিচ্যুত অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান, ফার্স্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার শিরিন নিজামী, প্রাক্তন সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সফিকুল ইসলাম, প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট পানু রঞ্জন দাস, প্রাক্তন ফার্স্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ইখতেখার হোসেন, প্রাক্তন অ্যাসিস্ট্যান্ট অফিসার দেবাশীষ বাউল এবং প্রাক্তন এক্সিকিউটিভ অফিসার ও বর্তমানে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আসজাদুর রহমান।

মামলার এজাহার সুত্রে অভিযোগের বিষয়ে জানা গেছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে মতার অপব্যবহার করে প্রতারণা ও জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের বংশাল শাখা থেকে মেসার্স উদয়ন অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের নামে দুটি এলসি খুলে আমদানিকৃত পণ্যের মূল্য বাবদ ব্যাংকের ৮২ লাখ ৮৯ হাজার ৮৯৫ টাকা তোলেন। যা পরবর্তীতে সুদে-আসলে ১ কোটি ১১ লাখ ৭৮ হাজার ৮৯১ টাকা হয়। ওই টাকা তুলে আত্নসাত করার প্রমাণ দুদকের অনুসন্ধানেও পাওয়া যায়। আসামিরা ২০১২ সাল থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে ওই টাকা তুলে আত্নসাত করেছেন। দুদক দন্ডবিধি ৪০৯/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারা ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

Related posts