November 16, 2018

নিউইয়র্কে বর্ষবরণে ইলিশ আর কালিজিরা চালের মূল্য হ্রাস

নিউইয়র্ক : ইলিশের মূল্যহ্রাস ঘটানোয় স্বস্তি এসেছে প্রবাসে।

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বিশেষ সংবাদদাতাঃ  বাংলা নতুন বছরকে বরণের আমেজ বাঙালি স্টাইলে পরিপূর্ণ করার অভিপ্রায়ে নিউইয়র্কে ইলিশের দাম কমানো হয়েছে। একইসাথে নওগাঁ থেকে সরাসরি আমদানিকৃত কালিজিরা এবং কাটারিভোগ চালের দামও হ্রাস করা হয়েছে। ‘এই চালের ভাত পান্তা করে ইলিশ ভাজি আর ভর্তা দিয়ে খাবার মজাই আলাদা’-এ মন্তব্য করেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশী মালিকানাধীন সর্ববৃহৎ চেইন স্টোর ‘মান্নান সুপার মার্কেট’র মালিক সাঈদ মান্নান। বাংলাদেশ সরকারের অনুমোদনক্রমে নওগাঁয় গিয়ে সরাসরি কৃষকের কাছে থেকে তিনিই কালিজিরা চাল আমদানী করেছেন। নিউইয়র্কে এনে সেগুলো বাজারজাত করেছেন ‘মান্নান কালিজিরা চাল’ হিসেবে। ৮ পাউন্ড এবং ২০ পাউন্ডের প্যাকেট তৈরী করে তা হ্রাসকৃত মূল্যে বিক্রি করছেন বলে জানালেন এ সংবাদদাতাকে।

নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে ‘মান্নান সুপার মার্কেট’-এ ১০ এপ্রিল দেখা গেল যে, দেড় থেকে দুই কেজি ওজনের ইলিশ মাছের দাম ধার্য করা হয়েছে ১২.৯৯ ডলার। কদিন আগেও এর দাম ছিল ১৬.৯৯ ডলার করে। অর্থাৎ প্রতি ইলিশের দাম ছিল ১৩৬০ টাকা করে। কমিয়ে ১০৪০ টাকা করা হয়েছে। একইভাবে ১২০০ থেকে ১৫০০ গ্রামের ইলিশের দাম ১০৪০ টাকা থেকে কমিয়ে ৮০০ টাকা, ৫০০ থেকে ৮০০ গ্রামের ইলিশ ৪৮০ টাকা থেকে কমিয়ে ৪০০ টাকা এবং ৩০০ থেকে ৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের মূল্য ৪০০ টাকা থেকে ৩২০ টাকা করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে সাঈদ মান্নান বলেন, ‘প্রচুর ইলিশ রয়েছে আমার কাছে। তাই প্রবাসীদের মধ্যে পয়লা বৈশাখে পান্তা-ইলিশের কোন সংকটই হবে না। প্রবাসীদের সুবিধার্থে ইলিশের মূল্য কমিয়েছি।’

সাঈদ মান্নান বলেন, ‘নির্ভেজাল কালিজিরা এবং কাটারিভোগ চাল আমদানি করেছি সরাসরি নওগাঁ থেকে। বাঙালি যাতে শেকড়ের স্বাদে পয়লা বৈশাখে পান্তা-ইলিশ খেতে পারেন সেদিকে খেয়াল রেখে ৮ পাউন্ড ওজনের ‘মান্নান কালিজিরা’ চালের মূল্য ১০ ডলার থেকে কমিয়ে ৬.৯৯ ডলার করেছি। ২০ পাউন্ড ওজনের ‘মান্নান কাটারিভোগ’র মূল্য ২২.৯৯ ডলার থেকে কমিয়ে ১৬.৯৯ ডলার করেছি।’ সাঈদ মান্নান উল্লেখ করেন, ‘একমাস আগে ৩০০ মেট্রিক টন চাল বাংলাদেশ থেকে নিউইয়র্কে আনার অনুমতি পেয়েছি। সেগুলো নওগাঁ থেকে এনে ‘মান্নান কালিজিরা’ অথবা ‘মান্নান কাটারিভোগ’ হিসেবে বিক্রি করছি।

নিউইয়র্ক সিটির বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকায়  সুপার মার্কেট’-এ এসব চাল বিক্রি হচ্ছে। বাংলা নতুন বছরকে বাঙালি আমেজে বরণের জন্যে নিউইয়র্কসহ সমগ্র আমেরিকায় ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। প্রায় সবগুলো আয়োজনের মধ্যমণি হচ্ছে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে শোভাযাত্রার পাশাপাশি শানকিকে পান্তা-ইলিশ পরিবেশনা। সবচেয়ে বড় এবং ব্যয়বহুল অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি চলছে নিউইয়র্কে। জ্যাকসন হাইটস, এস্টোরিয়া, জ্যামাইকা, ব্রুকলীনের চার্চ-ম্যাকডোনাল্ড এবং ব্রঙ্কসের পার্কচেস্টার এলাকায় কয়েক হাজার বাঙালির সমাগমে পান্তা-ইলিশ বিতরণের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। সাথে থাকবে বাংলা বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে আলোচনা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

Related posts