September 24, 2018

‘নতুন প্রজন্মের কাছে শহীদ জিয়ার আদর্শ তুলে ধরতে হবে’

Seminar Pic

ছবিঃ লন্ডনের সেমিনারে বক্তারা

মুহাম্মদ নূরে আলম (বরষণ) লন্ডন থেকেঃ লন্ডনে বাংলাদেশর প্রথম রাষ্ট্রপতি ও স্বাধীনতার ঘোষক, শহীদ জিয়াউর রহমান বীরউত্তম এর ৮১তম জন্মবার্ষিকীর উপলক্ষ্যে যুক্তরাজ্য বিএনপি আয়োজিত ‘বহুদলীয় গণতন্ত্র ও উন্নয়নের রাজনীতির প্রবর্তক শহীদ জিয়া ‘ -শীর্ষক সেমিনার বক্তারা বলেছেন, নতুন প্রজন্মের কাছে শহীদ জিয়ার আদর্শ তুলেধরতে হবে। একমাত্র শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে যথাযথ ভাবে তুলে ধরার মাধ্যমে বাংলাদেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, মানুষের ভোটের অধিকার, বাক স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনা সম্ভব । বর্তমান অবৈধ সরকার ক্রমাগত জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণায় লিপ্ত ।বর্তমান অবৈধ সরকার দেশের প্রত্যেকটি প্রতিস্টানকে আজ দলীয়করণের মাধ্যমে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিয়েছে। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে একটি ভয়াবহ এবং নৃশংস ঘটনার হচ্ছে পিলখানায় সেনা হত্যাযজ্ঞ। অথচ এই ঘটনাটি নিয়ে ছেলেখেলা শুরু করেছেন শেখ হাসিনা।

গত ১৯শে জানুয়ারি সোমবার পূর্ব লন্ডনের সিটি হোটেলের অডিটরিয়ামে যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কয়সর এম আহমেদের পরিচালনায় অনুস্টিত সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাহিদুর রহমান বলেন, শহীদ জিয়া ছিলেন একটি ইন্সটিটিউশন। ষড়যন্ত্রকারীরা এখন শহীদ জিয়ার ইমেজ বিনষ্টের চক্রান্তে লিপ্ত। তবে জিয়াউর রহমান স্বীকৃতি পেয়েছেন জনগণের আদালতে। দেখা যায়, জনগণ যখনই নিরপেক্ষভাবে ভোট দেয়ার সুযোগ পেয়েছে, ভোট দিয়েছে শহীদ জিয়াউর রহমান এবং তার প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপিকে। এ কারণেই জনগণই বিএনপির ভরসা, বিএনপির চলমান আন্দোলন নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য।

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেকের সভাপতিত্বর বক্তব্যে বলেন, শেখ হাসিনার বিষদাঁত ভেঙ্গে দেয়া হবে । আগামী দিনে ফাসিস্ট শেখ হাসিনা ইংল্যান্ডসহ ইউরোপের যেখানে আসবে সেখানে কঠোর ভাবে প্রতিরোধ করা হবে এবং বাধ্য করা হবে বিমান বন্দর থেকে ফিরে যেতে । দেশে এই জালিম সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বিএনপির আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। কেন্দ্রীয় যুবদল ও কেন্দ্রীয় জাসাসের নতুন কমিটি উপহার দেওয়ায় বিএনপির চেয়ারপার্সণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস- চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।
যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়সর আহমেদ বলেন, শেখ হাসিনা বিএনপিকে অবৈধ বলেন, কিন্তু ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমান সকল রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করার পর ১৯৭৬ সালের জুলাই মাসে দেশে রাজনৈতিক দলগুলোকে রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনা করার সুযোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান যেভাবে বাকশালের অন্ধকার থেকে দেশকে আলোর পথে এনছিলেন, চালু করেছিলেন বহুদলীয় গণতন্ত্র । বর্তমানে বন্দী গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবে শহীদ জিয়ার দল বিএনপি। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার অন্দোলনে আবারো সবাইকে প্রস্তত থাকার আহবান জানান বক্তারা।
জাস্ট নিউজ সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক সহকারি প্রেস সচিব জনাব মুশফিকুল ফজল আনসারী বলেন, শহীদ জিয়া দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশর একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্ত নিরলস ভাবে বিচরণ বেড়িয়েছেন। দেশের যুব সমাজকে প্রশিক্ষিত করে তুলতে যুব উন্নয়ন একাডেমি করেছেন, বহির্বিশ্বে শ্রমিক প্রেরণ, একুশে পদক, স্বাধীনতা পদক চালু, গার্মেন্টস শিল্পকে প্রতিস্টিত করণসহ দেশের প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়নে শহীদ জিয়ার অবদান অপরিসীম।

সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি যুক্তরাজ্য বিএনপির প্রধান উপদেস্টা শায়েস্তা চৌধুরী কুদ্দুস, সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ চৌধুরী, সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মুজিবুর রহমান মুজিব,যুক্তরাজ্য বিএনপির সহ-সভাপতি এম লুৎফর রহমান, মঞ্জুরুস সামাদ চৌধুরী মামুন, মোঃ গোলাম রাব্বানি, গোলাম রাব্বানী সোহেল, উপদেষ্টা তইমুছ আলী, যুক্তরাজ্য বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক সহিদুল ইসলাম মামুন , কামাল উদ্দিন,সিনিয়র সদস্য নাসিম আহমেদ চৌধুরি, আলহাজ সাদিক মিয়া, মেসবাউজ্জামান সোহেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক সামছুর রহমান মাহতাব, ডক্টর মুজিবুর রহমান, আজমল হোসেন চৌধুরী জাবেদ, , স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক আহ্বায়ক এমদাদ হোসেন টিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক শামিম আহমেদ, , কোষাধক্ষ্য আব্দুস সাত্তার, দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হাসান জাহিদ, যুব বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হামিদ খান হেভেন, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক তাজবির চৌধুরী শিমুল,, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক আবু নাসের শেখ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক আসদুজ্জামান আকতার, সহ-দফতর সম্পাদক সেলিম আহমেদ, সহ ক্রীড়া সম্পাদক সরফরাজ আহমদে সরফু, সহ তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক জাহিদ হাসান গাজি,যুক্তরাজ্য বিএনপির সদস্য টিপু আহমেদ, কামাল চৌধুরী, বাবুল আহমেদ চৌধুরী, , আরিফ মাহফুজ,লুবায়েক আহমেদ চৌধুরী, সালেহ গজনবী, শিসু মিয়া, হাবিবুর রহমানি, আমিনুর রহমান আকরাম,শাহিদ মুসা, যুক্তরাজ্য বিএনপির বিভিন্ন জোনাল কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, লন্ডন মহানগর বিএনপির সভাপতি তাজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবেদ রাজা, ইস্ট লন্ডন বিএনপির আহ্বায়ক আশরাফ গাজি, সদস্য সচিব এস এম লিটন, সেন্ট্রাল লন্ডন বিএনপির জুয়েল আহমেদ,নিউহাম বিএনপির আহ্বায়ক মুস্তাক আহমেদ,সদস্য সচিব সেবুল মিয়া, লন্ডন নর্থ ওয়েস্ট বিএনপির সভাপতি মোঃ সেলিম, কেন্ট বিএনপির সভাপতি আব্দুল হান্নান, কেমডেন এন্ড ওয়েস্ট মিনিস্টার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক পারভেজ কবির, লন্ডন সাউথ ইস্ট বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মকসুদ আলী জাকারিয়া, লুটন বিএনপির যুগ্ম- আহ্বায়ক মঞ্জুর আহমেদ শাহনাজ, বিএনপি নেতা মিসবাউজ্জামান বাবু, শাহেদ উদ্দিন চৌধুরী, সৈয়দ শাহিন হোসাইন, এডভোকেট নুর উদ্দিন আহমেদ, শরিফ উদ্দিন ভূঁইয়া বাবু, তপু শেখ, সোহেল শরিফ মোঃ করিম, মুনিম এনাম, লাহিন আহমেদ, আব্দুস সালাম আজাদ, দেওয়ান মইনুল হোসেন উজ্জ্বল, মাওলানা শামিম, আসমা জামান, মাহমুদুল হাসান, এস কে তারিকুল ইসলাম, আমির আব্দুল্লাহ, মোঃ আবুল কাহার, মিজানুর বক্স, মমিনুর মুরাদ, বদরুল হক চৌধুরী তুহিন,এ এম শহিদ, আলমগির শেখ সাজু, মাইন উদ্দিন, আলী আকবর খোকন, খসরু আহমেদ, শামসুল ইসলাম, সেলিম উদ্দিন জাকি, আবুল কয়েস, আতিক উল্লাহ, মোঃ মাসুদুজ্জামান, এম আই হোসেন রাসেল, শাহজাহান আহমেদ, এম এম ইসলাম, জিয়াউর রহমান, জাতীয়তাবাদী ল’ ফোরাম যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি ব্যারিস্টার আবুল মনসুর শাহজাহান, আইনজীবী নেতা ব্যারিস্টার আনোয়ার চৌধুরী, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মিসবাহ বি এস চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, জাসাস সভাপতি এমএ সালাম, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, মহিলা দল আহ্বায়ক ফেরদৌস রহমান, সদস্য সচিব অঞ্জনা আহমেদ,যুক্তরাজ্য যুবদলের সাবেক সভাপতি রহিম উদ্দিন,সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোয়ালেহিন করিম চৌধুরী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ লায়েক মোস্তফা, আফজাল হোসেন, দেওয়ান আব্দুল বাছিত, বাবর চৌধুরী, আক্তার হোসেন শাহিন, আব্দুল মুনিম, নুরুল আলী রিপন, তোফায়েল আহমেদ আলম, আবুল খয়ের,ডাক্তার মন্সুর আহমেদ, সুয়েদুল হাসান, মোশারফ হোসেন, লাকি আহমেদ, মোঃ গোলাম কিব্রিয়া, কামরুল ইসলাম, মেহদি হাসান, শেখ মিজান, স্বেচ্ছাসেবক দলের, শরিফুল ইসলাম, তুরন মিয়া,আজিম উদ্দিন, আকমল হোসেন, শিরিন আক্তার,ফজলে রহমান পিনাক, জাসাসের তরিকুর রশিদ চৌধুরী শওকত, সাবেক ছাত্রদল নেতা সাইফুল ইসলাম মিরাজ, আমিনুল ইসলাম, ইমতিয়াজ আহমেদ তামিম, মো: সাফিউল ইসলাম মুরাদ,সাকিব, মাহবুব হাসান আহমেদ জাকি, আমিরুল ইসলাম, রেজাউল করিম রিকি, মনির আহমেদ,রেজান জামান, কামাল মিয়া, মাসুদুর রহমান প্রমূখ।

Related posts