April 20, 2019

নাগা মরিছেই লাখ পতি হতে চান বিশ্বনাথের নিজামউদ্দিন

IMG_20180220_163736_919মোঃ আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ (সিলেট) থেকে :: নিজামউদ্দিন নাগা মরিছের চাষ করে দেড় লাখ টাকা আয় করতে চান। আয়ের জন্য তিনি পরিশ্রম করে যাচ্ছেন নিয়মিতভাবে। নিজ বাড়ির সামনে প্রায় ২২ ডিসিমেল জায়গায় এ বছর নাগা মরিছের চাষ করেছেন।

৪ ভাইয়ের মধ্যে ৩য় নিজামউদ্দিন। ৩ ভাই প্রবাসে আছেন। তারপরও নিজের পায়ে দাঁড়াতে অই যুবকের অলসতা নেই। নিজামউদ্দিন বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের ছামির আলীর পুত্র।

আজ মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী নিজামউদ্দিনের নাগা মরিছের বাগান ঘুরে দেখা গেছে, সবুজ মাঠে ফুল ফুটতে শুরু করেছে নাগার গাছে। ফুল ফুটায় খুশি কৃষক।

এ ব্যাপারে কৃষক মো. নিজামউদ্দিন বলেন, কৃষির প্রতি আমার আলাদা ভালবাসা। যার ফলে আমি সব সময় কৃষি নিয়ে ব্যস্থ থাকি। আর বর্তমানে আমাকে বেশী আগ্রহী করে তুলেছেন রামধানা গ্রামের জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রাপ্ত বেলাল আহমদ ইমরান। তিনি বলেন, নিজের পায়ে দাঁড়ানো হচ্ছে আমার প্রধান এবং প্রধান কাজ। এ বছর ২২ ডিসিমেল জায়গায় ৪২৫টি নাগা মরিছের চারা রোপন করেছি। চারাগুলো বর্তমানে ফুল ফুটা শুরু করেছে। একটি গাছে ৮০০ শত নাগা মরিছ ধরার আশা আছে আমার। ৫০ পয়সা করে বিক্রি করলে প্রায় দেড় লাখ টাকা বিক্রি হবে বলে আশাবাদি সে। এতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ৭-৮ হাজার টাকা। আশাকরি আমার লক্ষমাত্রা পূরণ হবে যদি আবহাওয়া অনুকুলে থাকে।

জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রাপ্ত কৃষক বেলাল আহমদ ইমরান বলেন, চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি বেকার, মেধাবী ও উদ্যমী যুবকদেরকে কৃষি কাজে জড়িত করার। সেই লক্ষে কাজ করছি এবং সে ধারা অব্যাহত রেখেছি।

ডাক্তার মো. শানুর আলী মামুন বলেন, খুব ভাল লাগে যুবকেরা ভাল কাজগুলো করলে। এভাবে যুবকেরা এগিয়ে আসলে বিশ্বনাথ উপজেলায় কৃষি ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটবে বলে আমি আশা রাখি।

বিশ্বনাথ উপজেলা কৃষি অফিসার আলীনূর রহমান বলেন, বিশ্বনাথের বেকার, শিক্ষিত যুবকেরা ধীরে ধীরে কৃষি কাজে এগিয়ে আসছে। যা দেশ ও জাতির জন্য খুবই ভাল। আমাদের পক্ষ থেকে যতটুকু সহযোগিতার প্রয়োজন আমরা অই যুবককে সহযোগিতা করে যাব।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মো. আব্দুর রহমান বলেন, নাগা মরিছে ভিটামিন সি রয়েছে। নাগা মরিছ পরিমান মত খেলে ব্রেইনের  উপকার হয় তবে অতিরিক্ত খেলে গ্যাসটিক সমস্যা হতে পারে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার অমিতাভ পরাগ তালুকদার  বলেন, খুবই প্রসংসনীয় উদ্যোগে আমি এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। যুবকেরা আরো এগিয়ে আসার দরকার বলে আমি মনে করি।

Related posts