September 21, 2018

নিউ ব্রান্সউইক প্রদেশে বাংলাদেশের বাণিজ্য ও শিক্ষার বিপুল সম্ভাবনা


সদেরা সুজন সিবিএনএ কানাডা:  উত্তর আমেরিকার অন্যতম অগ্রসরমান দেশ হিসেবে কানাডার অর্থনীতি যেমন বিশাল ঠিক তেমনি দেশটির বিভিন্ন প্রদেশের রয়েছে স্বাতন্ত্র্য এবং ভিন্ন ভিন্ন অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্ব। তেমনি এক সম্ভাবনাময় প্রদেশ নিউ ব্রান্সউই্কে  গত ৫-৭ এপ্রিল দু-দিন ব্যপী এক সরকারী সফর করেন কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের  হাই কমিশনার কামরুল আহসান। ৬ই এপ্রিল প্রদেশের লেফটেন্যান্ট গভর্ণর জোসলিন রয় ভিনোর সাথে সাক্ষাৎকালে কানাডা ও বাংলাদেশের পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় আলোচিত হয়। বাংলাদেশের হাই কমিশনারকে নিউ ব্রান্সউইকের রাজধানী ফ্রেডরিকটনে স্বাগত জানিয়ে লেফটেন্যান্ট গভর্ণর বলেন, কানাডা বাংলাদেশের সাথে তার কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ককে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে দেখে।

তিনি বলেন, কানাডার অন্যান্য প্রদেশের মতো নিউ ব্রান্সউইকের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কমিউনিটি কলেজগুলোতে ব্যাপক হারে বাংলাদেশী ছাত্র এবং উচ্চশিক্ষা প্রত্যাশী বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষক ও গবেষকদের আসার সুযোগ রয়েছে। এ প্রস্তাবের জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়ে হাই কমিশনার বলেন বাংলাদশী ছাত্র-শিক্ষক-গবেষকগণ কানাডার এ প্রদেশে আসার জন্য যথেষ্ট আগ্রহী। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্ষেত্রে সমস্যা না হলেও পলিটেকনিক ও কমিউনিটি কলেজগুলোতে ভর্তির জন্য নির্বাচিত ছাত্রদের ভিসা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে প্রায়শঃই জটিলতা দেখা দেয়, যার অবসান হওয়া প্রয়োজন। এ বিষয়ে তিনি লেফটেন্যান্ট গভর্ণরের সহযোগিতা কামনা করেন। জবাবে লেফটেন্যান্ট গভর্ণর বিষয়টি কানাডার ফেডারেল সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর কাছে উত্থাপনের প্রতিশ্রুতি দেন

এরপর হাই কমিশনার কামরুল আহসান প্রাদেশিক আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রী স্টিভেন হর্সম্যান; অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী রিক ড্যুসেট; উচ্চশিক্ষা-প্রশিক্ষণ ও শ্রম বিষয়ক ফ্রান্সিন ল্যান্ড্রী; শিক্ষা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী ও এ্যাটর্ণী জেনারেল সার্জ রৌসেল কিউ.সি.; এবং জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক মন্ত্রী ডোনাল্ড আর্সেনোল্ট এর সাথে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে কানাডা-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারকরণের তাঁরা উভয় দেশের মধ্যে আরও অধিক হারে বাণিজ্য সম্প্রসারণ এবং প্রযুক্তি হস্তান্তরের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

সফরকালে নিউ ব্রান্সউইক লেজিসলেটিভ এ্যাসেম্বলীর স্পীকার ক্রিস্টোফার মাইকেল কলিন্স বাংলাদেশের হাই কমিশনারের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। এ বছরের শেষ প্রান্তিকে বাংলাদেশে অনুষ্ঠেয় কমনওয়েলথ্ পার্লামেন্টারী এসোসিয়েশনের স্পীকারদের  সম্মেলন যোগ দিতে তিনি ঢাকা সফরে করবেন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের হাই কমিশনারের এ সফর উপলক্ষ্যে নিউ ব্রান্সউইক লেজিসলেটিভ এ্যাসেম্বলী ভবনের সামনে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়।

সফরেরর এ পর্যায়ে নিউ ব্রান্সউইকের সুপরিচিত ভৌগলিক অবস্থান বিষয়ক সফটওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘ক্যারিস’ এর চীফ বিসনেস ডেভলপমেন্ট অফিসার এ্যান্ডি বোগার্ট এবং ক্ষুদ্র জলবিদ্যুত প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘এনোভেক্সকর্প’ এর সিইও স্কট ওয়াল্টন নিউ ব্রান্সউইক সরকারের গভর্ণমেন্ট রিলেশন্স বিভাগের কার্যালয়ে বাংলাদেশ হাই কমিশনারের উদ্দ্যেশ্যে তাদের স্ব-স্ব কোম্পানীর কার্যক্রমের বিষয় উপস্থাপন করে। উভয় প্রেজেন্টেশনের সময়ই নিউ ব্রান্সউইক সরকারের ডেপুটি চীফ অব প্রটোকল ডরিন এ্যালবার্ট উপস্থিত ছিলেন।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/০৯ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts