September 23, 2018

৭ খুনের মামলার বাদীর সাক্ষ্য গ্রহণ; জেরা ও অন্য মামলার সাক্ষ্যের দিন ধার্য্য

রফিকুল ইসলাম রফিকঃ নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুইটি মামলার মধ্যে একটি মামলার বাদীর সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। অপর মামলার বাদীর সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৩ মার্চ দিন ধার্য্য করেছে আদালত। ডা. বিজয় কুমার পালকে আগামী ৭ মার্চ জেরা করবে তিনজন আসামী পক্ষের আইনজীবী। এ সময় প্রধান আসামী নুর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক কর্মকর্তাসহ ২৩ আসামী আদালতে হাজির ছিল।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৭ খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুইটি মামলার প্রধান আসামী নুর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক কর্মকর্তাসহ ২৩ আসামীকে হাজির করা হয়। পরে সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার গাড়ির চালক ইব্রাহিম হত্যার ঘটনায় তার মেয়ের জামাতা মামলার বাদী বিজয় কুমার পাল সাক্ষ্য প্রদান শুরু করেন। মামলার এজাহার পাঠ করে শুনানোর পর উপস্থিত ২৩ আসামীর মধ্যে ২০ জন এবং পলাতক ২ জন আসামীর আইনজীবী বাদীকে জেরা করেন। উপস্থিত তিন আসমীর আইনজীবী জেলার জন্য সময়ের আবেদন করেন। দুপুর সোয়া একটায় বিচারক আদালত মুলতবি করে অপর মামলার বাদী সেলিনা ইসলাম বিউটির সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৩ মার্চ দিন ধার্য্য করেন। আদালতে সাক্ষ্য গ্রহন শুরু হলে পাবলিক প্রসিকিউটর ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ওয়াজেদ আলী খোকন এবং এডভোকেট খোকন সাহা সংবাদ কর্মীদের বের করে দেন।

মামলার বিচার কার্য বিলম্বিত করার জন্যই একটি মহল ইচ্ছাকৃতভাবে সময় প্রার্থনা করেন অভিযোগ করে বাদী পক্ষের আইনজীবী বলেন, মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেন, র‌্যাবের চাকরীচূত কর্মকর্তা লে. কর্ণেল তারেক মোহাম্মদ সাঈদ ও লে. কমান্ডার এম এম রানার আইনজীবীরা জেরার জন্য সময়ের আবেদন করলে আদালত আগামী ৭ মার্চ দিন ধায্য করেন। এজন্য মিডিয়াকর্মীদেরও বের করে দেয়া হয়।
সট: সাখাওয়াত হোসেন, মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী। (দাড়ানো)

সাক্ষ্য গ্রহন ও জেরা শেষে আদালত থেকে বেরিয়ে মামলার বাদী ডা. বিজয় কুমার পাল হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচার দাবী করে বলেন, তিনি হত্যার বিষয়টি আদালতে তুলে ধরেছেন।

ভিডিওঃ ডা. বিজয় কুমার পালের বক্তব্য 

এডভোকেট ফরহাদ আব্বাস আসামী এম এম রানার জন্য সময় প্রার্থনা করে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা জানালে আদালত সময়ের আবেদন না মঞ্জুর করার ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারী ৭ খুনের দুটি মামলায় নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ২৩ আসামীর উপস্থিতিতে আদালত অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য গ্রহণের দিন নির্ধারন করেন ২৫ ফেব্রুয়ারী। তবে র‌্যাবের ৮ সদস্যসহ পলাতক ১২ আসামীর অনুপস্থিতিতেই বিচার কার্য শুরু হয়। পলাতক ১২ আসামীর পক্ষে রাষ্ট্রপক্ষের খরচে ৫ আইনজীবীকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর আগে গত বছরের ৮ এপ্রিল মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ৩৫ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। #

রফিকুল ইসলাম রফিক
নারায়ণগঞ্জ
তাং ২৯-০২-২০১৬

Related posts