November 21, 2018

দুই বোনকে আটক রেখে দেহব্যাবসা, মহিলাসহ দুই প্রেমিক আটক

শামসুজ্জোহা পলাশ,
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিঃ
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা হটাৎ পাড়া থেকে নিখোঁজ মামাতো ফুফাত কিশোরী দুই বোন মাদ্রাসা ছাত্রী রেখা আক্তার (১৪) ও দোলন আক্তারকে (১৫) ঢাকা সাভার থেকে ২৮ দিন পর উদ্ধার করেছে দামুড়হুদা মডেল থানা পুলিশ। এসময় এক মহিলাসহ ৩ জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো, ঢাকা সাভারের কুক্ষাত মাদক ব্যাবসায়ী ৫টি মাদক মামলার আসামী লাবনী ওরফে আয়সা ওরফে আলেয়া (৪৫), দামুড়হুদার দর্শনা থেকে রানা (৩০) ও মামুন (২৮)।

উদ্ধারকৃত ২ কিশোরীদেরকে সাভারে আটক রেখে দেহ ব্যাবসা করানো হয়েছে বলে তারা জানায়। মঙ্গলবার সকাল ৬ টার দিকে সাভার থেকে এদেরকে আটক ও উদ্ধার করে বিকেল ৫ টার দিকে পুলিশ দামুড়হুদা মডেল থানায় পৌছায়।

দু’কিশোরীকে উদ্ধার অভিযানে যাওয়া দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) আব্দুল খালেক জানায়, চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার উপজেলার দর্শনা আজমপুরের ভাড়াটিয়া আশরাফ আলীরে ছেলে রানা (৩২) ও হঠাৎ পাড়ার আমির হোসেনের ছেলে মামুন (২০) রেখা ও দোলনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গরে তোলে।

তিনি আরও জানান, গত ২৭ জুলাই রাত ৮টার দিকে কিশোরী দু’জনকে ফুসলিয়ে বাড়ী থেকে বের করে ঢাকা সাভারে নিয়ে যায়। সেখানে ভাড়ায় থাকা দর্শনা মোবারক পাড়ার লিটনের স্ত্রী ৫টি মাদক মামলার আসামী ও বাসা বাড়িতে দেহ ব্যবসাকারীনি লাবনী ওরফে আয়সা ওরফে আলেয়ার কাছে রেখে আসে। পরে আয়সা তাদেরকে দিয়ে জোর করে দেহ ব্যাবসা করায়। এতে তারা রাজী না হলে তাদেরকে শারিরিক নির্যাতন করা হতো।

দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, নিখোঁজ ২ কিশোরীর মোবাইল ফোন ট্রাকিং করে এদের ঢাকা সাভারে অবস্থান নিশ্চিত করা হয়। পরে দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি তদন্ত আঃ খালেক সঙ্গীয় ফোস নিয়ে অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার সকাল ৬ টার দিকে সাভারের ওভার ব্রিজের সামনের এক বাসা থেকে রেখা আক্তার ও দোলন আক্তারকে উদ্ধা করা হয়। এসময় তাদের আটক করে দেহব্যবসা করানো ভাড়াটিয়া লাবনী ওরফে আয়সা ওরয়ে আলেয়াকে আটক করা হয়। এদিন বিকেল ৫ টার দিকে থানায় আনার পর নিখোঁজ রেখা ও দোলনের স্বীকারোক্তিতে থানা পুলিশ বিকেলে দর্শনায় অভিযান চালিয়ে রানা ও মামুনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর সাথে জড়িত আরো ৫জন মাদক ব্যাবসায়ীকে খুজছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, উদ্ধার হওয়া দু’কিশোরী গত ২৭ জুলাই রাতে নিখোঁজ হওয়ার ৮ দিন পর ৪ আগষ্ট রাতে তাদের দাদা-নানা আবুল হোসেন দামুড়হুদা মডেল থানায় একটি জিডি করেন।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts