September 20, 2018

না.গঞ্জে এবার প্রধান শিক্ষককে জুতাপেটা

নারায়ণগঞ্জ

রফিকুল ইসলাম রফিক
নারায়নগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  এবার নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জ উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্রের ‘আল আমীন মডেল একাডেমীর’ প্রধান শিক্ষক ফারুক আহমেদকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত বিউটি আক্তার কুট্টি কায়েতপাড়া ইউয়িনের ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে সংরক্ষতি নারী আসনে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সদস্য নির্বাচিত হন।

ভুক্তভোগী স্বাক্ষরিত অভিযোগপত্রে জানা যায়, ‘গত ২৯ মে সকাল সাড়ে ১০টায় ইউপি সদস্য কুট্টি তাহার দুই নাতনীকে সম্পূর্ণ বিনা বেতনে পড়ালেখার জন্য তাকে চাপ দেয়। যার প্রেক্ষিতে বিদ্যালয়ের সভাপতির অনুরোধে বিদ্যালয়ের বেতন মওকুফ করিয়ে দিলেও কুট্টি সন্তুষ্ট না হয়ে কোচিংসহ বেতনে ছাড়া পড়াতে চাপ প্রয়োগ করে। দাবি অনুযায়ী কোচিং ফি মওকুফ না করলে তাঁকে গালাগাল ও জুতাপেটা করে। তারপর স্কুলের দুই সহকারী শিক্ষিকা তাকে জোর করে রুমের বাহিরে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে তার (বিউটির) বড় ভাই, মেয়ে জামাই ও তার সন্তাসী মাদক বাহিনীসহ ২০ থেকে ২৫ জন লোক এসে রুমের আসবাবপত্র ও বইপত্র ফেলে দেয়। এবং শিক্ষককে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

কাউন্সিলর বিউটির শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের মানববন্ধন
বৃহস্পতিবার (২ জুন) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া নারায়নগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টির শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ভুক্তভোগী প্রধান শিক্ষক ফারুক আহমেদসহ স্কুলের অন্য শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা বিউটি আক্তার কুট্টির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, আল-আমিন মডেল একাডেমীর সহকারী শিক্ষক ফরাদ হোসেন, কাউছার আহমেদ, খাদিজা, জায়েদা, ইয়াসমিন আক্তার, শরিফা সহ স্কুলের প্রায় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থীরা।

সংবাদ না করার জন্য জাতীয় পার্টির নেতার অনুরোধ
এদিকে মানববন্ধন চলাকালীন সময়ে নিজেকে রুপগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দাবি করে এম এ হাসান সংবাদিকদের সংবাদ না প্রকাশের জন্য অনুরোধ করেন। এছাড়াও অভিযুক্ত বিউটি আক্তার কুট্টিকে আত্মীয় সম্পর্কে বোন দাবি করেন। তিনি শিক্ষক ফারুক আহমেদের সঙ্গে বিউটির বাকবিতন্ডার ঘটনা স্বীকার করলেও লাঞ্ছনার বিষয়টি অস্বীকার করে শিক্ষককে জামায়াতের কর্মী দাবি করেন। তাছাড়া জাপা নেতা হাসানকে নিজের খালাতো ভাই হিসেবে পরিচয় দিয়ে কুট্টি জানান, তাদের মামলা সংক্রান্ত বিষয়গুলো পরিচালনায় হাসান সহযোগিতা করেন।

এবিষয়ে কাউন্সিলর বিউটি আক্তার কুট্টি জুতাপেটার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করে বলেন, ‘ওই শিক্ষক জামায়াতের কর্মী। তিনি অবৈধভাবে স্কুলে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে ১২০ টাকার স্কুলের বেতন ১৬০ টাকা করেছেন এবং ৫ম শ্রেণীর ২৫০ টাকার বেতন ৫০০ টাকা করেছেন।

এনিয়ে স্থানীয় কয়েকজন অভিভাবক অভিযোগ করলে তার প্রেক্ষিতে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে অনুরোধ করি। তার পরবর্তীতে ওই দিন স্কুলের বেতন ও কোচিং ফি’র জন্য ওই স্কুলের ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী বর্ষা নামে আমরা নাতনীকে বের করে দেয়। এ নিয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ফারুক আহমেদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে ওই শিক্ষক আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। যার প্রেক্ষিতে আমি ওই শিক্ষকে জুতাপেটা করব বলি। তবে আমি তাকে জুতাপেটা করি নাই।’

বিউটি আক্তার কুট্টি আরো বলেন, ‘আমার কোন টাকার অভাব নেই। তাহলে আমি কেন আমার নাতনীকে বিনা বেতনে পড়াতে বলব। এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে স্কুলের বেতন কমানোর জন্য অনুরোধ করি। এছাড়াও স্কুলের শিক্ষার্থীদের পিকনিকের কথা বলে মানববন্ধনের জন্য নিয়ে গেছে। এ বিষয়ে অভিভাবকদেরও কিছু বলে নিয়ে যায়নি।’

তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি রোববার প্রতিবেদন
এ বিষয়ে রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারহানা ইসলাম বলেন, ‘এমন একটি অভিযোগ আমি পেয়েছি। যার প্রেক্ষিতে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) এসএম মাহফুজুর রহমানকে প্রধান করে উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও এ বিষয়ে স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তারা আগামী রোববার তদন্ত রির্পোট জমা দিবেন।

৪ জুন নির্বাচন তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়নি পাঁচ দিনেও
রূপগঞ্জ উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) এসএম মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘গত বুধবার পর্যন্ত ট্রেনিংয়ে থাকায় ও আগামী ৪ জুন বন্দর উপজেলায় ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে দায়িত্ব পালনের কারণে শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় কোনো তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়নি। নির্বাচনের পরে এ নিয়ে তদন্ত করা হবে।’

প্রসঙ্গত, গত ১৩ মে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি এবং শিক্ষার্থীকে মারধর করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের কলাগাছিয়া ইউনিয়নের কল্যান্দির পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে গণপিটুনি দেয়ার পর কান ধরে উঠবস করানো হয়।

Related posts