November 25, 2017

নিষেধাজ্ঞা শেষে শুরু হচ্ছে জেলেদের মাঝে মাছধরার প্রত্যাশিত উৎসব

index

এ কে আজাদ, চাঁদপুর : প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষার ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে আজ থেকে মুক্ত হচ্ছে চাঁদপুরের পদ্মা- মেঘনা। শুরু হবে জেলেদের মাঝে মাছধরার প্রত্যাশিত উৎসব। জালে ধরা পড়বে কাঙ্খিত রূপালি ইলিশ, আবারো সরগরম হয়ে উঠেবে জেলেপাড়া গুলো। দূরদূরান্ত থেকে ক্রেতারা ইলিশের বাড়ী চাঁদপুরে আসবে তাজা ইলিশ কিনতে। আবারো ইলিশ ক্রেতাদের ভিড়ে মুখরিত হয়ে উঠবে দেশের সর্ববৃহত ইলিশের আড়ৎ চাঁদপুর। টানা ২২ দিন বিরতির পর ২২ অক্টোবর দিবাগত রাত ১২ টা থেকে জেলেরা নৌকা আর জাল নিয়ে নদীতে নামতে শুরু করবে। পদ্ম-মেঘনায় জেলেদের মাছ ধরার উৎসব লক্ষ্য করা যাবে। নদীর পুরো বুক জুড়ে শুধু জেলে আর নৌকা দেখা গেছে। চাঁদপুর সদর উপজেলার বহরিয়া বাজার ও হরিণা ফেরিঘাট, লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নের দোকানঘর, তরপুরচন্ডী ইউনিয়নের আনন্দ বাজার, পৌর এলাকার পুরান বাজার, হাইমচর, রাজরাজেশ^র উইনিয়নের জেলে পাড়ায় ঘুরে দেখা গেছে জেলেরা জালনিয়ে নদীতে নামার প্রস্তুতী নিচ্ছে। জেলেদের মাঝে আরো একটু বাড়তি আনন্দ জুগিয়েছে দেরিতে হলেও ২২দিনের নিষেধাজ্ঞার সরকারি পাওনাটা ২০ কেজী করে খাদ্য সহায়তার চাল পেতে শুরু করেছে তারা। ইতমধ্যে অনেক এলাকার নিবন্ধিত জেলেরা তাদের খাদ্য সহায়তার চাল নিয়েও গেছেন। চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমিতির সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান কালু ভূইয়া বলেন, অভিযানের আগে নদীতে যে পরিমান ইলিশ ধরা পরেছে আশা করছি অভিযান শেষেও এই রকম ইলিশ ধরা পরবে। তিনি আরো বলেন, গত কয়েক বছর যাবত ইলিশ প্রজন মৌসুমে অভিযান সফল হওয়ায় মা ইলিশ নদীতে প্রচুর ডিম ছাড়তে পেরেছে। এই জন্য এ বছর প্রচুর পরিমান ইলিশ ধরা পরেছে জেলেদের জালে। এ বছরের ২২দিনের নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে আজ থেকে। আমরা আশা করছি জেলেদের জালে কাঙ্খিত ইলিশ ধরা পরবে। গত ১ অক্টোবর থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন চাঁদপুরের মেঘনা নদীর ষাটনল থেকে শুরু করে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার এলাকায় অভয়শ্রম এলাকা হিসেবে সব ধরনের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ ছিল।

Related posts