September 22, 2018

নানা জল্পনাঃ আগামী নির্বাচন প্রশ্নে কী সিদ্ধান্ত নেবেন খালেদা?

ঢাকাঃ সিদ্ধান্তটি আগেও সহজ ছিল না। এখন আরো কঠিন। ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি’র অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক না ভুল ছিল তা নিয়ে রাজনীতিতে নানা বিশ্লেষণ। নানা মত। হলফ করে বলা যে কারও জন্যই কঠিন। তবে নির্বাচনের প্রশ্নটি শেষ হয়ে যায়নি। সংবিধান মোতাবেক আগামী নির্বাচনের আরো আড়াই বছর বাকি। চাপান উতোর রয়েছে হিসাব মিললে এর আগেও নির্বাচন হতে পারে। যখনই হোক না কেন নির্বাচন একটা হবে। কেমন হবে সে নির্বাচন? ভোটযুদ্ধে কি অংশ নিবে বিএনপি?

সূত্রের আভাস, এরই মধ্যে বিএনপিতে এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। কিছু বিষয় এখনই নিশ্চিত। আগামী নির্বাচনটিও ক্ষমতাসীন দলকে ক্ষমতায় রেখেই হবে। যে ধরনের ব্যবস্থায় নির্বাচনে অংশ না নেয়ার পক্ষে আগে অনড় অবস্থান ছিল বিএনপি’র। প্রায় তিন বছর আগে বিএনপি যখন তত্ত্বাবধায়ক ছাড়া ভোটে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তখন বাস্তবতা ছিল একরকম। বিএনপি’র হাই-কমান্ড আশাবাদী ছিল দ্রুতই অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচন আদায় করা সম্ভব হবে। রাজপথের আন্দোলনে সফল হয়নি বিএনপি। দলটি দলনিরপেক্ষ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন আদায় করতে পারবে- এমনটা এখন আর কেউ মনে করেন না। আন্তর্জাতিক রাজনীতিও বদলায়নি। এই যখন অবস্থা তখন চলছে নানা হিসাব। আগামী নির্বাচনের আগে কী কী হতে পারে তার হিসাব মেলানোর চেষ্টা চলছে। বিএনপি’র দ্বিতীয় প্রধান নেতা তারেক রহমান সামনের নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না। অর্থ পাচারের মামলায় এরই মধ্যে হাইকোর্টে দণ্ডিত হয়েছেন তিনি। তার বিরুদ্ধে ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলারও রায় সহসাই ঘোষণা করা হতে পারে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুই ডজন মামলা থাকলেও অন্তত দু’টি মামলা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এ দুই মামলাতে সিদ্ধান্তে আসতে বেশি বিলম্ব নাও হতে পারে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী নয় মাস সময়ের কথা বলেছেন। তিনি কোথা থেকে তা বলেছেন কে জানে?

বিএনপি’র ভেতরেও আগামী নির্বাচন নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে। ঘুরপাক খাচ্ছে বেশ কিছু প্রশ্ন। রাজনৈতিক সরকারের অধীনে কি বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে? পর্যবেক্ষকদের ধারণা, এক্ষেত্রে বিএনপি’র সামনে বিকল্প কম। দলটির নেতারা মনে করেন, বিএনপি কোনো বিপ্লবী রাজনৈতিক দল নয়। ক্ষমতায় যেতে হলে বিএনপিকে নির্বাচনের মাধ্যমেই যেতে হবে। এক্ষেত্রে বিগত নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত ভুল-শুদ্ধ যাই হোক না কেন আখেরে দলের কোনো লাভ হয়নি। সে সময় প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ আহ্বানে যোগ না দেয়া যে ভুল ছিল তা অনেকেই স্বীকার করেন। দলের একটি মহলের সেই সময়কার অবস্থান প্রশ্নবিদ্ধ। যে প্রশ্ন এখনও রয়ে গেছে। তারেক রহমানের পর খালেদা জিয়াসহ শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কিছু নেতা যদি নির্বাচনে অযোগ্য হন তবে কি সিদ্ধান্ত নিবে বিএনপি। এটিই আসলে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন। তেমন পরিস্থিতি তৈরি হলেও তা অভাবনীয় হবে না। এক্ষেত্রে তারেক রহমানের স্ত্রী জোবায়দা রহমান কি ভোটের মাঠে হাজির হবেন? তার রাজনীতিতে আসার বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই আলোচনা চলছে। কেউ বলেন, সত্য। কেউ বলেন, রিউমার। কেউ বলেন. টেবিল টক। সম্প্রতি জিয়া পরিবারের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত এক বিএনপি নেতার কাছে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি জোবায়দা রহমানের রাজনীতিতে আসার সম্ভাবনা একেবারে নাকচ করে দেননি। বলেছেন, প্রয়োজনে ডা. জোবায়দা রাজনীতিতে আসতেও পারেন। তবে সেজন্য আরও অপেক্ষা করা হবে।

যে কোনো পরিস্থিতিতে নির্বাচনে যাওয়ার ব্যাপারে এক ধরনের আলোচনা বিএনপি’র মধ্যে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানাচ্ছে। তবে তারা এও বলছেন, অনেক ক্ষেত্রেই বিএনপিতে বড় বড় সিদ্ধান্ত এমনভাবে হয় যাতে কোনো ভবিষ্যদ্বাণী মিলে না। দলটিতে নানা ধরনের শেয়ারহোল্ডার রয়েছেন বলেও ওই সূত্রের দাবি। যে কারণে সিদ্ধান্তের ধারবাহিকতা রক্ষা করা সম্ভব হয় না। নির্বাচন নিয়ে যে রাজনীতিতে এক ধরনের নড়াচড়া রয়েছে বিএনপি’র নীতি নির্ধারকরা এ ব্যাপারে ওয়াকিবহাল। ভোটের রাজনীতিকে সামনে রেখেই জাতীয় পার্টির কয়েকজন নেতা সম্প্রতি ভারত সফর করেছেন। আরও কয়েকটি দলেও এক ধরনের নির্বাচনী প্রস্তুতি রয়েছে। এ প্রেক্ষাপটে বিএনপি যদি কোনো কারণে নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সেক্ষেত্রে দলীয় ঐক্য ধরে রাখার বিষয়টি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে বলেও মনে করেন কোনো কোনো রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক। নানা দুর্যোগের মধ্যে যাওয়া দলটি যে এখন পর্যন্ত ঐক্য ধরে রাখতে পেরেছে তাকে অনেকেই বড় সফলতা বলে বিবেচনা করেন। নানা হিসাব। তবে বিএনপি’র সামনে নির্বাচনের তেমন কোনো বিকল্প নেই বলেই দলটির বেশির ভাগ নেতার ধারণা। তবে যেখানেই থাকেন না কেন, সিদ্ধান্ত শেষ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার। কী হবে তার সিদ্ধান্ত। তা দেখতে অপেক্ষায় থাকতে হবে।মানবজমিন

Related posts