November 20, 2018

নারায়ণগঞ্জের ৮টিতে আ.লীগ, ২টিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী ও ১টিতে বিএনপি

রফিকুল ইসলাম রফিক,নারায়ণগঞ্জঃ নারায়ণগঞ্জের সদর ও রূপগঞ্জ উপজেলায় ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৮টিতে আওয়ামীলীগ, ২টিতে স্বতন্ত্রপ্রার্থী ও ১টিতে বিএনপি প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।
সদরের রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রশিদ মিয়া বেসরকারী ফলাফল ঘোষণা করেন।

সদর উপজলার ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে একটি ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামীলীগের নৌকা সমর্থিত প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। অপর দু’টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। তিনটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আগেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীরা। সদর উপজেলার এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যন পদে নৌকা প্রতীকে আসাদুজ্জামান ২৯ হাজার ৬০ ভোট পেয়ে বেসরকারী ফলাফলে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্দ্বী ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুস সালাম পেয়েছেন ৪ হাজার ৬১১ ভোট। তৃতীয় হয়েছে নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেয়া বিএনপির ধানের শীষের একমাত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট মাহমুদুল হক আলমগীর ৪ হাজার ২৮৮ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন।

কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বর্তমান চেয়ারম্যান ও সম্প্রতি বিএনপি থেকে বহিস্কৃত) মনিরুল আলম সেন্টু ৪২ হাজার ৯০৩ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদন্দ্বী নৌকা প্রতীকের আওয়ামীলীগ প্রার্থী গোলাম রসুল শিকদার পেয়েছেন ১০ হাজার ৯৮৭ ভোট।

গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বর্তমান চেয়ারম্যান) নওশেদ আলী ৭ হাজার ৪৪১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদন্দ্বী নৌকা প্রতীকের আওয়ামীলীগ প্রার্থী জসিমউদ্দিন পেয়েছেন ৫ হাজার ২৭১ ভোট।

সদর উপজেলার কাশিপুরে এম সাইফউল্লাহ বাদল (ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি), বক্তাবলীতে শওকত আলী (ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক), ও আলীরটেকে মতিউর রহমান মতি নৌকা প্রতীকে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন বেসরকারী ফলাফল ঘোষণা করেন। ভুলতা ইউপিতে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী আরিফুল হক ভুইয়া ১৪ হাজার ৮২০ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে বিজয়ী হয়েছেন, তার প্রতিদ্বন্ধি বিএনপি মনোনিত প্রার্থী আব্বাস উদ্দিন ভুইয়া পেয়েছেন ৪ হাজার ৪১৩ ভোট।

গোলাকান্দাইল ইউপিতে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী মনজুর হোসেন ভুইয়া ১২ হাজার ৩৮৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার প্রতিদ্বন্ধি ফারুক হাসান পেয়েছেন ৭ হাজার ৫১০ ভোট।
মুড়াপাড়া ইউপিতে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী তোফায়েল আহাম্মেদ আলমাছ ৮ হাজার ৭৮৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার প্রতিদ্বন্ধি আব্দুল জাব্বার পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৫০।
ভোলাব ইউপিতে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী আলী হোসেন টিটু ৯ হাজার ৬৭৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার প্রতিদ্বন্ধি আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী আবুল হোসেন খাঁন পেয়েছেন ৯ হাজার ২৩ ভোট।

এর আগে, কায়েতপাড়া ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় রফিকুল ইসলাম রফিককে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন পরবর্তি সহিংসতা:
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দুই মেম্বার সর্মথক ও পুলিশের সঙ্গে ত্রিমুখী সংঘর্ষ; এক বিজিবি সদস্য গুলিবিদ্ধ; পুলিশের ৩টি মাইক্রোবাসে আগুন; আহত ৩০

নারায়নগঞ্জের রূপগঞ্জের ভোলাব ইউনিয়নের চারিতালুক কেন্দ্রে ভোট গননাকে কেন্দ্র করে দুই মেম্বার সর্মথক ও পুলিশের সঙ্গে ত্রিমুখী সংঘর্ষ হয়। এ সময় তারা পুলিশের তিনটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন আনতে কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ ও ফাঁকা গুলি ছোড়ে। সংঘর্ষের সময় আইনশৃঙ্খলার রক্ষার দায়িত্বে থাকা এক বিজিবি সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায় আজ রাতে ভোট গণনার সময় ভোলাবো ইউনিয়নের চারিতালুক কেন্দ্রে হজরত আলী এবং ফারুক মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে এবং তারা প্রিজাইডিং অফিসারকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গেও তাদের সংঘর্ষ বাঁধে। এক পর্যায়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ ও ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এ সময় বিক্ষুব্ধ সমর্থকরাও পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫নং ওয়ার্ডের হযরত আলী (মোরগ প্রতিক) ও তার প্রতিদ্বন্ধি ফারুক মিয়া (টিউবঅয়েল প্রতিক) নিয়ে নিবার্চন করেন। সন্ধ্যায় ভোট গননার পর ফারুক মিয়া  ৫ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছে বলে ঘোষণা করা হয়। এসময় প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী হযরত আলী তিনি ৫ ভোট বেশি পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন বলে দাবি করেন। এর পর প্রার্থীর অভিযোগের ভিত্তিত্বে আরো বেশ কয়েকবার ভোট গননা করা হয়। এক পর্যায়ে উভয় প্রার্থীর সমর্থকরা চালিতালুক এলাকায় মুখোমুখী অবস্থান নেন। এসময় হযরত আলীর সমর্থকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করে ভোট বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায়। এছাড়া তারা প্রিজাইডিং অফিসার মনিরুজ্জামানসহ উপস্থিত আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের অবরোদ্ধ করে রাখে। এরপর দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বেঁধে যায়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক শতাধীক রাউন্ড গুলি বর্ষন করেন।

আতলাপুর-ছনপাড়া সড়কের বিভিন্ন স্থানে গাছের গুড়ি ফেলে অবরোধ করে রাখে তারা। বিক্ষুব্ধরা সড়কের আগুন ধরিয়ে দেয়।  সংঘর্ষে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। তাৎক্ষনিক ভাবে আহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। আহতদের মধ্যে কয়েক জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এদিকে, উভয় প্রার্থীর সমর্থকরা পুলিশের ব্যবহৃত দুটি লেগুনা ও একটি মাইক্রোবাসে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে কা ন ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট আগুন নেভাতে সক্ষম হন। ততক্ষনে লেগুনা ও মাইক্রোবাস পুড়ে ছাই হয়ে যায়। পরে অতিরিক্ত আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং অবরোদ্ধ অবস্থায় প্রিজাইডিং অফিসারসহ সকলকে উদ্ধার করেন। যে কোন সময় আবারো উভয় পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর (ওসি/তদন্ত) এবিএম মেহেদী মাসুদ বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

ঘটনাস্থল অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এর আগে, সকাল ৮টা থেকে ৫ ইউপিতে ভোট গ্রহন শুরু হয়। উপজেলার ভুলতা, গোলাকান্দাইল, মুড়াপাড়া, কায়েতপাড়া ও ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।  নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিজয়ী হয়েছেন, ভুলতা ইউপিতে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ব্যারিষ্টার আরিফুল হক ভুইয়া, গোলাকান্দাইলে মনজুর হোসেন ভুইয়া, মুড়াপাড়ায় তোফায়েল আহাম্মেদ আলমাছ ও ভোলাবতে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী আলমগীর হোসেন টিটু। এছাড়া কায়েতপাড়া ইউনিয়নের পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে কোন প্রতিদ্বন্ধি না থাকায় আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম রফিককে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার ওমর ফারুক জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিপুল পরিমান র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, আনসারসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতিতে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়াই শান্তিপুর্ন ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া জানান, বিক্ষুব্ধ পুলিশের ব্যবহৃত একটি পিকাপ ভ্যান এবং দুইটি মাইক্রোবাস আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৪ এপ্রিল ২০১৬

Related posts