September 21, 2018

না খেয়ে মারা যাই মালয়েশিয়ায় বন্দী বাংলাদেশিরা !

মালয়েশিয়ার বিভিন্ন বন্দী শিবির ও কারাগারে ৪ হাজারের বেশি বাংলাদেশি মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন বলে হাই কমিশন সূত্রে জানা গেছে।

দেশটির ১২টি বন্দী শিবিরেই ১ হাজার ৭২৩ জন আর বিভিন্ন কারাগারে সাজা ভোগ করছেন ১ হাজার ৯২৭ জন বাংলাদেশি।

সূত্র জানায়, সিমুনিয়া ক্যাম্পে ১৩২, লেঙ্গিং ক্যাম্পে ২৩৬, লাঙ্গ ক্যাম্পে ২৫০, জুরুত ক্যাম্পে ৫৬, তানাহ মেরায় ক্যাম্পে ৪৮, মাচাপ উম্বু ক্যাম্পে ১৭৯, পেকা নানাস ক্যাম্পে ১২০, আজিল ক্যাম্পে ১২৬, কেএলআইএ সেপাং ডিপো ক্যাম্পে ৮১, ব্লান্তিক ক্যাম্পে ১১৩, বুকিত জলিল ক্যাম্পে ২৩৪ ও পুত্রজায়া ক্যাম্পে ১৮০ জন বাংলাদেশি আটক আছেন।

মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন পুলিশের উপ-সহকারী পরিচালক জোসামি মাস্তান বলেন, বিভিন্ন কারাগার ও ক্যাম্পে যারা আটক আছেন, তাদের বেশির ভাগই অবৈধভাবে মালয়েশিয়ায় প্রবেশ কিংবা অবৈধভাবে থাকার কারণে গ্রেফতার হয়েছেন। আটকদের বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ার অভিবাসন আইন, ১৯৫৯-এর ধারা ৬(১) সি/১৫ (১) সি এবং পাসপোর্ট আইন, ১৯৬৬-এর ১২(১) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

সাজা খেটে দেশে ফেরা বাংলাদেশিদের অনেকে অভিযোগ করেছেন, ক্যাম্পগুলোতে প্রায়ই বাংলাদেশিদের ওপর নির্যাতন করা হয়। এমনকি কেউ কেউ ক্যাম্পেও মারা যান। অনেক সময় ঠিকমতো খাবার দেয়া হয় না।

দীর্ঘদিন জেলে বা ক্যাম্পে থাকলেও হাই কমিশনের পক্ষ থেকে তাদের দেশে ফেরত নেয়ার কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি বলেও জানান তারা।

এদিকে হাই কমিশনের কাউন্সিলার (শ্রম) সায়েদুল ইসলাম জানান, বন্দী শিবিরে যারা আটক রয়েছেন তাদেরকে দ্রুত দেশে পাঠানোর সবরকম ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে দূতাবাসের শ্রম শাখার সচিবরা প্রত্যেকটি বন্দী শিবির পরিদর্শন করে বাংলাদেশিদের শনাক্ত করে পর্যায়ক্রমে তাদের দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছেন।

জহুর প্রদেশ বাংলাদেশি কমিউনিটির সভাপতি তরিকুল ইসলাম রবিন, সহ-সভাপতি ফাহিম, সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম আমিন সোমবার এ প্রতিবেদককে বলেন, জহুর কমিউনিটি প্রবাসীদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। জহুর বারু পেকানানাস বন্দী শিবিরে যেসব বাংলাদেশি বন্দী টাকার অভাবে দেশে যেতে পারছেন না তাদের মধ্যে ৭০ জনকে হাই কমিশনের মাধ্যমে দেশে পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই তাদের দেশে পাঠানো হবে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts