November 19, 2018

দুরন্ত নিউজিল্যান্ডের সামনে ‍বিদায়ী বাংলাদেশ

Global ti

কলকাতা: বাছাই পর্বে দুর্দান্ত পারফর্ম করে টি২০ বিশ্বকাপের সুপার টেনে উঠেছিল বাংলাদেশ দল। কিন্তু অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের জের ধরে তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানিকে হারিয়ে এলোমেলো মাশরাফি শিবির। তবে সেই ঝড় কাটিয়ে ভারতের বিপক্ষে স্বরূপে ফিরতে মরিয়া ছিল টাইগাররা। অথচ মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহর আত্মাহুতি ঝুঁকিপূর্ণ শটে সব ভেস্তে যায়। ধূলিস্যাত হয়ে যায় সেমিফাইনালে খেলার সম্ভাবনা। টানা তিন হারে বাজে বিদায় ঘন্টা।

ফলে আগামী শনিবারের অনুষ্ঠেয় ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য নিয়মরক্ষার। যেখানে প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। যারা এখন পর্যন্ত অপরাজিত। টানা তিন জয়ে যারা প্রথম দল হিসাবে টি২০ বিশ্বকাপের সেমির খেলা নিশ্চিত করেছে আগেই। তারপরও জয় ছাড়া কিছুই ভাবছে না কিউই শিবির। তবে বাংলাদেশও ছেড়ে কথা বলবে না। শেষটা ভালো করতে মরিয়া মাশরাফি বাহিনী। শনিবার কলকাতার ইডেন গার্ডেনে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় শুরু হবে ম্যাচটি। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে মাছরাঙা টেলিভিশন, গাজী টিভি ও স্টার স্পোর্টস ১ ও ৩।

অনেক চাপ-কষ্ট নিয়ে বাংলাদেশ দল এখন কলকাতায়। মুখে কেউ কাউকে কোনো দোষ দিতে পারছেন না, আবার ভারতের কাছের হারটা মেনেও নিতে পারছেন না। হারের স্মৃতিটা ভুলে যেতে আর মনকে স্বান্তনা দিতে মাশরাফি বারবার বলছেন, ‘বাংলাদেশের সবকিছু শেষ হয়ে যায়নি।’

দেশের ক্রিকেট পাগল মানুষের কথা ভেবে সাকিব-মাশরাফিদের কষ্টটা আরও বেশি। শনিবার বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ হতে যাচ্ছে, নিয়মরক্ষার ম্যাচ দিয়ে। তবে টাইগারদের কাছে এটা শুধুই একটি নিয়ম রক্ষার ম্যাচ নয়।

ধারাবাহিক উন্নতি করা বাংলাদেশ খালি হাতে ফিরবে এটা কি মেনে নিতে পারবেন সমর্থকরা? বাংলাদেশ বিশ্বকাপ থেকে খালি হাতে ফিরতে চায় না। নিউজিল্যান্ড বলেই শেষ ম্যাচে মাশরাফিদের জয়ের সম্ভাবনা আরও বেশি। অন্তত একটি জয় পেলেও ভারত থেকে দেশের মানুষের জন্য কিছু নিয়ে ফিরতে পারবেন টাইগাররা। বাংলাদেশের চেষ্টা তাই শেষটা ভালো করার।

শুক্রবার সকালে নিউজিল্যান্ড দল ইডেন গার্ডেনে অনুশীলন করেছে। কিন্তু মাঠমুখো হয়নি বাংলাদেশ। ইডেনের পাশে মোহামেডান ক্লাবে অবশ্য জুম্মার নামাজ আদায় করেছেন সাকিবরা। শেষ লড়াইয়ের আগে নিজেদের ফুরফুরে করার চেষ্টাতেই অনুশীলন বন্ধ রাখা। শোনা গেছে ইডেনে পাকিস্তানের বিপক্ষে যে উইকেটে খেলেছিল বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও সেই একই  উইকেটে খেলা হবে। যদি একই উইকেটে খেলা হয় তাহলে স্পিনারদের জন্য আরও বেশি সুযোগ থাকবে। একেতো উপমহাদেশে স্পিনারদের ভয়ে থাকতো নিউজিল্যান্ড, তারাই এখন উল্টো প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলে দিচ্ছে সেই ঘূর্ণি দিয়ে।

ভারতের সঙ্গে বাজেভাবে হারলেও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ভালো কিছুরই আশা করছে বাংলাদেশ। শুক্রবার মাশরাফি ইডেনে গার্ডেনে বলেন, ‘ওই হারে (ভারতের বিপক্ষে) সবাই হতাশ। এমন না যে আমরা এর আগে হারেনি। অবশ্যই বাংলাদেশের দর্শকরা আমাদের পাশে থাকবে। এখনো আছে। সমর্থকদের অবস্থা আমরা সবাই বুঝতে পেরেছি, প্রত্যেকটা মানুষই ভেঙ্গে পড়েছে। চেষ্টা করবো সামনের ম্যাচটায় আমাদের সেরা খেলাটা খেলার।’

টি২০ ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ফলাফল ভালো নয়। তিনবারের মোকাবেলায় সবগুলোতেই হেরেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে একটি ম্যাচ ছিল টি২০ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কায়। সর্বশেষ হার ২০১৩ সালের নভেম্বরে ঢাকায়, ১৫ রানে।

তবে কিউইদের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বশেষ ওয়ানডে রেকর্ড আশাই জাগাচ্ছে। যেখানে আট ম্যাচের মধ্যে সাতটিতেই জিতেছিল বাংলাদেশ। তবে টি২০ ফরম্যাট বলেই বাড়তি চিন্তা রয়েছে। তাছাড়া নিউজিল্যান্ডও রয়েছে এখন অপ্রতিরোধ্য গতিতে। তারা হারিয়ে এসেছে পাকিস্তান, ভারত, অস্ট্রেলিয়ার মতো তিন ক্রিকেট পরাশক্তিকে। তবে দেশের মাটিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশকে যেমন অপ্রতিরোধ্য মনে হয় কলকাতায় সেটাই দেখানোর অপেক্ষায় মাশরাফিরা।

বাংলাদেশ অধিনায়কেরও বিশ্বাস, পাকিস্তানের বিপক্ষে ছাড়া বিশ্বকাপে কোনো ম্যাচেই খারাপ খেলেনি বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১৫৬ রান করে লড়াই করেছে। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে ১৪০ বলের ২৩৭ বলই জিতেছে। নিউজিল্যান্ডে বিপক্ষে হারের চিন্তা মাথায়ই আনছে না বাংলাদেশ। ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডার পুরোটাই ওলোট-পালোট ছিল। টিম কম্বিনেশন অবশ্য বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কে তার উপরই নির্ধারণ করা হয়। শেষ ম্যাচে অবশ্য নাসির হোসেনকে খেলানোর পরিকল্পনা আছে বাংলাদেশের টিম ম্যানেজম্যান্টের।

অপরদিকে নিউজিল্যান্ড সেমিতে উঠে গেলেও বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচটা হালকাভাবে নিচ্ছে না তারা। গ্রুপ সেরা হয়েই তারা সেমিফাইনালে পা রাখতে চায়। দলের ওপেনার মার্টিন গাপটিল দারুণ ফর্মে রয়েছে। স্পিনার মিসেল সান্তনার ও ইশ সোধি ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়ার দারুণ ক্ষমতা দেখাচ্ছেন। নিউজিল্যান্ডের স্পিনার ইশ সোধি বলেছেন, ‘বাংলাদেশের বিপক্ষে জিতলেই আমাদের গ্রুপ সেরা নিশ্চিত হবে। তাই আমরা গ্রুপ সেরা হয়েই সেমিফাইনালে যেতে চাই।’

এবার অপেক্ষার পালা, কলকাতার ইডেন গার্ডেনে নিয়মরক্ষার ম্যাচে কতটা তেতে উঠতে পারে বাংলাদেশ।

Related posts